১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ধূমপান ছাড়ুন, সুন্দরে বাঁচুন


ইদানীং ভার্সিটি পড়ুয়া মামুনের আচরণ অস্বাভাবিক হয়ে যাচ্ছে। তার মেজাজ মর্জি সবসময়েই খিটখিটে থাকে। কথায় কথায় বাবা-মা, বন্ধু-বান্ধবদের সঙ্গে রাগ ঝাড়ে। মামুনের এ আচরণে বিস্মিত বাবা-মা। তাদের ছেলে তো এমনটি ছিল না? আগে বাবাকে যমের মতো ভয় পেত, কিন্তু সেই বাবাকে পাত্তাই দেয় না। বাবা-মা চিন্তায় দিশেহারা হয়ে পড়ে। আরও কয়েক দিন পর শার্ট ধুতে গিয়ে মা তার পকেটে সিগারেট আবিষ্কার করে এবং সেই সঙ্গে ছেলের এই অস্বাভাবিক আচরণের জন্য যে সিগারেটই দায়ী তা আর তাদের বুঝতে অসুবিধা হয়নি। শুধু মামুনই নয়, বর্তমান বিশ্বে মামুনের মতো দেড়শ’ কোটি ব্যক্তি ধূমপান করে। মূলত ধূমপায়ীদের ৮০%ই বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের। অনেকে সেই কৈশোরকাল থেকে একটানা বৃদ্ধ বয়স পর্যন্তও সিগারেট টানছেন। তাদেরকে সিগারেট ছাড়ার পরামর্শ দিলে বেশিরভাগ সময়েই যে উত্তরটি পাওয়া যায় তা হলো সিগারেট খেতে খেতেই তো বুড়ো হয়ে গেলাম, যা ক্ষতি হবার তা তো হয়েই গেছে এখন আবার ছেড়ে লাভ কি? তাদের এই ধারণা সম্পূর্ণ অমূলক ও ভিত্তিহীন। কারণ জার্মানির ক্যান্সার রিসার্চ সেন্টারের প্রধান হগরমান ব্রেনার জানান ধূমপান ছেড়ে দেয়ার সময় ধূমপায়ীর বয়স যাই হোক না কেন তিনি ক্রমান্বয়ে অধূমপায়ীদের কাতারে চলে যান। রিসার্চ সেন্টারের গবেষকরা ৫০-৭৪ বছর বয়সী ৯ হাজার বৃদ্ধের ওপর গবেষণা চালান। তাদের মতে, ৩৫-৪০ বছর বয়সের মধ্যে ধূমপান ছাড়াল ৯ বছর, ৪৫-৫৪ বছরের মধ্যে ধূমপান ছাড়ালে ৬ বছর এবং ৫৫-৬৪ বছরের মধ্যে ধূমপান ছাড়লে গড়পড়তা ৪ বছরের মতো আয়ু বাড়তে পারে। আর তাই যত আগে ধূমপান ছাড়বেন তত বেশি উপকৃত হবেন এবং ক্যান্সার যক্ষ্মা, মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণ, উচ্চ রক্তচাপের মতো মরণব্যাধি থেকে রক্ষা পাবেন। সুস্থভাবে পরিবারের সঙ্গে স্বপ্নময় দিন কাটাতে পারবেন।

ধূমপানের ভয়াবহরূপ

(র) প্রতি ৮ সেকেন্ডে বিশ্বে একজন ধূমপায়ীর মৃত্যু হয়।

(রর) সারাবিশ্বে প্রতিদিন আশি হাজার ১ লাখ শিশু সিগারেটে নেশায় ঝোঁকে।

(ররর) সিগারেটের ধোঁয়ায় সায়ানাইড নামক একটি বিষাক্ত বায়ো প্রোডাক্ট রয়েছেÑযা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের গণহত্যায় রাসায়নিক প্রতিনিধি হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

(রা) শুধুমাত্র ২-৩টি সিগারেটেই যে পরিমাণ নিকোটিন আছে তা যদি কোন সুস্থ ব্যক্তিকে সিরিজে ভরে পুশ করা হয় ব্যক্তিটি সঙ্গে সঙ্গে মৃত্যুবরণ করবে।

(া) সারাবিশ্বে প্রতিদিনই গড়ে ১০ বিলিয়ন সিগারেট বিক্রি হয়।

(ার) শুধু চীনেই রয়েছে ৩০০ মিলিয়ন ধূমপায়ী, যারা বছরে ১.৭ মিলিয়ন সিগারেট খায় মানে প্রতি মিনিটে ৩ মিলিয়ন।

(ারর) ধূমপায়ীদের সংখ্যাগত দিক দিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বে ১৬তম স্থানে রয়েছে।

সিগারেটকে গুডবাই

যারা দীর্ঘদিন ধরে ধূমপান ছাড়ব ছাড়ব করছেন, কিন্তু নানা কারণেই ছাড়া হচ্ছে না তাদের জন্য রয়েছে একটি প্রাচীনতম ইয়োগা। ধূমপানকে ভুলে থাকার এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ টেকনিক। যখনই সিগারেট খাওয়ার কথা মনে হবে, তখনই এই পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেনÑ গভীরভাবে শ্বাস নিয়ে ফুসফুসটিকে যতটা সম্ভব বায়ু দ্বারা পূর্ণ করুন তারপর ঠোঁটটি হালকা চেপে আস্তে আস্তে বায়ু ছাড়ুন। নিশ্বাস ছাড়ার সময় চোখ দুটি বন্ধ রেখে থুতনিটা ক্রমশ বুকের দিকে নামিয়ে আনুন। এভাবেই বার কয়েক প্র্যাকটিস করতে করতে দৃঢ়সঙ্কল্পের সঙ্গে সিগারেট ছাড়তে ইচ্ছা শক্তিকে প্রবল করুন। প্রতিদিনই এই ব্যয়াম করলে আপনি একসময় দেখবেন সিগারেটের কথাই ভুলে যাবেন। এই পদ্ধতি ছাড়াও সিগারেট ছাড়তে চাইলে তাদের জন্য টিপসÑ

(র) অতিরিক্ত পানি পান করুন, এতে তরলাকারে শরীরের নিকোটিন বেরিয়ে পড়বে।

(রর) চা, চিনি, কফি যতটা সম্ভব বর্জন করুন।

(ররর) অলসভাবে বসে না থেকে সব সময় কাজের মধ্যে ডুবে থাকার চেষ্টা করুন। প্রয়োজনে গান শুনতে পারেন কিংবা টেলিভিশনে স্বাস্থ্য বিষয়ক প্রোগ্রাম দেখতে পারেন।

(রা) ধূমপানের ক্ষতিকর দিকগুলো নিয়ে লম্বা একটি লিস্ট তৈরি করে শোবার ঘরে টানিয়ে রাখুন। ধূমপানের ক্ষতিকর দিকগুলো নিয়ে বাসায় নিয়মিত আলোচনা করুন।

(া) পকেটে সব সময় চকলেট, চুইংগাম, দারুচিনি জাতীয় কিছু রাখতে পারেন, যাতে সিগারেটের কথা মনে হলেই মুখে পুরতে পারেন। এতে আপনার মানসিক চাপ অনেকাংশেই কমে যাবে।

(ার) আপনার এলাকায় ধূমপানবিরোধী সভা-সমাবেশ, র‌্যালি, সিম্পোজিয়ামে অংশ নিন। এতে আত্মবিশ্বাস পাবেন।

(ারর) প্রত্যেক দিন গড়ে আপনার যে কয়টি সিগারেট লাগে তার দাম একটি মাটির ব্যাংকে রাখুন। মাস শেষে দেখুন কত টাকা আপনার ব্যাংকে জমা হয়েছে। এই টাকায় নিজের জন্য নিজেই একটি গিফট কিনুন।

ছবি : তুহিন

মডেল : আহাদ ডলার