১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৮ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

সিরীয় লড়াই ॥ ক্ষীণ হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের পথ


কয়েক মাস ধরেই যুক্তরাষ্ট্র সিরীয় গৃহযুদ্ধের কোন সামরিক সমাধান হতে পারে না বলে জোর মত ব্যক্ত করে এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রের মতে, প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ এবং তাকে উৎখাত করতে লড়াইরত বিরোধী গ্রুপগুলোর মধ্যে এক রাজনৈতিক চুক্তিতেই কেবল সমাধান নিহিত।

কিন্তু কয়েক দিনের তীব্র বোমা বর্ষণের পর রুশরা সম্ভবত যুক্তরাষ্ট্রের ধারণা ভুল বলে প্রমাণ করছে। এরূপ বিমান হামলার ফলে শীঘ্রই গুরুত্বপূর্ণ আলেপ্পো শহর আসাদের বাহিনীর হাতে চলে যেতে পারে। এ অবস্থায় বুধবার এক উর্ধতন মার্কিন কর্মকর্তা স্বীকার করেন যে, সিরীয় যুদ্ধের এক সামরিক সমাধান হতে পারে। তিনি বলেন, এটি ঠিক আমাদের সমাধান নয় বরং রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির ভি পুতিনের সমাধান।

যখন মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী জন কেরি এক গুরুত্বপূর্ণ আলোচনায় যাচ্ছেন, তখন তিনি পরিস্থিতিরই মুখে পড়ছেন। এক অস্ত্রবিরতি ঘটানো এবং এক ডজনেরও বেশি শহরে অবরুদ্ধ সিরীয়দের অনাহারের হাত থেকে বাঁচাতে এক ‘মানবিক করিডর’ সৃষ্টি করাই এ আলোচনার উদ্দেশ্য। আসাদ বাহিনীই এরূপ বেশিরভাগ শহর অবরুদ্ধ করে রেখেছে। রুশ সামরিক ব্যবস্থা কয়েক বছর ধরে চলমান সঙ্কটের গতিপ্রকৃতিই পাল্টে দিয়েছে। হঠাৎ করে আসাদ ও তার মিত্ররা উজ্জীবিত য়ে ওঠেছেন এবং মার্কিন সমর্থিত বিদ্রোহীরা পলায়নপর অবস্থায় পড়েছে। মিউনিখে যদি আলোচনার মাধ্যমে কোন অস্ত্রবিরতি ঘটে, তা হলে সেটি সম্ভবত এমন এক সময়ে ঘটবে, যখন আসাদই ২০১১ সালে অভ্যুত্থান শুরু হওয়ার পর যে কোন সময়ের তুলনায় বেশি ভূখ- ও প্রভাবের অধিকারী। কেরি খুব কম প্রভাব নিয়েই আলোচনায় যাচ্ছেন। সিআইএ বিদ্রোহী দলগুলোকে অস্ত্রসজ্জিত করতে যেসব পথকে কাজে লাগিয়ে এসেছে, তাদের অনেকগুলোকেই রুশরা বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে। কয়েক বর্তমান ও সাবেক কর্মকর্তা একথা জানান। প্রশাসনের অভ্যন্তরের কেরি সমর্থকরা বলছেন, তিনি আমেরিকার সামরিক তৎপরতা একেবারে নিম্ন পর্যায়ে এসে পড়ায় ক্রমশ হতাশ হচ্ছেন। কারণ তিনি এরূপ তৎপরতাকে তার আলোচনার সামর্থ্য জোরদার করার পক্ষে অপরিহার্য বলে মনে করেন। প্রকাশ্যে কেরি তার উভয়সঙ্কট নিয়ে সতর্কই রয়েছেন। তিনি মঙ্গলবার বলেন, এ মুহূর্ত যে কত গুরুত্বপূর্ণ, সেই সম্পর্কে আমরা সবাই খুবই সচেতন রয়েছি। তবে তার প্রশাসনিক সহকর্মীরা রাজনৈতিক প্রক্রিয়া শুরু করতে তিন মাস ধরে চলমান চেষ্টা ভেঙ্গে পড়ার উপক্রম হয়েছে বলে আশঙ্কা করছেন। যদি এটি ব্যর্থ হয়, তা হলে কেরি ও প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তাদের বিকল্প পরিকল্পনা, অর্থাৎ আসাদের বিরুদ্ধে এক ব্যাপকতর সামরিক তৎপরতা চালানোর কথা ভাবতে আবারও বাধ্য হবেন। কিন্তু ঠিক এ ধরনের সংঘাতই এড়ানোর চেষ্টাতেই ওবামা পাঁচ বছর পার করে দিয়েছেন। বিশেষ করে যখন কোন স্থল অভিযানের জন্য বিরোধী নেতাদের কলহ জর্জড়িত এক জোটের নেতৃত্বাধীন বাহিনীর ওপর নির্ভর করতে হবে, তখন তিনি সেই সংঘাত এড়াতেই চান, কারণ তিনি এসব নেতাকে অবিশ্বাসের চোখে দেখেন।

কোন রাজনৈতিক সমাধান বা সামরিক তৎপরতা বৃদ্ধি করা ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের সিরীয় গৃহযুদ্ধের গতি প্রকৃতি নিয়ন্ত্রণে সামান্য সামর্থ্যই থাকবে। কেবল তাই নয়, ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে লড়াই করতে বিবদমান সব পক্ষকে ঐক্যবদ্ধ করার কোন স্থায়ী কৌশলও যুক্তরাষ্ট্রের থাকবে না। যখন কেরি এক রাজনৈতিক সমাধানের নীতি সম্পর্কে গত শরতকালে একমত হয়েছিল এমন ১৭টি দেশের আরেক বৈঠকের জন্য মিউনিখে পৌঁছান, তখন ওয়াশিংটনের নিজস্ব মিত্রদেরই কেউ কেউ মার্কিন নীতি নিয়ে তিক্ত ভাষায় অভিযোগ করেন। তারা বলেন, যখন রুশরা সিরীয় যুদ্ধের পরিস্থিতি বদলে দিচ্ছে, তখন যুক্তরাষ্ট্র সেখানে অনুপস্থিত। -নিউইয়র্ক টাইমস