মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৬ আশ্বিন ১৪২৪, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

মোজাম্বিকে পাওয়া অংশটি নিখোঁজ মালয়েশীয় বিমানের

প্রকাশিত : ২৫ মার্চ ২০১৬

অস্ট্রেলীয় বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন মোজাম্বিকে একটি বিমানের যে দুটি ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গেছে তা যে নিখোঁজ মালয়েশীয় বিমানেরই, এটা প্রায় নিশ্চিত। অস্ট্রেলিয়ার পরিবহনমন্ত্রী ড্যারেন চেস্টার জানিয়েছেন, ধ্বংসাবশেষগুলো পরীক্ষার পর বিশেষজ্ঞরা এগুলোকে নিখোঁজ মালয়েশীয় বিমানের বলেই মনে করছেন। সাগরের ঢেউ এই ধ্বংসাবশেষগুলো মোজাম্বিকে নিয়ে যায়। খবর বিবিসির।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে পরীক্ষা করে দেখা গেছে ধ্বংসাবশেষগুলো বোয়িং ৭৭৭ এয়ারক্রাফটের, যারা ওই নিখোঁজ বিমানের নির্মাতা। এক বিবৃতিতে ড্যারেন চেস্টার বলেন, বিশ্লেষণে এটি প্রায় নিশ্চিত যে, ওই ধ্বংসাবশেষগুলো এমএইচ ৩৭০ বিমানটিরই। চেস্টার আরও জানান, অনুসন্ধান দল তাদের কাজ চালিয়ে যাবে। সাগরের আরও ২৫ হাজার বর্গ কিলোমিটার এলাকায় অনুসন্ধান চালানো বাকি রয়েছে। তিনি বলেন, আমরা আমাদের কাজ সম্পন্ন করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ আর বিমানটি খুঁজে পাওয়ার ব্যাপারে আমরা আশাবাদী। ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে মোজাম্বিকে একটি ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পাওয়া যায়। এছাড়া, দক্ষিণ আফ্রিকার একটি পরিবার গত বছর ডিসেম্বরে আফ্রিকার পূর্বাঞ্চলীয় এলাকায় ছুটি কাটাতে গিয়ে বিমানের একটি ধ্বংসাবশেষ দেখতে পান। পরে খবর পেয়ে অস্ট্রেলীয় কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থল থেকে ধ্বংসাবশেষটি উদ্ধার করে। তখন অস্ট্রেলীয় কর্তৃপক্ষ বলেছিল, ধ্বংসাবশেষটি হয়তো বোয়িং ৭৭৭-এর। কারণ ওই অঞ্চলে এমএইচ৩৭০ ছাড়া আর কোনও বোয়িং ৭৭৭ বিমান নিখোঁজ হয়নি। দুই বছর আগে কুয়ালালামপুর থেকে বেজিং যাবার পথে নিখোঁজ হয়েছিল মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের বিমান এমএইচ৩৭০। আজও হদিস মেলেনি সেই বিমানটির।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের বোমা নিষ্ক্রিয়

জার্মানির মিউনিখ শহরের শোয়াবিংয়ের এক কন্সট্রাকশন এলাকায় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ২৫০ কেজি ওজনের একটি অবিস্ফোরিত বোমা পাওয়া যায়। বোমাটি নিষ্ক্রিয় করতে বুধবার ওই এলাকার আটহাজার অধিবাসীর সবাইকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়। এর ফলে আশপাশের এলাকায় যান চলাচলে বিঘœ ঘটে। বোমাটি সাফল্যের সঙ্গে নিষ্ক্রিয় করা হয় বলে মিউনিখের পুলিশ ও দমকল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। -হাফিংটন পোস্ট

ট্যাঙ্গো নাচে ওবামা

আর্জেন্টিনায় যাবেন আর ট্যাঙ্গো নাচবেন না তা কি হয়? দেশটির বিখ্যাত নৃত্যশিল্পী মোরা গোদয়ের ডাকে সাড়া দিয়ে নাচলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। বাইসেন্টিনিয়াল কালচারাল সেন্টারে ভোজসভায় ঝলমলে সোনালি পোশাকে ঐতিহ্যবাহী ট্যাঙ্গো নাচ পরিবেশন করেন মোরা। একপর্যায়ে তার সঙ্গে ফ্লোরে পা রাখেন ওবামা। তাল মিলিয়ে পা ফেলে ছন্দে থাকার চেষ্টা করে গেছেন তিনি। ফার্স্টলেডি মিশেলও বাদ যাননি। একজন পুরুষ ট্যাঙ্গো শিল্পী তাকে সঙ্গ দিয়েছেন ওই সময়টায়। -ডেইলি মেইল

প্রকাশিত : ২৫ মার্চ ২০১৬

২৫/০৩/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: