২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৬ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

সিরিয়ায় জঙ্গী পাঠাচ্ছে ইউরোপ


ইউরোপীয় সরকারগুলো নিজেদের সমস্যা দূর করতে তাদের দেশের ইসলামী চরমপন্থীদের সিরিয়ায় পাঠানোর চেষ্টা করছে। তুর্কি কর্মকর্তারা এ অভিযোগ করেছেন। তারা বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)-এর নিজস্ব সীমান্ত নিরাপদ করতে ব্যর্থ এবং জিহাদী হুমকি রোধে গোয়েন্দা তথ্য বিনিময় ও সহযোগিতা করার প্রতিশ্রুতি পালনে ব্যর্থ হয়েছে।

তুর্কি কর্মকর্তারা কিছু দলিলভিক্তিক প্রমাণের মাধ্যমে ইইউর ব্যর্থতা তুলে ধরেন। এতে দেখানো হয় যে, বিদেশী যোদ্ধারা ইন্টারপোলের ওয়াচলিস্টে তালিকাভুক্ত পাসপোর্টের সাহায্যে ইউরোপ ত্যাগ করছে, অস্ত্র ও গোলাবারুদ ভরা লাগেজ নিয়ে ইউরোপীয় বিমানবন্দর থেকে তুরস্ক পৌঁছাচ্ছে এবং তুরস্ক থেকে তাদের ফেরত পাঠানো হলে তাদের ছেড়ে দেয়া হচ্ছে অথচ তাদের বিদেশী যোদ্ধাদের নেটওয়ার্কের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল বলে সতর্ক করে দেয়া হয়।

এক উর্ধতন তুর্কি নিরাপত্তা কর্মকর্তা গার্ডিয়ানকে বলেন, আমাদের সন্দেহ তারা তাদের নিজেদের দেশে ওইসব লোককে চায় না বলেই ওইসব লোকের চলে আসা কামনা করে। ব্রাসেলসে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) দায় স্বীকার করা সর্বশেষ সন্ত্রাসী হামলার আগেই তুর্কি কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথোপকথন হয় কিন্তু ওইসব বোমা হামলা এবং গত নবেম্বরের প্যারিস হামলা আইএসপন্থী ইউরোপীয়দের হুমকি মোকাবিলায় ইউরোপের ব্যর্থতাকে স্পষ্ট করে তোলে। এসব ইউরোপীয় আইএসের পাশে থেকে যুদ্ধ করতে সিরিয়া বা ইরাক যেতে এবং এরপর স্বদেশে নৃশংসতা চালানোর জন্য ফিরে আসতে বদ্ধপরিকর। বুধবার তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপ এরদোগান বলেন, ব্রাসেলসের জাডেনটেম বিমানবন্দরে বোমা হামলাকারীদের অন্যতম ইব্রাহিম আল-বাকরাউয়িকে এক বিদেশী যোদ্ধা হিসেবে সিরিয়া যেতে চায় বলে সন্দেহ করা হয় এবং সে জন্য তাকে গত বছরের জুন মাসে গাজিয়ানতেপে আটক করা হয়েছিল।

তার গ্রেফতার সম্পর্কে বেলজীয় কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছিল। কিন্তু তারা তুরস্ককে জানায় যে, সন্ত্রাসী কর্মকা-ের সঙ্গে তার সমৃক্ত থাকার কোন প্রমাণ তাদের হাতে নেই এবং তারা তার প্রত্যার্পণ চায়নি। তাকে নেদারর‌্যান্ডসে ফেরত পাঠানো হয় এবং সেখান থেকে সে বেলজিয়ামে ফিরে যায়। আঙ্কারা ওমর ইসমাইল মোস্তাফা সম্পর্কেও ফরাসী কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করে দিয়েছিল। সন্ত্রাসী তৎপরতার দায়ে সন্দেহভাজন ফরাসী নাগরিকদের একটি চক্র নিয়ে তদন্ত চালানোর সময় মোস্তাফার নাম ওঠে এসেছিল। এ চক্রটি ২০১৪-এর শেষ ভাগ থেকে ২০১৫-এর গ্রীষ্মকাল পর্যন্ত সক্রিয় ছিল। এক উর্ধতন তুর্কি কর্মকর্তা এ কথা জানান। অন্যতম আইএস জঙ্গী মোস্তাফা গত বছর নবেম্বরে বাতাক্লাঁ কনসার্ট হলে হামলা চালিয়েছিল।

তুরস্কের নিজ সীমান্ত নিরাপদ করতে আরও অনেক কিছু করা উচিত বলে ইউরোপীয় কর্মকর্তারা ও মার্কিন নেতৃত্বাধীন কোয়ালিশন বার বার দাবি করে এসেছে। এরদোগানের সমালোচকরা বিদেশী যোদ্ধাদের অনুপ্রবেশ দেখেও না দেখার ভান করার দায়ে আঙ্কারাকে অভিযুক্ত করে থাকে। তুরস্ক সঙ্কটাপন্ন সিরীয় লৌহমানব বাশার আল-আসাদের পতন ঘটাতে চায় বলে তারা মন্তব্য করেন।

তারা মধ্যপ্রাচ্যের জিহাদীদের তুরস্ক থেকে সিরিয়া যেতে কোন বাধার সম্মুখীন না হওয়ার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। জিহাদীরা প্রতিষ্ঠিত সড়ক পথেই বিচরণ করে এবং রণাঙ্গণে যেতে তেমন সতর্কতা অবলম্বনের প্রয়োজন বোধ করে না। তারা এ বাস্তবতার প্রতিও দৃষ্টি আকর্ষণ করেন যে, সিরিয়ায় লড়াইরত হাজার হাজার বিদেশী যোদ্ধার বেশিরভাগই এখন তুরস্কের মধ্য দিয়ে সিরিয়ায় প্রবেশ করেছে। তুর্কি আকাশসীমায় সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য ঢুকে পড়া এক রুশ বিমানকে গুলি করে ভূপাতিত করার পর আঙ্কারাকে রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন সন্ত্রাসীদের সহযোগী বলে অভিযুক্ত করেন।

গার্ডিয়ানের সঙ্গে সাক্ষাতকারে তুর্কি কর্মকর্তারা সন্ত্রাসী হুমকি মোকাবেলায় যথেষ্ট ব্যবস্থা নেননি। এমন মূল্যায়ন চ্যালেঞ্চ করেন। তারা এমন কয়েকটি ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ দেন, যেখানে ইউরোপীয় সরকারগুলো লোকজনকে তুরস্ক আসার সুযোগ করে দিয়েছিল বলে তারা দেখতে পান। ২০১৪ সালের জুন মাসে তুর্কি নিরাপত্তা কর্মকর্তারা ইস্তাম্বুল বিমানবন্দরে নরওয়ের এক নাগরিককে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। সে জিহাদের জন্য সিরিয়া যেতে তুরস্কে এসেছে বলে খোলাখুলি তাদের জানায়। তারা তার লাগেজে তল্লাশি চালিয়ে দেখতে পান যে, সে একটি ছদ্ম পোশাক, একটি ফার্স্ট এইউ বাক্স, ছুরি, একটি গান ম্যাগাজিক এবং একটি একে-৪৭ রাইফেলের যন্ত্রাংশ ভরা স্যুটকেস দিয়ে ওসলো থেকে বেরিয়ে আসতে সমর্থ হয়েছে। এসব জিনিস ইউরোপের শুল্ক কর্তৃপক্ষের চোখে ফাঁকি দিতে পেরেছিল। Ñগার্ডিয়ান।