মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৫ আশ্বিন ১৪২৪, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

শোক ভুলে জেতার আশা মাশরাফির

প্রকাশিত : ২৫ মার্চ ২০১৬, ১১:২২ পি. এম.
শোক ভুলে জেতার আশা মাশরাফির

স্পোর্টস রিপোর্টার, কলকাতা থেকে ॥ ভারতের বিপক্ষে যে শেষ বলে গিয়ে হেরেছে বাংলাদেশ, সেই হারে যে বাংলাদেশ ক্রিকেটারদের মধ্যে শোকের ছায়াই ফেলেছে, তা বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাই ইঙ্গিত দিয়েছেন। শুধু ক্রিকেটারদের মাঝে নয়, দেশের সব ক্রিকেটপ্রেমীদের মধ্যেও সেই ছায়া উপলব্ধি কতে পারছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। সেটি কিছুটা দূর করার এখন একটিই উপায় আছে। আজ নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে কোনভাবে বাংলাদেশ জিতে গেলেই হয়। তাহলে ভারতের বিপক্ষে হারে সে হতাশা যুক্ত হয়েছে, তা হয়ত পুরোপুরি দূর হবে না। তবে কিছুটা হলেও পরিত্রাণ মিলবে। মাশরাফি তাই চান। শোক ভুলে গিয়ে এখন জেতার দিকেই মনোযোগী বাংলাদেশ অধিনায়ক। শুক্রবার ইডেন গার্ডেনে বাংলাদেশ দলের হয়ে আসা একমাত্র ক্রিকেটার মাশরাফি সংবাদ সম্মেলনে হাজির হয়ে ভারতের ম্যাচ, আজকের ম্যাচ এবং ভবিষ্যত সম্পর্কে যা বলেন, তার সারসংক্ষেপ তুলে ধরা হলো।

* ভারতের কাছে হারে হতাশার সঙ্গে সাপোর্টও মিলছে

মাশরাফি বিন মর্তুজা ॥ আমি এটাই বলতে চাই। সবাই হতাশ। সবাই যেভাবে আমাদের সাপোর্ট করেছেন ...। এমন না যে আমরা এর আগে হারিনি। অবশ্যই বাংলাদেশের দর্শকরা আমাদের পাশে থাকবে। এখনও আছে। শেষ ম্যাচ আসলে ...। আমরা সবাই বুঝতে পেরেছি, বাসার সবার সঙ্গে কথা হয়েছে। প্রত্যেকটা মানুষই ভেঙ্গে পড়েছে। চেষ্টা করব সামনের ম্যাচটায় আমাদের সেরা খেলাটা খেলার। যদি সুযোগ থাকে ম্যাচটা জেতার। আমি আশা করি সামনে (ভবিষ্যতে) আরও ভাল কিছু থাকবে।

* ভারতের কাছে হারের কোন কারণ মিলেছে

মাশরাফি ॥ সত্যি কথা বলতে শেষ ম্যাচটা হারার কোন ব্যাখ্যা আমার কাছে নেই। এক রানে হারলে যে কোন জায়গাতেই ত্রুটি বের করা যায়। সবমিলিয়ে যদি আপনি বলেন এই ধরনের পরিস্থিতি আগেও হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে না খেলার কিছুটা অনভিজ্ঞতা রয়েছে। হয়তো বা এই রকম পরিস্থিতিতে সব সময় আমরা অভ্যস্ত হতে পারি না। এটাও একটা কারণ হতে পারে। তারপরও আমারা সেকেন্ড দল হিসেবে প্রায় একই দল বিশ্বকাপে খেলেছে। আমার বিশ্বাস এখান থেকে অবশ্যই ঘুরে দাঁড়াতে পারবে দল। গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে যে ভুলগুলো করেছি, সেগুলো কতকুটু শুধরাতে পারছি। এখান থেকে আমরা শিক্ষা নিতে পারলে আমার বিশ্বাস সামনে এমন পরিস্থিতি আসলে আমরা ম্যাচ বের করে নিতে পারব।

* নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ভাবনা

মাশরাফি ॥ পাকিস্তানের সঙ্গে ম্যাচটা বাদ দিলে আমরা অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের সঙ্গে ভাল ক্রিকেট খেলেছি। প্রথম ম্যাচে আমরা পাকিস্তানের সঙ্গে এই মাঠে (ইডেন গার্ডেন) বাজে ভাবে হেরেছি। ভারতের সঙ্গে আমরা মনে করি, শেষ পর্যন্ত ম্যাচেই ছিলাম। এবং অস্ট্রেলিয়ার রান রেট প্রয়োজন ছিল, এজন্য নিজেদের অনেক পুশ করেছিল। তারপরও ওই অবস্থা থেকে আমরা খুব একটা খারাপ ক্রিকেট খেলিনি। শেষ দুইটা ম্যাচ আমরা ভাল খেলেছি। ওখানে অনেক ইতিবাচক জিনিস আমরা অর্জন করেছি। এসব যদি আমরা নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও প্রদর্শন করতে পারি। সেক্ষেত্রে ভাল করা সম্ভাবনা আছে আমাদের। নিউজিল্যান্ড দল হিসেবে এই কন্ডিশনে যেমনই হোক। তারা কন্ডিশনের সঙ্গে খুব ভালভাবে মানিয়ে নিয়েছে। তারা এই টুর্নামেন্টে খুব ভাল অবস্থায় আছে। আমাদের এই মুহূর্তে হারানোর কিছু নেই। আশা করি আমরাও ভাল ক্রিকেট খেলতে পারব।

* ইডেন গার্ডেনে না ম্যাচটা ব্যাঙ্গালুরুতে হলে ভাল হতো

মাশরাফি ॥ ব্যাঙ্গালুরুতে আরও কঠিন সময় গিয়েছে। যদিও ভাল খেলেছি। আমরা ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে দেখেছি অনেক টার্ন হয়েছে। টার্ন হলে ওদেরও কিন্তু ভাল স্পিনার আছে। টার্ন হলে আমাদেরও যে সুবিধা আছে, ওদেরও সেই সুবিধা হবে। আমি মনে করি যেটাই হোক ব্যাটিং উইকেট যদি হয় আমাদের ভাল ব্যাটিং করতে হবে। আর বোলিং উইকেট হলে আমাদের ভাল বোলিং করতে হবে। বোলারদেরও ক্যালকুলেটিভ বোলিং করতে হবে।

* অধিনায়ক হিসেবে ভারতের বিপক্ষে হার-

মাশরাফি ॥ সবাই শোকের মধ্যে আছে। সবাই কিন্তু আপসেট। কেউ কাউকে দোষ দিচ্ছে না। কিন্তু মেনেও নিতে পারছে না। এটা কঠিন মানিসকভাবে ফিরে আসাটা। তবে খেলোয়াড় হিসেবে ওখানে পড়ে থাকাটা ঠিক হবে না। ওটা নিয়ে চিন্তা করে আসলে কোন লাভ হবে না। আমি আগেও বলেছিলাম বাংলাদেশর ক্রিকেট ম্যাচ এখানেই থেমে থাকবে না। নিশ্চয়ই সামনে ভাল কিছু আছে। মূল কথা হচ্ছে আমরা ভুল করেছি এটা অস্বীকার করার কোন কারণ নেই। এই ভুল থেকে আমরা শিক্ষা নিতে পারি। আমার পরিষ্কার মেসেজ এটাই, এটা নিয়ে চিন্তা করে আরও কোন লাভ নেই। এটা আর ফিরে আসবে না। সামনে আমাদের আরও একটি ম্যাচ ওখানেই ফোকাস দিতে হবে।

* এখন টি২০তে দল কেমন

মাশরাফি ॥ টি২০তে যদি বাংলাদেশের অতীত রেকর্ড থেকে, বর্তমানে আমরা ভাল অবস্থানে আছি। টি২০ এমন একটি খেলা, যেখানে নির্দিষ্ট জায়গায় ওই খেলোয়াড়কে দরকার হয়। আমরা আস্তে আস্তে ওইদিকেই যাচ্ছি। যেটা একেবারেই ছিল না। কিন্তু কয়েকজন নতুন খেলোয়াড় আসাতে আমাদের দলটা ভাল হচ্ছে। টি২০ আমরা তুলনামূলক কম খেলি। জানুয়ারিতে জিম্বাবুইয়ের সিরিজ থেকে আমরা টানা টি২০ খেলা শুরু করেছি। এটা এমন একটি খেলা, কোন একজন নির্দিষ্ট খেলোয়াড় তৈরি করতে পারে না। করলে এটা নেতিবাচক হয়ে যাবে। একজন খেলোয়াড় যখন নিজেকে তৈরি করে তখন টেস্ট খেলোয়াড় হিসেবে করে। এরপর ওয়ানেড এবং টি২০ ফরমেটে চিন্তা করে। কিছুটা গ্যাপ ছিল, এখন নতুন কিছু খেলোয়াড় এসে আমাদের ওই গ্যাপটা পূরণ করেছে।

প্রকাশিত : ২৫ মার্চ ২০১৬, ১১:২২ পি. এম.

২৬/০৩/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: