১৯ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

কারবারের চোখ এখন ফ্রেঞ্চ ওপেনে


কারবারের চোখ এখন ফ্রেঞ্চ ওপেনে

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ নতুন মৌসুমের শুরুতেই নিজেকে মেলে ধরলেন এ্যাঞ্জেলিক কারবার। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ফাইনালে সেরেনা উইলিয়ামসকে হারিয়ে ক্যারিয়ারের প্রথম মেজর শিরোপা জয়ের স্বাদ পেলেন তিনি। সেই সঙ্গে ১৭ বছর পর প্রথম জার্মান খেলোয়াড় হিসেবে গ্র্যান্ডসøামের শিরোপা উঁচিয়ে ধরার গৌরব অর্জন করলেন। তার আগে শেষ কোন জার্মান খেলোয়াড় হিসেবে মেজর টুর্নামেন্ট জয়ের রেকর্ড গড়েছিলেন স্টেফি গ্রাফ। ১৯৯৯ সালে ফ্রেঞ্চ ওপেনের শিরোপা জিতেছিলেন তিনি। মেজর গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্ট জয়ের পর দারুণ রোমাঞ্চিত কারবার। তার লক্ষ্য এখন পারফর্মেন্সের ধারাবাহিকতা ধরে রাখা। সেই সঙ্গে মৌসুমের দ্বিতীয় গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্ট ফ্রেঞ্চ ওপেনেও নিজেকে মেলে ধরা।

২০০৩ সালে পেশাদার টেনিস খেলোয়াড় হিসেবে যাত্রা শুরু করেছিলেন এ্যাঞ্জেলিক কারবার। এই সময়ের মধ্যে ৮ ডব্লিউটিএ শিরোপা জয়ের স্বাদ পেয়েছেন তিনি। কিন্তু দুর্ভাগ্য জার্মান তারকার। কখনই মেজর টুর্নামেন্টের ট্রফি জিততে পারেননি। শুধু তাই নয়, অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের আগে কখনও কোন গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্টের ফাইনালেই উঠতে পারেননি। ২০১১ সালে প্রথমবারের মতো ইউএস ওপেনের সেমিফাইনালের টিকেট নিশ্চিত করেছিলেন তিনি। পরের বছর উইম্বল্ডনের শেষ চারেও জায়গা করে নিয়েছিলেন ২৮ বছর বয়সী এই তারকা খেলোয়াড়। কিন্তু শিরোপা জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছাতে বার বারই ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। অবশেষে নতুন বছরের প্রথম গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্টেরই ফাইনালে উঠে চমকে দেন তিনি। প্রতিপক্ষ হিসেবে তার বাধা হয়ে দাঁড়ান সেরেনা উইলিয়ামস। বর্তমান টেনিস বিশ্বে অপ্রতিরোধ্য গতিতে ছুটছেন সেরেনা উইলিয়ামস। বিশেষ করে গত দুটি মৌসুমে প্রতিপক্ষকে মোটেই পাত্তা দেননি আমেরিকান টেনিসের এই জীবন্ত কিংবদন্তি। গত মৌসুমে চার গ্র্যান্ডসøামের তিনটিতেই চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন সেরেনা। ইউএস ওপেন জিততে পারলে জার্মান কিংবদন্তির ২২ গ্র্যান্ডসøাম জয়ের মাইলফলক স্পর্শ করতেন তিনি। কিন্তু সেখানে তার সামনে বাধা হয়ে দাঁড়ান ইতালির রবার্টা ভিঞ্চি। যে কারণে টেনিসের উন্মুক্ত যুগে সর্বোচ্চ গ্র্যান্ডসøাম জয়ের রেকর্ড স্পর্শ করার অপেক্ষাটা আরও দীর্ঘ হয় তার। নতুন বছরের প্রথম গ্র্যান্ডসøাম অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ফাইনালে উঠে আবারও স্টেফিকে ছোঁয়ার সুযোগ পান তিনি। কিন্তু এবার তার বড় বাধা হয়ে দাঁড়ান এ্যাঞ্জেলিক কারবার।

শেষ পর্যন্ত প্রথমবার ফাইনালে উঠে সেরেনাকে হারিয়েই বাজিমাত করেন এ্যাঞ্জেলিক কারবার। সেরেনার মতে প্রতিপক্ষের বিপক্ষে জিতে দারুণ রোমাঞ্চিত কারবার। সেইসঙ্গে গর্বিতও। এ বিষয়ে কারবার বলেন, ‘আমার কাছে এটা অনেক বড় কিছু। ফাইনালে আমি সেরেনা উইলিয়ামসকে হারিয়েছি। প্রকৃতপক্ষে তার বিপক্ষে খেলাটাই আমার জন্য অনেক সম্মানের। তার বিপক্ষে খেলা মানেই আমার কাছে বিশ্বের সেরা এক মুহূর্ত। আর শেষে তাকে হারিয়েই ক্যারিয়ারের প্রথম গ্র্যান্ডসøাম জয়ের স্বাদ পেলাম। এটা ছিল অসাধারণ এক ম্যাচ। যা আমার জন্য সত্যিই বিশেষ এক অর্জন।’ তবে কঠোর অনুশীলনের ফলাফলই যে এই গ্র্যান্ডসøাম সেটাও জানিয়েছেন সেরেনা। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘প্রত্যেকেই আমার সম্পর্কে জানে যে আমি খুবই কঠোর পরিশ্রমী। এ কারণেই প্রত্যেকে আমাকে যোগ্য খেলোয়াড় হিসেবেই দাবি করছেন। এ জন্য আমি সত্যিই গর্বিত।’

অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জয়ের পর বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়েও উন্নতি হয়েছে এ্যাঞ্জেলিক কারবারের। এক লাফেই দুই নাম্বারে উঠে এসেছেন তিনি। যা তার ক্যারিয়ারেরই সর্বোচ্চ অর্জন। তবে এ্যাঞ্জেলিক কারবারে কাছে হারলেও শীর্ষস্থান ধরে রেখেছেন সেরেনা উইলিয়ামস। ২৮ বছর বয়সী জার্মান তারকা কারবার র‌্যাঙ্কিংয়ের দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসায় অবনমন ঘটেছে রোমানিয়ার সিমোনা হ্যালেপ এবং রাশিয়ার মারিয়া শারাপোভার। এই উন্নতিই এখন ফ্রেঞ্চ ওপেন জয়ের জন্য আত্মবিশ্বাস যোগাবে বলে মনে করছেন এ্যাঞ্জেলিক কারবার।