২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৩ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

ব্রিটেনের ইইউ ত্যাগ সন্ত্রাস বিরোধী লড়াই দুর্বল করবে


যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএর প্রধান সাবেক জেনারেল ডেভিড পেট্রাউস টেলিগ্রাফ পত্রিকায় এক বিশেষ নিবন্ধে ব্রিটেনে গণভোটে ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) থাকার জন্য ব্রিটিশ ভোটারদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ব্রিটেন ইইউ ত্যাগ করলে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে পাশ্চাত্যের লড়াই দুর্বল হয়ে পড়বে। খবর টেলিগ্রাফের।

নিবন্ধে বলা হয়েছে, ব্রিটেন ও আমেরিকান সেনাবাহিনী আমাদের যৌথ নিরাপত্তা ও স্বাধীনতা রক্ষায় গত শতাব্দীতে বিভিন্ন সময়ে এক সঙ্গে লড়াই করেছে। আমাদের দুদেশের নারী ও পুরুষ ঐক্যবদ্ধভাবে মানব সভ্যতার প্রতি হুমকি নাৎসি ফ্যাসিবাদ উত্থান প্রতিহত করেছে এবং সোভিয়েত ইউনিয়ন ও কমিউনিজমের বিরুদ্ধে দীর্ঘ লড়াইয়ে সহযোগী হিসেবে একসঙ্গে থেকেছে। ব্রিটিশ ও আমেরিকান বাহিনী আজকে আবারও ঝাঁপিয়ে পড়েছে রণাঙ্গনে। এবার লড়াই করছে তারা ইসলামিক স্টেট (আইএস) ও আল কায়েদার বিরুদ্ধে এবং আমাদের দেশে হামলার আগেই সন্ত্রাসীদের প্রতিহত করতে কাজ করে যাচ্ছে। পেট্রাউস বলেছেন স্নায়ুযুদ্ধকালীন ইউরোপে বসনিয়া, ইরাক, আফগানিস্তান ও বৃহত্তর মধ্যপ্রাচ্যে ব্রিটিশ বাহিনীর সঙ্গে যোগে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি আমি আমার বিবেচনায় আমাদের ব্রিটিশ কমরেডরা বিশ্বে যে কোন সশস্ত্র বাহিনীর পুরুষ ও নারীদের মধ্যে উৎকৃষ্ণতম। তিনি বলেন, আমি জানি যে, আমার সহযোগী আমেরিকান সৈন্যরা এবং আমার নিয়ন্ত্রণাধীন জোটভুক্ত অন্যান্য দেশের সৈন্যরা রণাঙ্গনে আমাদের ব্রিটিশ অংশীদারদের পেশাগত দক্ষতা, যোগ্যতা, সাহস ও দৃঢ়তার উচ্চ মূল্যায়ন করে। পাশ্চাত্য যে মুহূর্তে হামলার সম্মুখীন ব্রিটেন সে মুহূর্তে ইইউ ত্যাগ করলে তা হবে সংস্থার শক্তি ও সামর্থ্যরে প্রতি এক উল্লেখযোগ্য আঘাত।

নিবন্ধে বলা হয়, বিশেষ সম্পর্ক, বলে অভিহিত যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের মধ্যকার জোটের ব্যাপক গুরুত্ব রয়েছে আজকে। কারণ আমাদের দুই গণতান্ত্রিক দেশ ও বিশ্বে আমাদের সহযোগীরা আমাদের নিরাপত্তা ও কল্যাণের জন্য প্রচ- বিপদের বিরুদ্ধে লড়ছে। ইউরোপে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন তার আশপাশের রাষ্ট্রগুলোতে রুশ আধিপত্য পুনর্প্রতিষ্ঠা করতে চাইছে এবং ইউরোপীয় ঐক্য ভাঙ্গনের লক্ষ্যে সেনাবাহিনীকে কাজে লাগাচ্ছে। এছাড়া মধ্যপ্রাচ্যে, বেশ কয়েকটি দেশ ভেঙ্গে পড়ায় বিশাল এলাকার নিয়ন্ত্রণ গ্রহণে চরমপন্থীদের জন্য সুযোগ তৈরি হয়েছে। আর তারা আমাদের শহরগুলোতে গণহত্যার পরিকল্পনা করছে। পেট্রাউস বলেন, সাইবার স্পেসের মাধ্যমে চরমপন্থী ও অপরাধীরা সম্ভাব্য জিহাদি সংগ্রহ করছে এবং অর্থনৈতিক ব্যবস্থা, শিল্পগ্রিড এবং অত্যন্ত মূল্যবান ও স্পর্শকাতর উপাত্তের ওপর হামলা চালাচ্ছে। এমন চ্যালেঞ্জ সময়ে, যখন আমাদের বৈরীরা আমাদের বিভিন্ন পর্যায়ে বিভেদের বীজ বপন করতে চাইছে এবং বিশ্বের নিয়মশৃঙ্খলা নস্যাৎ করতে চাইছে তখন পাশ্চাত্যের জন্য শক্তিশালী অবস্থান গ্রহণ ও ঐক্যবদ্ধ হওয়া আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। আর তাই এর বিপরীতে পাশ্চাত্যে শক্তিশালী ও নীতিনিষ্ঠ আমেরিকান ও ব্রিটিশ নেতৃত্বের প্রয়োজন রয়েছে। নিবন্ধে বলা হয়, এ কারণে, যুক্তরাজ্য ও এর নাগরিকদের প্রতি অত্যন্ত শ্রদ্ধা রেখে এবং আমার ব্রিটিশ বন্ধুদের ইইউ ত্যাগ করার আগে বিষয়টি আবারও ভেবে দেখার আহ্বান জানাচ্ছি।