মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৭ আশ্বিন ১৪২৪, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

মীর কাশেমের আপীলের পরবর্তী শুনানি ১৫ ফেব্রুয়ারি

প্রকাশিত : ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে ট্রাইব্যুনাল কর্তৃক মৃত্যুদ-প্রাপ্ত বদর বাহিনীর তৃতীয় শীর্ষ নেতা তৎকালীন ইসলামী ছাত্র সংঘের সাধারণ সম্পাদক, চট্টগ্রামের বাঙালী খান, জামায়াতের ইসলামীর নির্বাহী পরিষদের সদস্য মীর কাশেম আলীর রায়ের বিরুদ্ধে করা আপীলের পরবর্তী শুনানি ১৫ ফেব্রুয়ারি নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার নেতৃত্বে ৫ সদস্যবিশিষ্ট বেঞ্চ বুধবার এ আদেশ প্রদান করেছেন। বেঞ্চের অন্য বিচারপতিরা হলেন- বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি মোহাম্মদ বজলুর রহমান। আসামিপক্ষে দ্বিতীয় দিনের শুনানিতে অংশ নেন মীর কাসেমের আইনজীবী এস এম শাহজাহান ও নজরুল ইসলাম চৌধুরী। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন এ্যার্টনি জেনারেল মাহবুবে আলম।

এই প্রথম মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে কোন মামলায় একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি শুনানিতে অংশ গ্রহণ করলেন।

এ সময় সরকারী সুযোগ-সুবিধা থাকা অবস্থায় অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিদের নিয়ম-নীতি (কোড অব কন্ডাক্ট) মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা। রাষ্ট্রপক্ষ থেকে বলা হয়, তিনি (বিচারপতি নজরুল) এখনও জাজেস লাউঞ্জ ব্যবহার করেন। ওখানে আইনজীবীদের নিয়ে কথা (মামলার বিষয়ে) বলেন। এরপর প্রধান বিচারপতি বলেন, অবসরপ্রাপ্ত সব বিচারপতিদের কাছে আশা করব, সরকারী সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করা অবস্থায় আপনারা নিয়ম-নীতি (কোড অব কন্ডাক্ট) মেনে চলবেন। হাইকোর্ট বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিরা আপীলে ওকালতি করার সুযোগ পান। এটা আগে থেকে চলে আসছে।

পরে এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, তিনি (বিচারপতি নজরুল) যেটা করছেন, সেটা অনৈতিক। গত বছরের ১০ ডিসেম্বর বিচারপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী অবসরে যান।

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ২০১৪ সালের ২ নবেম্বর মীর কাসেম আলীকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদ-াদেশ প্রদান করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। এ রায়ের বিরুদ্ধে ওই বছরের ৩০ নবেম্বর মীর কাসেম আলী আপীল করেন।

প্রকাশিত : ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

১১/০২/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: