মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১০ আশ্বিন ১৪২৪, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

বি’বাড়িয়ায় কেপিআইতে সশস্ত্র হামলা

প্রকাশিত : ৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ॥ দেশের জ্বালানি খাতের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান তিতাস গ্যাসক্ষেত্রের নিরাপত্তা ব্যবস্থা টপকে এক প্রকৌশলীকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেছে দুর্বৃত্তরা। সশস্ত্র দুর্বৃত্তরা তিতাস গ্যাসক্ষেত্রের ২৫নং কূপের খনন কাজ বন্ধ করে দেয়। বেদম প্রহার করে কর্তব্যরত এক আনসারকে। রবিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। গ্যাস কূপের খনন চলাকালে এ ধরনের ঘটনায় কূপ অভ্যন্তরে বিস্ফোরণ আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। এ ঘটনার পর পরই বিদেশী শ্রমিকরা খনন কাজ বন্ধ করে পালিয়ে যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রবিবার রাত পৌনে আটটায় ‘ম’ আধ্যক্ষরের নেতৃত্বে ৪০ মোটরসাইকেলে কমপক্ষে ৮০/৯০ জন সশস্ত্র যুবক সদর উপজেলার শহরতলীর বুধল গ্রামের তিতাস গ্যাসক্ষেত্রের ২৫ ও ২৬নং কূপ এলাকায় দেয়াল টপকে অনুপ্রবেশ করে। নিরাপত্তারক্ষীরা মূল ফটকে বাধা দিলে দুর্বৃত্তরা নিরাপত্তাকর্মী তৈয়বুর রহমানকে বেধড়ক মারধর করে। পরে মূল ফটক খুলে ফেলে। দুর্বৃত্তরা সশস্ত্র অবস্থায় অন্য আনসারদের ঘিরে রেখে কূপ খনন এলাকায় প্রবেশ করে। এক পর্যায়ে কূপের খনন কাজ বন্ধ করে দেয়। একজন কর্মকর্তা জানান, দুর্বৃত্তরা প্রকৌশলী জাহিদ হোসেনকে দৈহিক লাঞ্ছিত করে। মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়। তারা কূপ খনন কাজে জড়িত ঠিকাদারদের নাম-ধাম জানতে চায়। তখন ২৫নং গ্যাস কূপে ৫৩ চীনা, অস্ট্রেলীয় ও মার্কিন শ্রমিকরা খনন কাজ করছিল। সংরক্ষিত খনন এলাকায় সশস্ত্র দুর্বৃত্তদের অনুপ্রবেশ, অস্ত্র প্রদর্শন ও আকস্মিক হামলায় বিদেশী শ্রমিকরা কাজ বন্ধ করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় অন্তত ৪০ মিনিট তিতাস গ্যাসক্ষেত্রের খনন কাজ বন্ধ থাকে। একটি সূত্র জানায়, রবিবার সন্ধ্যা নাগাদ গ্যাসক্ষেত্রের ড্রিলিং পাইপ ৩ হাজার ৫শ’ ১০ ফুট মাটির তলদেশ অতিক্রম করে। হাইপ্রেসার গ্যাস জোনে আকস্মিক এভাবে ড্রিলিং বন্ধ হলে কূপে ভয়াবহ বিস্ফোরণের আশঙ্কা থাকে। এ কারণে যে কোন সময় কূপটিতে ব্লু আউট (বিস্ফোরণ) হতে পারে। খবর পেয়ে পুলিশ, র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে। রাত সাড়ে আটটা নাগাদ পুনরায় খনন কাজ শুরু হয়। বাংলাদেশ গ্যাস ফিল্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী কামরুজ্জামানসহ সিনিয়র কর্মকর্তারা ঘটনাস্থালে পৌঁছে নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে বিদেশী শ্রমিকদের কাজে যোগদানের ব্যবস্থা করেন। বিজিএফসিএলের পক্ষ থেকে সোমবার সকালে ৬০/৭০ অজ্ঞাতনামা দুর্বৃত্তের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা হয়েছে। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মইনুর রহমান বলেন, অজ্ঞাতনামা দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে গ্যাস ফিল্ড থেকে অভিযোগ দিয়েছে। আমরা এটি গ্রহণ করেছি। নিরাপত্তা ব্যবস্থায় গলদ রয়েছে কিনা জানতে চাইলে বিজিএফসিএলের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা (জিএম নিরাপত্তা) জুলফিকার আলী আনসারী বলেন, ঘটনার সময় সশস্ত্র আনসার মোতায়েন ছিল। তাদের (হামলাকারী) সংখ্যা বেশি ছিল। আনসাররা তাদের প্রতিরোধ করতে পারেনি। তবে এ ঘটনায় ওই এলাকায় দায়িত্বরত আনসার প্লাটুন কমান্ডারসহ ৬ সদস্যকে প্রত্যাহারের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে সার্বিক নিরাপত্তা। ঘটনার পর থেকে বিদেশী শ্রমিকরা উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা এবং আতঙ্কে রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা স্বীকার করেছেন। এদিকে সরকারী একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা ঘটনার সময় কারা, কিভাবে, কোন অবস্থায় সরকারী সর্বাধিক নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান কেপিআই জোনে প্রবেশ করেছে তার বিস্তারিত অবহিত হয়ে উচ্চ পর্যায়ে রিপোর্ট দিয়েছে।

প্রকাশিত : ৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

০৯/০২/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



শীর্ষ সংবাদ: