১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ভারত থেকে শূন্য প্রিমিয়ামে ডিজেল চায় বাংলাদেশ


অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ভারত থেকে পাইপলাইনে তেল আমদানির প্রিমিয়াম নির্ধারণের পরই এই প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। বিদ্যুত ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদের বরাত দিয়ে দেশের একটি বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল এ খবর জানিয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে, গত বছরের শুরুর দিকে পাইপলাইনে জ্বালানি তেল আমদানির জন্য ভারতের সঙ্গে চুক্তি হয়। এরপর প্রিমিয়াম নির্ধারণে কয়েক দফায় বৈঠকের পরও কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ হয়নি। ফলে জ্বালানি তেল আমদানির প্রক্রিয়া বার বার পিছিয়ে যাচ্ছে।

চুক্তি অনুযায়ী, শিলিগুড়ি থেকে দিনাজপুর পর্যন্ত ১৩০ কিলোমিটার পাইপলাইন বসিয়ে ভারতের নুমালিগড় রিফাইনারির তেল আমদানি করা হবে। এর মধ্যে বাংলাদেশ অংশে ১২৫ কিলোমিটার এবং ভারতের অংশে ৫ কিলোমিটার পাইপ লাইন স্থাপন করতে হবে। নিজ নিজ খরচে নিজেদের অংশে পাইপলাইন বসাবে বাংলাদেশ ও ভারত।

প্রিমিয়াম নির্ধারণের ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দামের সঙ্গে পরিবহন, ইন্স্যুরেন্স ব্যয়সহ আনুষঙ্গিক খরচ যোগ করতে হয়। কিন্তু আন্তর্জাতিক বাজারের জ্বালানি তেলের দামের ওঠানামার কারণে এখন পর্যন্ত প্রিমিয়াম নির্ধারণ করতে পারেনি ভারত। এক্ষেত্রে ভারত প্রতি ব্যারেল তেলের প্রিমিয়াম ২১ ডলার ৪০ সেন্ট করে চাইলেও শূন্য প্রিমিয়ামে তেল আমদানি করতে আগ্রহী বাংলাদেশ। নসরুল হামিদ বলেন, ভারত থেকে তেল আমদানির জন্য ১২৫ কিলোমিটার পাইপলাইন স্থাপনে আমাদের ব্যয় হবে ৩৭৫ কোটি টাকা। আবার প্রিমিয়াম দিতে হলে তেলের মূল্য অনেক বেশি পড়বে। সেক্ষেত্রে শূন্য প্রিমিয়ামে আন্তর্জাতিক বাজারের দরেই ভারত থেকে তেল আমদানির চেষ্টা চালাচ্ছি। ভারত থেকে পাইপলাইনের মাধ্যমে জ্বালানি তেল আমদানির বিষয়ে সব ধরনের জটিলতা আগামী কয়েক মাসের মধ্যে নিরসন হবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুত ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী।