১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ফেরার লড়াই শুরু তাসকিনের


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আপাতত আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যস্ততা শেষ হয়ে গেছে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) ফিউচার ট্যুরস প্রোগ্রামের আওতায় কোন দ্বিপাক্ষিক সিরিজ নেই বাংলাদেশ দলের দীর্ঘ ৫ মাস। দীর্ঘ এ বিশ্রামের সুযোগটাও কাজে লাগিয়ে সময় নষ্ট করতে চাইছেন না তরুণ পেসার তাসকিন আহমেদ। কারণ কাঁধের ওপর বোঝা হয়ে চেপে আছে নিষেধাজ্ঞার খড়গ। এবার টি২০ বিশ্বকাপের প্রাথমিক রাউন্ডে হল্যান্ডের বিরুদ্ধে ম্যাচে তাসকিনের বোলিং এ্যাকশন নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন আম্পায়াররা। পরবর্তীতে পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে ত্রুটি চিহ্নিত করে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয় তাসকিনকে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) অবশ্য নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের জন্য রিভিউ আবেদন করেছিল, সেটাও খারিজ হয়ে গেছে। এবার তাই ফেরার লড়াই তাসকিনের। সোমবার থেকেই সেই প্রক্রিয়া শুরু করেছেন তিনি। মিরপুরের জাতীয় ক্রিকেট একাডেমিতে বোলিং কোচ হিথ স্ট্রিকের সঙ্গে বোলিং এ্যাকশন শুধরানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছেন তাসকিন।

২১ বছর বয়সী উদীয়মান পেসার তাসকিনের বোলিং এ্যাকশন সন্দেহজনক এমন একটি রিপোর্ট আইসিসির কাছে দেন আম্পায়াররা। বিষয়টি বাংলাদেশ দল, তাসকিন স্বয়ং, বাংলাদেশ দলের কোচ-ম্যানেজার এবং দেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছেই হাস্যকর মনে হয়েছিল। বিস্ময়কর মনে করেছিল বিসিবি। সবাই আশাবাদী ও আত্মবিশ্বাসী ছিলেন যে তাসকিনের এ্যাকশন পরীক্ষার পর তিনি উতরে যাবেন। চেন্নাইয়ে আইসিসির অনুমোদিত ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা দেয়ার পর তাসকিন নিজে যেমন আত্মবিশ্বাসী ছিলেন, তেমনি বোলিং কোচ স্ট্রিকও প্রত্যয় জানিয়েছিলেন কোন ত্রুটি পাওয়া যাবে না তাসকিনের। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে তাসকিনও নিষিদ্ধ হন স্পিনার আরাফাত সানির সঙ্গে। এই নিষেধাজ্ঞাকে অন্যায়, অবিচার দাবি করেন এমনকি অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাসহ বিশ্ব ক্রিকেটের বিশ্লেষকরাও। বিসিবি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের জন্য আবেদন করলেও সেটা খারিজ হয়ে যায় এবং নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকে। গত শুক্রবার দেশে ফিরেই দ্রুত আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার প্রত্যয় জানান তাসকিন। দল ফিরেছে রবিবার। আর আজকেই নিজের এ্যাকশনের ত্রুটি সংশোধনের জন্য নেমে পড়েছেন তাসকিন।

পরীক্ষাগারে তাসকিনকে স্বল্প সময়ের মধ্যে ৯টি বাউন্সার দিতে বলা হয়েছিল যার মধ্যে তিনটিতেই সমস্যা শনাক্ত করা হয়। সেটার জন্যই তাকে এই নিষেধাজ্ঞায় পড়তে হয়েছে। সেজন্য বাউন্সার নিয়েই কাজ করছেন তিনি। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন আত্মবিশ্বাসের সঙ্গেই তাসকিনের বিষয়ে বলেছেন, ‘তাসকিনের প্রতি অন্যায় করা হয়েছে এবং সে আগামীকাল পরীক্ষা দিলেও পাস করবে।’ কিন্তু যেহেতু বাউন্সার নিয়ে সমস্যা তৈরি হয়েছে সেজন্য সেটা নিয়েই কাজ করবেন তাসকিন। সময় নষ্ট না করে সোমবার সকাল থেকেই বোলিং কোচ স্ট্রিকের সঙ্গে অনুশীলন শুরু করে দিয়েছেন তিনি। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের একাডেমি মাঠে শুরু হয়েছে তাসকিনের পুনর্বাসন প্রক্রিয়া। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত স্ট্রিককে সঙ্গে নিয়ে বোলিং এ্যাকশনের কাজ করেন তরুণ এ পেসার। তাসকিন অবশ্য সবার ভালবাসায় বেশ উদ্বুদ্ধ এবং প্রত্যয়ী। বিন্দুমাত্র হতাশাবোধ করছেন না তিনি। দেশের ক্রিকেটভক্ত-সমর্থক, দলের কোচ, মাশরাফি আর বিসিবির ভালবাসা তাকে বিস্মিত করেছে। সে কারণে দেশে ফিরেই জানিয়ে দিয়েছেন, নতুন করে আরও ভয়ঙ্কর হয়েই ফিরবেন তিনি। কোন চাপও অনুভব করছেন না। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে আবারও বোলিং এ্যাকশন পরীক্ষা দিয়ে পাস করতে হবে তাসকিনকে। এবার যাতে বাউন্সারেও কোন খুঁত ধরা না পড়ে সে চেষ্টাই করে যাচ্ছেন এ ডানহাতি পেসার।