২৪ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৪ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

ম্যানচেস্টার ডার্বিতে ম্যানইউর জয়


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ অভিষেকেই নিজের জাত চিনিয়েছিলেন মার্কাস রাশফোর্ড। প্রমাণ আরও রাখলেন উঠতি এই তরুণ। রবিবার রাতে তার করা একমাত্র গোলেই ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগে ম্যানচেস্টার ডার্বিতে ম্যানচেস্টার সিটিকে তাদেরই মাঠে ১-০ গোলে হারিয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

সহজ জয় পেয়েছে পয়েন্ট তালিকার দুই নম্বরে থাকা টটেনহ্যাম হটস্পার। নিজেদের মাঠে স্পার্সরা ৩-০ গোলে পরাজিত করে বোর্নমাউথকে। এ্যাওয়ে ম্যাচে হার মেনেছে লিভারপুল। সাউদাম্পটনের কাছে জার্গেন ক্লপের দলের হার ৩-২ গোলে। বর্তমানে ৩১ ম্যাচ শেষে ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে লিচেস্টার সিটি। ৬১ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় টটেনহ্যাম। তিন নম্বরে থাকা আর্সেনালের পয়েন্ট ৫৫। ৫১ পয়েন্ট নিয়ে চারে ম্যানসিটি। ৫০ পয়েন্ট নিয়ে ছয় নম্বরে ম্যানইউ।

আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে শুরু থেকেই জমে ওঠে মর্যাদার ম্যানচেস্টার ডার্বি। প্রতিপক্ষের মাঠে ম্যাচের ১৬ মিনিটে রাশফোর্ডের গোলে এগিয়ে যায় অতিথি ম্যানইউ। স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড জুয়ান মাতার বাড়ানো বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে সিটির ডিফেন্ডার মার্টিন ডেমিচেলিসকে কাটিয়ে দারুণ শটে লক্ষ্যভেদ করেন ইংলিশ ফরোয়ার্ড। বিরতির আগে কোন দলই আর গোল পায়নি। বিরতির পর ৬৬ মিনিটে স্বাগতিক সিটিকে গোলবঞ্চিত করে পোস্ট। ইয়াইয়া তোরের বাড়ানো বলে কাছ থেকে নেয়া সার্জিও এ্যাগুয়েরোর হেড পোস্টে লেগে ফিরে আসে। কিছুক্ষণ পর জেসুস নাভাসের শট পোস্টের ওপর দিয়ে গেলে স্বাগতিকদের হতাশা আরও বাড়ে।

সমতায় ফেরাতে মরিয়া সিটি দ্বিতীয়ার্ধে যোগ করা সময়েও সুযোগ পায়। কিন্তু ডেভিড সিলভার সৃষ্টি করে দেয়া সুযোগ আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড এ্যাগুয়েরো নষ্ট করলে নিজেদের মাঠে হার নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় ম্যানুয়েল পেলেগ্রিনির দলকে। চলতি লীগে সিটিকে সপ্তম হারের তেতো স্বাদ দেয়া ইউনাইটেড চ্যাম্পিয়ন্স লীগের পরের মৌসুমে খেলার সম্ভাবনা টিকিয়ে রেখেছে। ম্যাচ শেষে ১৮ বছর বয়সী রাশফোর্ডে প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন ম্যানইউ কোচ লুইস ভ্যান গাল। তিনি বলেন, সে একজন জাত স্ট্রাইকার। পজিশন জ্ঞান দারুণ। যে কোন পরিস্থিতিতে মানিয়ে নিতে সক্ষম। তাকে আমি অনেক পছন্দ করি।

সিটি কোচ পেলেগ্রিনি ডেমিচেলিসের ব্যর্থতায় হতাশা ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, আমার ধারণা সে নার্ভাস ছিল। তবে তার দিনটি ভাল যায়নি। তবে আমরা অনেকগুলো সুযোগ নষ্ট করেছি। তা না হলে ফলাফল অন্যরকম হতে পারতো। টানা তিন ম্যাচ জয়ের পর হারের স্বাদ পেয়েছে লিভারপুল। সাউদাম্পটনের মাঠে দুই গোলে এগিয়ে গিয়েও শেষ পর্যন্ত ৩-২ ব্যবধানে হেরে গেছে দ্য রেডসরা। প্রতিপক্ষের মাঠে অতিথি লিভারপুলের শুরুটা হয় দারুণ। ২২ মিনিটের মধ্যেই দুই গোলে এগিয়ে যায় তারা। ব্রাজিলিয়ান তারকা ফিলিফ কাউটিনহোর গোলে ১৭ মিনিটে এগিয়ে যায় লিভারপুল।

বাঁ প্রান্ত থেকে বল পেয়ে আড়াআড়ি দৌড়ে প্রায় ২১ গজ দূর থেকে ডান পায়ের কোনাকুনি শটে লক্ষ্যভেদ করেন কাউটিনহো। পাঁচ মিনিট পর বক্সের মধ্য থেকে দরুণ শটে দ্বিতীয় গোল করেন ড্যানিয়েল স্টারিজ। ৩৩ মিনিটে লিভারপুলের মিডফিল্ডার জো এ্যালেন বল জালে জড়ালেও অফসাইডের কারণে সেটা বাতিল হয়ে যায়।

বিরতির পর শুরুতেই অতিথি ডিফেন্ডার মার্টিন স্কার্টেল নিজেদের বক্সে প্রতিপক্ষের ফরোয়ার্ড গ্রাজিয়ানো পেল্লেকে ফাউল করলে পেনাল্টি পায় সাউদাম্পটন। কিন্তু বদলি নামা সাডিও মানের স্পট কিক দারুণ নৈপুণ্যে রুখে দেন লিভারপুল গোলরক্ষক সিমোন মিগনোলেট। পেনাল্টি থেকে গোল করতে না পারার হতাশা কাটিয়ে ৬৪ মিনিটে সাউদাম্পটনকে ম্যাচে ফেরান মানে। বাঁ পায়ের কোনাকুনি শটে ব্যবধান কমান সেনেগালের এই মিডফিল্ডার। ৮৩তম মিনিটে দারুণ এক গোলে স্বাগতিকদের সমতায় ফেরান পেল্লে। বক্সের বাইরে থেকে বাঁকানো শটে বল জালে জড়ান ইতালির এই স্ট্রাইকার। তিন মিনিট পরই নিজের দ্বিতীয় গোলে লিভারপুলকে স্তব্ধ করে দেন মানে। বক্সে ঢোকার মুখে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বাঁ পায়ের জোরালো শটে সাউদাম্পটনের হয়ে জয়সূচক গোলটি করেন তিনি।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: