২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ৮ ফাল্গুন ১৪২৪, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

প্রতিবাদ বিক্ষোভে উত্তাল কুমিল্লা, ফুঁসে উঠছে সারাদেশ

প্রকাশিত : ২৬ মার্চ ২০১৬
প্রতিবাদ বিক্ষোভে উত্তাল কুমিল্লা, ফুঁসে উঠছে সারাদেশ
  • ঘাতকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি, কঠোর কর্মসূচীর হুমকি

মীর শাহ আলম, কুমিল্লা থেকে ॥ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারী কলেজের ইতিহাস বিভাগের (সম্মান) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী-নাট্যকর্মী সোহাগী জাহান তনুর নির্মম হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতারসহ বিচার দাবিতে কুমিল্লা মহানগরে এখন প্রতিদিনই বিক্ষোভ, মানববন্ধন ও সভা-সমাবেশসহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হচ্ছে। ঘটনার ৫ দিন অতিবাহিত হলেও হত্যাকারীরা শনাক্ত বা গ্রেফতার না হওয়ায় প্রতিবাদকারী বিক্ষুব্ধ নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সাধারণ জনতার ক্ষোভ-বিক্ষোভ ক্রমেই বেড়ে চলেছে। শুক্রবার ছুটির দিনেও প্রতিবাদী জনতা নগরীর কান্দিরপাড় এলাকায় যানবাহন চলাচল বন্ধ করে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে। রাতে এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত আন্দোলনকারী জনতা শহরের কান্দিরপাড় পূবালী চত্বরে শত শত মোমবাতি জ্বালিয়ে প্রতিবাদ বিক্ষোভ অব্যাহত রাখে। বিক্ষোভকারীরা দুর্বৃত্তদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবিতে কঠোর কর্মসূচীর হুমকি দিয়েছে।

এদিকে, তনু হত্যার প্রতিবাদে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশ ক্রমেই ফুঁসে উঠছে। গত কয়েকদিনের মতো শুক্রবারও বগুড়া, নওগাঁ ও ভৈরবসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়া ঠাকুরগাঁওয়ে ধর্ষণকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মুখে কালো কাপড় বেঁধে ছাত্রলীগের মানববন্ধন ও মৌন মিছিল শহর প্রদক্ষিণ করে। পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তারা ৩ বার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন এবং আসামি শনাক্ত ও গ্রেফতারে সুনির্দিষ্ট তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন কুমিল্লার পুলিশ সুপার মোঃ শাহ আবিদ হোসেন।

রবিবার সন্ধ্যায় অলিপুর এলাকায় প্রাইভেট পড়িয়ে বাসায় ফিরবার পথে সোহাগী জাহান তনু (১৯) দুর্বৃত্তদের কবলে পড়ে। রাত ১১টার দিকে ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন কালা পানির ট্যাংকির কালভার্টের পাশের একটি জঙ্গলে একটি লাশ দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। স্বজনরা ঘটনাস্থলে গিয়ে সোহাগীর লাশ শনাক্ত করে। সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে কুমিল্লা সিএমএইচ থেকে পুলিশ তনুর লাশ গ্রহণ করে। এ ব্যাপারে নিহতের পিতা কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের অফিস সহায়ক ইয়ার হোসেন বাদী হয়ে সোমবার বিকেলে কোতোয়ালি মডেল থানায় অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। ঘটনার ৫ দিন পেরিয়ে গেলেও শুক্রবার পর্যন্ত হত্যাকা-ের রহস্য উদঘাটন, ঘাতকদের শনাক্ত কিংবা গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

এদিকে হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিচার দাবিতে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারী কলেজ, কুমিল্লা সরকারী মহিলা কলেজ, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, ভিক্টোরিয়া কলেজ থিয়েটার, কুমিল্লা সার্ভে ইনস্টিটিউটসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সামাজিক-সাংস্কৃতিক-স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনসহ রাজনৈতিক দলের হাজার হাজার ছাত্রছাত্রী, নেতাকর্মী প্রতিবাদমুখর হয়ে মাঠে নামে। এছাড়া রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলা সদরে বিভিন্ন কর্মসূচী পালন অব্যাহত আছে। অন্যদিকে ঘটনাস্থল কুমিল্লা হওয়ায় মহানগরীতে প্রতিদিনই বিক্ষোভ, মানববন্ধন, সভা-সমাবেশ অব্যাহত রয়েছে। এতে প্রতিবাদীদের ক্ষোভ-বিক্ষোভ ক্রমেই বেড়ে চলেছে কুমিল্লা মহানগরীতে। বিক্ষুব্ধরা তনুর হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানায়। অন্যথায় ভিক্টোরিয়া সরকারী কলেজ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা, রেললাইনসহ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ, ডিসি অফিস, থানা ঘেরাওসহ আমরণ অনশন কর্মসূচী পালনের হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে। শুক্রবার ছুটির দিনেও কুমিল্লা সার্ভে ইনস্টিটিউটের বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে এবং বেলা ১১টার দিকে নগরীর কান্দিরপাড়ে সমবেত হয়ে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে।

প্রকাশিত : ২৬ মার্চ ২০১৬

২৬/০৩/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: