মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
১৮ আগস্ট ২০১৭, ৩ ভাদ্র ১৪২৪, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

বিশ্বসাহিত্যের টুকরো খবর

প্রকাশিত : ৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

মধ্যপ্রাচ্যে সাহিত্যের মূল উপজীব্য রাজনীতি

গত কয়েক দশক ধরে অশান্ত মধ্যপ্রাচ্য। বহু দিনের ইসরাইল-প্যলেস্টাইন সঙ্কট এখনও বিদ্যমান, সিরিয়ায় চলছে গৃহযুদ্ধ, যুদ্ধ থামেনি ইরাকে। প্রতিদিনই ফাটছে বোমা মরছে মানুষ। সঙ্কটের মধ্যে দিন কাটছে লিবিয়ার মানুষের। সমস্যার সমাধান হয়নি ইয়েমেনে।

সৌদি-ইরান সঙ্কট। আর নতুন করে যোগ হয়েছে আইএসআইএস আগ্রসন। আতঙ্কে দিন কাটছে মধ্যপ্রাচ্যের মানুষের। মূলত এ কারণেই এসব সঙ্কটময় চিত্রই গত কয়েক দশক ধরে ফুটে উঠেছে মধ্যপ্রাচ্যের সাহিত্যে। সমসাময়িক কবি সাহিত্যিকদের কবিতা উপন্যাসের মূল উপজীব্যও তাই রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা, যুদ্ধ, উদ্বাস্তু মানুষ, মৃত্যু স্বৈরতন্ত্র, মৌলিক অধিকার হরণ প্রভৃতি।

গত এক দশকের বেশি সময় ধরে স্বাধীনতা, অধীনতা, যুদ্ধ, মৃত্যুকে বিষয করে কবিতা লিখে চলেছেন প্যালেস্টাইনের কবি মাহমুদ দারবিশ। সুনেল্লা ইব্রাহিমের দ্য কমিটি, তাহা হুসেনের দ্য নাইটিঙ্গেল প্রেয়ার, ইলিয়াস খৌরির ইয়ালো, ইব্রহিম আল-কোনির দ্য ব্লিডিং অফ দ্য স্টোন, আবদুল রহমান মুনিবের সিটিস অফ সল্ট, দারবিশের জার্নাল অফ এন অরডিনারি গ্রিফ প্রভৃতি উপন্যাস যার সবগুলোর পেক্ষাপট সমসাময়িক রাজনীতি, রাজনৈতিক অস্থিশীলতা, যুদ্ধ, আগ্রসন।

গতানুগতিক পশ্চিমা ও মধ্যপ্রাচ্যের বাইরের পাঠকরা মনে করেন বর্তমান সময়ের আরব সাহিত্যিকরা এক একজন রাজনৈতিক হাতিয়ার আর তাই এ সময়ের আরব সাহিত্যে রাজনীতির ব্যাপক প্রভাব। কিন্তু এখানে কথা হচ্ছে কি অবস্থায় আছে মধ্যপ্রাচ্য, যেখানে প্রতিদিন মানুষ মরছে বোমা অথবা গুলি খেয়ে। এরকম অবস্থায় আর কি হতে পারে সাহিত্যের পেক্ষাপট? একজন মাহমুদ দারবিশ যদি এই বিষয়টি তার কবিতার মাধ্যমে বলতে চান তাহলে সেখানে রাজনীতির কথা আসতেই পারে। তবে পুরোপুরি সেটি রাজনৈতিক নয়।

আরব সাহিত্যের পশ্চিমা পাঠকরা আসলে কি চায়? অর্থাৎ কি পড়তে চায়? তারা চায়, একটু অন্যরকমভাবে শুরু হবে উপন্যাস বা কবিতা, রাজনৈতিক চক্রমুক্ত হবে, আর গল্পে প্রবেশ একটু মধুর হবে। পশ্চিমা পাঠকরা বোধহয় একঘেয়েমিতে পড়ে গেছে। কারণ আরব সাহিত্যের সমসাময়িক কবিতা উপন্যাসের বিষয়বস্তু বা পেক্ষাপট রাজনীতি, মত্যু আর মানবিক বিপর্যয়।

পাঠকরা গত কয়েক দশকধরে এ ধরনের সাহিত্য পড়ছে। আসলে গত কয়েক দশক ধরেই অশান্ত মধ্যপ্রাচ্য। বাস্তবতা যখন সংগ্রামের হয় তখন আসলে মানুষ কল্পনাবিলাসী হতে পারে না। যেখানে মানবতা আছে বিপর্যয়ে সেখানে আর কি উপকরণ লাগে! এত এত মানবিক কারণ এখানে বর্তমান যে নির্বাচিত প্রেম ভালবাসা এখানে দুসর।

এসব কারণেই এর প্রভাব পড়ছে সাহিত্যে। আর সাহিত্যের অন্যতম কাজ হচ্ছেÑ পাঠকের মনে সহমর্মিতা ও সহ্যক্ষমতা সৃষ্টি করা। নান্দনিকভাবে উপস্থাপন করা বিষয়টি। আরব সাহিত্যে নান্দনিকতার অভাব নেই, অভাব নেই উপমার। শুধু পারিপার্শ্বিক কারণেই বর্তমান সাহিত্যে রাজনৈতিক প্রভাব।

ডাবলিন লিটারেরি অ্যাওর্য়াড ২০১৬

ইন্টারন্যাশনাল ডাবলিন লিটারেরি এওর্য়াড ২০১৬ এর জন্য মনোনিত লেখকদের প্রাথমিক তালিকা প্রকাশ করেছে ডাবলিন সিটি কাউন্সিল। এ পুরষ্কার দেওয়া হয় শুধু মাত্র তাদেরই যারা ডাবলিন শহর ও শহর কেন্দ্রিক সাহিত্য নিয়ে বিশেষ অবদান রাখেন।

পুরষ্কারের জন্য প্রাথমিকভাবে মনোনিত হয়েছেন, জেসি বার্টন (দ্যা মেনিয়াট্রাস্ট), ক্রিস্টি ওয়ার্ক ( দ্যা ল্যাগেসি অব এলিজাবেথ প্রিংগেল), মেলেনিয়া জি মাজ্জুককো ( লিম্ব), জেনি এর্পেনবার্ক ( দ্যা এন্ড অব ডে), শ্যান মিশেল ( আস কন্ডাকটর), ব্রুকি ডেভিস ( লস্ট এন্ড ফাউন্ড), জেনিফার ক্লেনিমেন্ট ( প্রেয়ার ফর দ্যা স্টোলেন), জুলি জেহ ( ডিকমপ্রেশন)। চুড়ান্ত নির্বাচন করবেন ছয় জনের একটি বিচারক প্যানেল। আর পুরষ্কারের মূল্য হিসেবে দেওয়া হবে এক লাখ পাউন্ড।

মেইন ক্যাম্পের নতুন সংস্করণ

‘মেইন ক্যাম্প’ প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯২৪ সালে। জার্মান একনায়ক এডলফ হিটলার এ বিখ্যাত বইটির রচয়িতা। কপি রাইট আইন অনুযায়ী প্রকাশের পর থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত বইটির ওপর কপিরাইট স্বত্ব বলবৎ থাকলেও এখন আর নেই।

বইটির নতুন সংস্করণ প্রকাশ করা হয়েছে এবছর। জার্মানীর তৎকালীন রাজনৈতিক মেনিফেস্টো নিয়ে লিখা হয়েছিল বইটি। সেসময় জার্মানীর মিউনিখ একাডেমি থেকে প্রকাশ করা হয় বইটি।

বইটির নতুন সংস্করনে কিছু ইহুদি গ্রুপের বক্তব্য সংযোজন করা হয়েছে। সঙ্গে নতুন করে ঐ সময়ের কিছু নাৎজি নেতাদের বক্তব্য সংযোজন করা হয়েছে। নতুন করে মূল্য ঠিক করা হয়েছে ৫৯ ইউরো। নতুন সংস্করণ প্রকাশের এক সপ্তাহের মধ্যে সবগুলো কপিও বিক্রি হয়েছে

৪০০ বছরে শেক্সপিয়ার

বিশ্ব সাহিত্যে শেক্সপিয়ারের অবদান অসীম। অনেকে তার উক্তি দিয়েই বলেন, গোটা পৃথিবীটাই তার নাটকের মঞ্চ। এ বছর তার মৃত্যুর ৪০০ বছর। ১৬১৬ সালে তিনি সাহিত্যের পাট চুকিয়ে মহাকালে পাড়ি জমান। ব্রিটিশ প্রেসিডেন্ট ডেভিড ক্যামেরুন জানিয়েছেন, তার ৪০০তম মৃত্যুদিবস পালন করা হবে সারা পৃথিবীব্যাপী।

নিউজিল্যাড হ্যেরাল্ডকে প্রেসিডেন্ট বলেন, এই কিংবদন্তি সারা পৃথিবীর। তাকে শুধু ইংল্যান্ড বা ইউরোপের মধ্যে আটকে রাখা যাবে না। পৃথিবীর একশটির বেশি ভাষায় অনুদিত হয়েছে শেক্সপিয়ারের রচনাবলি।

বিশ্ব সাহিত্যে এত মাপের শিল্পী হাতে গোনা কয়েকজন। ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্যে তার অবদান প্রচুর। হরহামেশায় সৃস্টি করে গেছেন নতুন নতুন শব্দ, ব্যকরনের ব্যবহার, বাক্য গঠন।

প্রকাশিত : ৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

০৫/০২/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: