২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

মাদারীপুরে জুট মিলের ডি-টাইপ বিল্ডিং


মুক্তিযুদ্ধের সময় এ আর হাওলাদার জুট মিলের অভ্যন্তরে তিন তলা ডি-টাইপ বিল্ডিং ছিল পাক হানাদার বাহিনীর টর্চার সেল। এখানেই ৯ মাসব্যাপী মুক্তিযোদ্ধাসহ মুক্তিকামী নারী-পুরুষকে নির্যাতনের পর হত্যা করে পশ্চিম পাশের মাঠে মাটিচাপা দেয়া হয়। বর্তমানে জেলার বৃহৎ গণকবর এবং টর্চার সেলখ্যাত ডি-টাইপ বিল্ডিংটি র‌্যাব-৮ ক্যাম্প হিসেবে ব্যবহার করছে। দীর্ঘ ৯ মাস এই টর্চার সেল ছিল পাক হানাদার বাহিনীর অন্ধকূপ। অজস্র্র মুক্তিকামী নারী-পুরুষের করুণ আর্তি এখানে চার দেয়ালের বাইরে বের হয়নি। কেউ শোনেনি নির্যাতনের ভয়াবহ আর্তনাদ। নরপশুর দল নারীদের সম্ভ্রম নিয়ে পৈশাচিক নৃত্যে মেতে ওঠে। দিনের পর দিন মাসের পর মাস ওদের বর্বরতার সীমা ছাড়িয়ে যায়। মাদারীপুর ও শরীয়তপুরের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে অসংখ্য যুবক-যুবতী ও মুক্তিপাগল মানুষকে ধরে এনে টর্চার সেলে আটক করে অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়। এই নির্যাতনের নেতৃত্ব দেয় মাদারীপুর ২নং পুলিশ ফাঁড়ির সে সময়ের হাবিলদার কুখ্যাত শুকুর আলী ও টিএসআই মহিউদ্দিন। এদের সঙ্গে সহযোগিতা করে শান্তি কমিটির হামিদ খন্দকার, গোলাপ খাঁ, হায়দার মোল্লা ও মোছাই মোল্লা। নির্যাতিতদের অনেককে হাওলাদার জুট মিলের জেটির ওপর দাঁড় করিয়ে গুলি করে আড়িয়াল খাঁ নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হয়। খোলা জায়গায় কাউকে হত্যা করে, কাউকে অর্ধমৃত অবস্থায় মাটিচাপা দেয়া হয়।

Ñসুবল বিশ্বাস, মাদারীপুর থেকে