১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

চলমান মামলার ৬৭ আসামি ও দণ্ড প্রাপ্ত ৬ জন পলাতক


স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে পলাতক আসামির সংখ্যা ক্রমেই ভারি হচ্ছে। ট্রাইব্যুনাল যে ২২টি মামলার রায় প্রদান করেছেন তার মধ্যে পলাতক আসামি রয়েছে ৬ জন। দ-প্রাপ্ত আসামি ছাড়াও বর্তমানে যে সমস্ত মামলায় তদন্ত ও বিচারকাজ চলছে তার মধ্যে ৬৭ জন আসামি পলাতক রয়েছে। তদন্ত সংস্থায় ৫৮৫টি অভিযোগ এসেছে এর মধ্যে বেশ কয়েক জন আসামির মৃত্যু হয়েছে। পাশাপাশি আরও অনেকে পলাতক রয়েছে। মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলা শুরু হবার সঙ্গে সঙ্গে আসামিরা আইন প্রয়োগকারী সংস্থার চোখ ফাঁকি দিয়ে সুকৌশলে পালিয়ে যায়। এ বিষয়ে ট্রাইব্যুনাল অসন্তোষও প্রকাশ করেছেন। পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের জন্য জোর তৎপরতা চালানো হচ্ছে। যে সমস্ত আসামি এখনও গ্রেফতার হয়নি, তাদের অনুপস্থিতিতেই বিচার কাজ চলবে। তদন্ত সংস্থা ও প্রসিকিউশন সূত্রে এ খবর জানা গেছে।

২০১০ সালে ট্রাইব্যুনাল গঠন হবার পর এ পর্যন্ত তাদের বিচার হয়েছে তার মধ্যে পলাতক রয়েছে বাচ্চু রাজাকার হিসেবে পরিচিত আবুল কালাম আজাদ, আশরাফুজ্জামান খান, চৌধুরী মুঈনুদ্দীন, জাহিদ হোসেন খোকন, আব্দুল জব্বার, হাসান আলী। আব্দুল জব্বারকে আমৃত্যু কারাদ- বাকি ৫ জনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদ- প্রদান করেছেন ট্রাইব্যুনাল। বর্তমান যাদের বিচার চলছে তার মধ্যে প্রায় ৩৬ জন আসামি পলাতক রয়েছে। পলাতকদের মধ্যে রয়েছে জামালপুরের আশরাফ হোসেন, অধ্যাপক শরীফ হোসেন, আবদুল মান্নান, আবদুল বারী, হারুন ও আবুল হাশেম, হবিগঞ্জের মুজিবুর রহমান ওরফে আঙ্গুর মিয়া, কিশোরগঞ্জের নাসির উদ্দিন, গাজী মোঃ আবদুল মান্নান, হাফিজ উদ্দিন ও আযহারুল ইসলাম, যশোরের ইব্রাহিম হোসেন, শেখ মোহাম্মদ মুজিবুর, আজিজ সরদার, কাজী ওহিদুল ইসলাম, আবদুল খালেক মোড়ল ও মশিয়ার রহমান, সাভারের আবুল কালাম, লক্ষ্মীপুরের মোঃ ইউসুফ, ঢাকার আবদুল কুদ্দুস, সৈয়দ মোঃ হুসাইন ও জয়নাল আবেদীন। কক্সবাজারের মৌলভী জকরিয়া সিকদার, অলি আহমদ, জালাল উদ্দিন, সাইফুল ওরফে সাবুল, মমতাজ আহম্মদ, হাবিবুর রহমান, আমজাদ আলী, আবদুল মজিদ, আ. শুক্কুর, জাকারিয়া, মৌলবী জালাল, আবদুল আজিজ ও ইদ্রিস আলী সরদার।

এছাড়া যে সমস্ত মামলা তদন্তাধীন রয়েছে এর মধ্যেও ২৫ আসামি পলাতক রয়েছে। পলাতকদের মধ্যে রয়েছে, নেত্রকোনার খালেক তালুকদার, কবির খান, নূর উদ্দিন রাদিন, সালাম বেগ ও শেখ মোঃ এ মজিদ। মৌলভী বাজারের শামছুল হক, নেছার আলী, মোবারক মিয়া, ফখরুজ্জামান, আঃ সাত্তার, খন্দকার গোলাম রব্বানী, আবদুন নূর তালুকদার, আনিস মিয়া, আঃ মুছাব্বির মিয়া। ময়মনসিংহের ওয়াজ উদ্দিন, গাইবান্ধার আবু সালেহ মোঃ আজিজ মিয়া, নাজমুল হুদা, রুহুল আমিন মঞ্জু, আবদুল লতিফ ও আবু মুছলিম মোহাম্মদ আলী, দিনাজপুরের আবদুর রহিম মিয়া, জামালপুরের বেলায়েত হোসেন, নাসির উদ্দিন ও ইসমাইল হোসেন এবং ময়মনসিংহের কাজী বদরুজ্জামান।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: