মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২০ আগস্ট ২০১৭, ৫ ভাদ্র ১৪২৪, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

গুগলের কর্মীরা থাকেন গুগল গ্যারেজে

প্রকাশিত : ৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

গুগলে যারা কাজ করেন তাদের বলা হয় ‘গুগলার’। বিশ্বের নানা প্রান্তের মানুষের স্বপ্ন থাকে গুগলের মতো বড় প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার। কারণ সবচেয়ে বেশি বেতন দেওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে গুগলের অবস্থান উপরের দিকে। এ ছাড়া কাজ শেখার অবারিত সুযোগ তো রয়েছেই। এত বেতন পাওয়ার পরও গুগলের অনেক কর্মীই কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির গ্যারেজে থাকেন। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার মাউন্টেন ভিউতে অবস্থিত গুগলের বিশাল সদর দফতর। যা পরিচিতি ‘গুগল ক্যাম্পাস’ নামে। সেখানকার গ্যারেজে রাখা আছে বড় বড় ট্রাক। আর সেটাই অনেক গুগলকর্মীর ঘরবাড়ি। কাজ শেষে তারা সেখানে বিশ্রাম নেন। পরের দিন আবার কাজে ফিরে যান। এত বেতন পাওয়ার পরও কেন গুগলাররা অফিসের গ্যারেজে ট্রাকের ভেতরে থাকেন তার বিশেষ কারণ জানিয়েছে প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট কোয়েরা ডটকম।

গুগলার বেন ডিসকয় গুগল ক্যাম্পাসে ছিলেন ১৩ মাস। ২০১১ সালের অক্টোবর থেকে ২০১২ সালের নবেম্বর পর্যন্ত। কারণ গুগলের সদর দফতরের পাশের এলাকা সাউথ বে তে বাড়িভাড়া এতই বেশি যে সেটা দেয়ার মতো আর্থিক সক্ষমতা তার ছিল না। তাই গ্যারেজের মধ্যে একটা ট্রাকেই থাকার ব্যবস্থা করে নিয়েছিলেন। বেশ আরামেই ছিলেন সেখানে। ২৩ বছর বয়সী ব্র্যান্ডন ওক্সেনডাইন গুগলের পার্কিং লটে ছিলেন ২০১৩ সালের ২৮ জুন থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। একটা স্টেশন ওয়্যাগন কিনে সেটার ডেকে দুটো ম্যাট্রেস পেতে চারপাশে পর্দা দিয়ে নিজের আবাস তৈরি করে নিয়েছিলেন ব্র্যান্ডন। নিজের ব্লগে তিনি লিখেছেন, ‘সে সময় আমার টাকা বাঁচানোর খুব দরকার ছিল। বিশ্বভ্রমণে বের হওয়ার পরিকল্পনা করেছিলাম। আর সে কারণেই থাকার জায়গার পেছনে বেশি অর্থ খরচ করতে চাইনি। আরামে থাকার জন্য গুগলের পার্কিং খুবই ভাল জায়গা।’ টাকা-পয়সার সমস্যা না থাকলেও ম্যাথু জে ওয়েভার গুগলের পার্কিং লটে ছিলেন সেখানে অভিজ্ঞতা নেয়ার জন্য। তিনি বলেন, ‘পার্কিং লটে থাকাটা আমার ক্যারিয়ার গড়তে খুব সাহায্য করেছে।’ যদিও গুগলের নীতিমালার মধ্যে কর্মীদের অফিসে থাকার কোন ব্যবস্থা নেই। তাই নিরাপত্তাকর্মীরা গ্যারেজের এসব ভ্রাম্যমাণ গাড়ির ওপর সব সময়ই কড়া নজর রাখেন। একজন গুগলার জানিয়েছেন, তিনি গুগলের লন্ডন অফিস থেকে মাউন্টেন ভিউয়ের সদর দফতরে বদলি হয়ে আসার পর থাকার মতো কোন ভাল জায়গা খুঁজে পাচ্ছিলেন না। আর সে কারণে বাধ্য হয়েই পার্কিং লটে থাকা শুরু করেন। অবশ্য বেশিদিন নয় মাত্র এক সপ্তাহ পার্কিং লটে ছিলেন তিনি। অবশ্য এ সময় অফিসে নিজের ডেস্কের নিচেও ঘুমিয়েছেন তিনি। শুনে যতটা কঠিন বা খারাপ মনে হয় পার্কিং লটে থাকাটা কিন্তু তেমন অসুবিধার নয়। কারণ পার্কিং লটে শুধু ঘুমাতেই যায় কর্মীরা। প্রাকৃতিক কর্ম সারতে তারা চলে যান জিমে। আর খাওয়া-দাওয়া করার জন্য তো গুগল অফিসের চেয়ে ভাল আর কোন জায়গা নেই। প্রত্যেক কর্মীর জন্য বিনামূল্যে খাবার সরবরাহ করা হয় গুগল অফিসে। জামাকাপড় ধোয়ার জন্যও ব্যবস্থা রয়েছে গুগল ক্যাম্পাসের ভেতরেই।

প্রকাশিত : ৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

০৬/০২/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ:
চাহিদার চেয়ে কোরবানিযোগ্য পশুর সংখ্যা বেশি ॥ কোন সঙ্কট হবে না || বঙ্গবন্ধুর খুনীরা যে গর্তেই লুকিয়ে থাকুক ধরে এনে রায় কার্যকর করা হবে ॥ আনিসুল হক || উত্তরের বন্যার পানি নামছে, মধ্যাঞ্চলে নতুন এলাকা প্লাবিত || রায় যদি বিরাগ প্রসূত হয়ে থাকে তাহলে শপথ ভঙ্গ হবে || কমলাপুরে মানুষের ঢল, প্রত্যাশিত টিকেট না পেয়ে অনেকেই হতাশ || সেই মৃত্যু- রক্তস্রোতের ভয়ঙ্কর স্মৃতি আজও তাড়িয়ে বেড়ায় || বিএনপির ক্ষমতার রঙিন খোয়াব কর্পূরের মতো উবে গেছে ॥ কাদের || মেগা প্রকল্পে অর্থ ব্যয়ের ওপরই নির্ভর করছে চট্টগ্রামের উন্নয়ন || যমুনার বাঁধে আশ্রয় নিতেও এককালীন নজরানা, দিতে হয় মাসিক ভাড়া || আওয়ামী লীগে যোগ দেয়া ৪শ’ জামায়াতীর ওপর নজরদারি ||