মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৬ আশ্বিন ১৪২৪, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

দুই ব্রিটিশ কোম্পানির কোনটাই চূড়ান্ত হয়নি

প্রকাশিত : ২০ মার্চ ২০১৬
  • শাহজালালে নিরাপত্তা

আজাদ সুলায়মান ॥ শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তায় দুই ব্রিটিশ কোম্পানিকে প্রাথমিকভাবে বাছাই করা হলেও কোনটাই চূড়ান্ত করা সম্ভব হয়নি। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী শনিবার একটি কোম্পানিকে চূড়ান্তভাবে বাছাই করার কথা ছিল। এখন দুটো কোম্পানির দক্ষতা, আর্থিক দরপত্র ও কারিগরি দিক মূল্যায়নের কাজ চলছে। শনিবার সিভিল এ্যাভিয়েশন সদর দফতরে এ নিয়ে বিমান মন্ত্রীর উপস্থিতিতে উচ্চ পর্যায়ের এক বৈঠকে এ দুটো কোম্পানির প্রস্তাব পর্যালোচনা করা হয়। আজ রবিবার সরকারের ক্রয় সংক্রান্ত ও অর্থ সংক্রান্ত কমিটির সভায় অনুমোদন দেয়ার পর মঙ্গলবার চুক্তি স্বাক্ষর করার সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী বুধবার থেকে অনুমোদিত কোম্পানি আনুষ্ঠানিকভাবে শাহজালালের দায়িত্ব পালন শুরু করবে।

এদিকে সিভিল এ্যাভিয়েশন সদর দফতরে শনিবারের বৈঠকে ব্রিটিশ কোম্পানিগুলোর দেয়া প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা হয়। এগুলো হচ্ছে রেডলাইন, রেসট্রাটা ও ওয়েস্ট মিনিস্টার। এদের মধ্যে ওয়েস্ট মিনিস্টারের রয়েছে নিজস্ব মেশিনারিজ, ইকুইপমেন্ট ও টেকনোলজিসহ সব ধরনের সুবিধাদি। তাদের রয়েছে হিথরো বিমানবন্দরসহ দুনিয়াব্যাপী ৮০টি বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ও অবকাঠামোগত কাজ করার অভিজ্ঞতা। হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তার জন্য বর্তমানে ওয়েস্ট মিনিস্টারের মতো প্রতিষ্ঠানকে দায়িত্ব দেয়াটা অধিকতর নির্ভরযোগ্য বলে বিবেচিত হলেও রহস্যজনক কারণে তা আমলে নেয়া হচ্ছে না। জানা গেছে, এটির আর্থিক প্রস্তাবও অন্য দুটোর চেয়ে অনেক কম। ওয়েস্ট মিনিস্টার শাহজালালের জন্য ছয় মাসের ব্যয় বাবদ অফার দিয়েছে দেড় মিলিয়ন ডলার বা ১২ কোটি টাকা। অন্যদিকে রেডলাইনের নেই কোন নিজস্ব মেশিনারিজ ও ইকুইপমেন্ট সুবিধা। এটির ব্যয় বাবদ অফার দেয়া হয়েছে ছয়মাসের জন্য প্রায় ৫৮ কোটি টাকা। আর দুই বছরের জন্য ওয়েস্ট মিনিস্টার আলাদা কোন টাকা নেবে না। প্রথম ছয়মাসের আর্থিক ব্যয়ের পর ওয়েস্ট মিনিস্টার নিজস্ব মেশিনারিজ দিয়ে বিনাব্যয়ে প্রয়োজনীয় সব ধরনের প্রশিক্ষণ দিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। বিপরীতে রেডলাইন দিয়েছে ৭৫ কোটি টাকা। অপর প্রতিষ্ঠান রাষ্ট্রাটার ব্যয়ও ওয়েস্ট মিনিস্টারের তুলনায় বেশি। এটির নেই টেকনোলজি সুবিধা।

এ বিষয়ে একটি সূত্র জানায়, শাহজালালের নিরাপত্তায় প্রথমে চারটি ব্রিটিশ কোম্পানি সহায়তা দিতে আগ্রহ প্রকাশ করে। এর মধ্যে জি-ফোর সবার আগেই অযোগ্য বলে বিবেচিত হয়। বাকি তিনটে রেড লাইন, রেসট্রাটা ও ওয়েস্ট মিনিস্টারের অফার পর্যালোচনার পর সিভিল এ্যাভিয়েশন দুটোকে প্রাথমিকভাবে বাছাই করে। আজ (রবিবার) ক্রয় সংক্রান্ত ও অর্থ সংক্রান্ত কমিটি সভায় এ দুটো থেকে একটাকে অনুমোদন দেয়া হবে।

এ বিষয়ে বিমানমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, এটা আজকের বৈঠকে ঠিক করা হবে। একটিকে দেয়া হতে পারে আবার দুটোকেও সম্মিলিতভাবে দেয়া হতে পারে।

জানা যায়, আজকের বৈঠকে চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়ার পর পরই একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে। আগামী বুধবার থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত কোম্পানি শাহ জালাল বিমানবন্দরে আনুষ্ঠানিকভাবে কাজ শুরু করবে। এ দুটো প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রেডলাইন বর্তমানে শাহজালালের প্রশিক্ষণ কাজে নিয়োজিত রয়েছে।

এদিকে হিথরো বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে ধারণা নেয়ার জন্য হযরত শাহ জালাল বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন জাকির হাসান আজ রবিবার লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়ছেন।

প্রকাশিত : ২০ মার্চ ২০১৬

২০/০৩/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: