১৩ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

মুস্তাফিজকে নিয়ে স্বপ্ন দেখছে বাংলাদেশ ॥ প্রতিপক্ষ আজ অস্ট্রেলিয়া


স্পোর্টস রিপোর্টার, ব্যাঙ্গালুরু থেকে ॥ তাসকিন আহমেদ নেই। পেস আক্রমণ এমনিতেই দুর্বল হয়ে পড়েছে বাংলাদেশের। এবার মুস্তাফিজুর রহমানকে যে করেই হোক খেলতে হবে। না হলে দলতো এমনিতেই বিপাকে আছে। আরও বিপদে পড়ে যাবে। মুস্তাফিজও আজ খেলবেন এবং রবিবার অনুশীলন না করা মুস্তাফিজকে নিয়ে জয়ের জন্যই নামবে বাংলাদেশও। ব্যাঙ্গালুরুর চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ দল আজ অস্ট্রেলিয়া। যে দলটি এরই মধ্যে একটি ম্যাচে হেরে গেছে। বাংলাদেশও একটি ম্যাচে হেরেছে। প্রথম ম্যাচে দুই হারা দলের বিপক্ষে আজ লড়াই হবে।

টুর্নামেন্টে টিকে থাকতে হলে ম্যাচটিতে জিততেই হবে। না হলে বিদায় ঘণ্টা একরকম বেজেই যাবে। গ্রুপে এরই মধ্যে পাকিস্তান একটি ও নিউজিল্যান্ড দুটি জয় পেয়েছে। ভারত জিতেছে একটি। আজ বাংলাদেশ জিততে না পারলে টানা দুই ম্যাচ হারবে। তখন বাকি থাকবে আরও দুটি ম্যাচ। যে দুই ম্যাচে বাংলাদেশ জিতে যাবে, সেই নিশ্চয়তা নেই। তাই আজ হারলেই বলতে গেলে বিদায় ঘণ্টা বেজে যাবে। অস্ট্রেলিয়ার বেলাতেও একইরকম অবস্থা দাঁড়াচ্ছে। তাদেরও জয়ের বিকল্প নেই। টিকে থাকতে হলে জিততেই হবে।

এমন ম্যাচের আগে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা বলেছেন, ‘আমরা অবশ্যই মাঠে নামবো জয়ের জন্য। সেটা যেই খেলুক না কেন। আমাদের প্রথম কাজই হবে জয়ের জন্য মাঠে নামা।’

পাকিস্তানের বিপক্ষে যেভাবে খেলেছে বাংলাদেশ, সেই খেলা দিয়ে জয় সম্ভব নয়। আবার তাসকিন ও আরাফাত সানির বোলিংকে আইসিসি অবৈধ ঘোষণা করায় দলের ক্রিকেটারদের মানসিকতাতেও আঘাত এসেছে। এমন সময়ে দলকে কঠোরও হতে হবে। না হলে জয় কোনভাবেই সম্ভব নয়। সবার ঐক্যবদ্ধ নৈপুণ্য লাগবে। মাশরাফি যেন তাই বোঝাতে চাইলেন, ‘আমি সবার দিকেই তাকিয়ে আছি। দলের সবার ছোট ছোট কন্ট্রিবিউশনে বিশেষ করে টি২০ ম্যাচে জেতা যায়। আমি প্রত্যেকটা খেলোয়াড়ের দিকে তাকিয়ে আছি।’

তবে মাশরাফিও বোঝেন ঘরের ছেলের যদি সমস্যা হয়, সেই ঘরের অবস্থা ঠিক থাকে না। তাই বললেন, ‘ঘরের দুইজন ছেলের যদি সমস্যা হয়, আপনি যে কোন কাজই ভালভাবে করতে পারবেন না। সেই উদ্যমটা আর পাবেন না। আমাদের কাছে জিনিসটা এখন ওই রকম। আমাদের মানসিক অবস্থা এখন ওইরকম নেই। সবাই দেখলেই বুঝতে পারবেন। কিন্তু আমরা অবশ্যই মাঠে নামবো, যতটুকু স্পিড নিয়ে এর আগের ম্যাচে আমরা নেমেছিলাম।’

মাশরাফি তিন ফরমেট মিলিয়ে ৫০তম ম্যাচে নেতৃত্ব দেবেন। এরআগে তাসকিন ও সানির ঘটনা পুরোদলকে টালমাটাল করে দিয়েছে। এরপরও মাশরাফির আশা, ‘আমার নিজস্ব জীবন দিয়ে অনেক কিছু দেখেছি। আমার জন্য হয়তো এটা মেনে নেয়া অনেক সহজ। এখন কথা হচ্ছে বাংলাদেশের অন্যতম প্রতিশ্রুতিশীল খেলোয়াড়কে নিয়ে। যে কিনা আগামী ১০ বছর বাংলাদেশ দশকে সার্ভিস দেবে। এখানে যা বলা উচিত আমি সেটাই বলেছি এবং আমরা অবশ্যই চেষ্টা করবো, আগামীকালের (আজকের) ম্যাচে আমরা পুরো টিম এক হয়েই মাঠে নামবো। চেষ্টা করবো সেরা ক্রিকেট খেলার।’

কঠিন সময়ের মধ্যেই পড়ে গেছে বাংলাদেশ দল। একাদশ গঠন করতেই এখন হিমশিম খেতে হচ্ছে। আরাফাত সানি যদিও রবিবার দলের সঙ্গে অনুশীলনে ছিলেন, কিন্তু বিশ্বকাপে আর খেলতে পারবেন না। সাকলায়েন সজিব সকালে ব্যাঙ্গালুরুতে এসেই অনুশীলন করতে নেমে গেছেন। তাসকিনের পরিবর্তে এসেছেন শুভাগত হোম। সেই শনিবার রাত থেকে কলকাতা এয়ারপোর্ট থেকে না ঘুমিয়ে ফ্লাইটে করে ব্যাঙ্গালুরু এসেই অনুশীলনে নেমে গেছেন সাকলায়েন ও শুভাগত। ক্লান্ত এ দুই ক্রিকেটারকে এমন অবস্থায় কি আর খেলানো যাবে? দল গঠনেও তাই কঠিন সময়ের মধ্যেই পড়ে গেছে বাংলাদেশ। মাশরাফি বললেন, ‘কঠিন সময় ওরা থাকলেও যে আসতো না এটা বলা যাবে না। বিষয়টা হচ্ছে, এমন একটা সময় আমরা ধাক্কা খেলাম। আমাদের জন্য এটা ম্যানেজ করা কঠিন হয়ে পড়েছে। দুইজন খেলোয়াড়কে আমরা দুইদিন আগে পেলেও ম্যানেজ করে ফেলতে পারতাম। এমন একটা সময়ে নিউজটা এসেছে। তারা সকালে ফ্লাইটে নেমে এখন অনুশীলন করতে এসেছে। সবকিছু মিলিয়ে এটা ম্যানেজ করা কঠিন হয়ে গেছে। এর থেকে কঠিন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের মানুষ আমাদের পাশে আছে এবং থাকবে জানি। আমরাও চেষ্টা করবো ফিডব্যাকটা যেন আমাদের থেকেও সেইরকম হয়। তবে কাজটা অবশ্যই কঠিন।’

মুস্তাফিজ আজ খেলবেন, তা নিশ্চিত হলেও রবিবার অনুশীলন করতে আসেননি। তাসকিন তো বিদায়ই হয়ে গেছে। এরপরও মুস্তাফিজ আজ খেলবেন। একদিন তাই বিশ্রাম নিয়ে নিলেন। মুস্তাফিজকে নিয়ে বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেছেন, ‘আমাদের সঙ্গে এখন কি হচ্ছে এগুলো বাদ দিয়ে আমাদের প্রত্যেকটা বল বাই বলের দিকে মনোযোগ দিতে হবে। আমার বিশ্বাস ছেলেরা খেলতে নামবে দেশের জন্যেই।’

তাসকিন ও আরাফাত সানিকে যে নিষিদ্ধ করা হয়েছে, এর প্রতিবাদও জানাতে চান মাশরাফি। তবে সেটি খেলার মাধ্যমেই। মাশরাফি সেই কথা জানিয়েও দিলেন, ‘সবচেয়ে ভাল হয় মাঠে প্রতিবাদটা জানাতে পারলে। আমি কোন সময় বাড়তি কথা বলতে পছন্দ করি না, সামনে কি হবে না হবে। আমরা অবশ্যই চাই সামনের ম্যাচটায় আমাদের ভাল ক্রিকেট খেলা হোক। কিন্তু একটা প্রশ্ন থেকেই যায়, আমরা কি অনুভব করছি নির্দিষ্ট খেলোয়াড়কে নিয়ে এবং আমরা পুরোপুরি সন্তুষ্ট কিনা এই বিষয়ে। তারপরে আমাদের একটা সিস্টেম আছে, ওই সিস্টেমের বাইরেও আমরা যেতে পারি না। আমাদের মন এক জায়গায়, আমাদের করতে হবে অন্য কিছু! সানির বিষয়টা আমরা গ্রহণ করেছি। কিন্তু মনে তাসকিনের বিষয়টা চেপে রেখে কাজ করা খুবই কঠিন কাজ।’ সেই কঠিন কাজটিই করতে হবে মাশরাফিদের। না হলেই যে বিদায় ঘটবে। তাই মুস্তাফিজকে নিয়েই আজ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জয়ের জন্য নামবে বাংলাদেশ।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: