মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৫ আশ্বিন ১৪২৪, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

অর্থনৈতিক নিরাপত্তা বলয়ে নারী

প্রকাশিত : ৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৬
  • হোসনে আরা জাহান

সময় বদলে যাচ্ছে। সময়ের সুতোয় বাঁধা অবাঞ্ছিত গিঁঠগুলো খুলে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। পিছিয়ে পরা জনগোষ্ঠী সামনে এগিয়ে এসে ধীরে ধীরে সমাজকে বদলে দিচ্ছে। দেশ কাল পাত্রভেদে এই পরিবর্তনের সুর তাল লয়ে ভিন্ন হলেও, বাংলাদেশের সমাজব্যাস্থায় এর ইতিবাচক ছাপ রয়েছে। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম বিচার করলে আমরা সহজেই সেই দিন বদলের চিত্র দেখতে পাই।

বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক ব্যবস্থায় নারীর প্রত্যক্ষ বিচরণ সমাজের এই ইতিবাচক পরিবর্তনের একটি অন্যতম সূচক। কিন্তু বর্তমান সমাজব্যবস্থা একজন নারীর জন্য এখনও এতটা উপযোগী নয়। একটি যথাযথ সুন্দর সমাজ গড়তে হলে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সামনে এগিয়ে যেতে হয়। তাই আর্থ-সামাজিক কর্মকা-ে যুক্ত হতে হবে নারীদের। হতে হবে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী, আত্মনির্ভরশীল। নারীসমাজের এই উত্তরণ ছাড়া মানবজাতির স্বাভাবিক সুন্দর পৃথিবী সৃষ্টি সম্ভব নয়।

ইতোমধ্যে বাংলাদেশের অসংখ্য নারী বিভিন্ন অর্থনৈতিক কর্মকা-ে যুক্ত রয়েছেন। অনেকে সরকারী-বেসরকারী চাকরিতে বিভিন্ন পদে নিয়োজিত আছেন। চাকরিজীবনে সফলতা অর্জন করেছেন। ব্যাংকগুলোতে বিভিন্ন ধরনের সঞ্চয় প্রকল্প চালু রয়েছে। শুধু নিজের সুবিধামতো সঞ্চয় প্রকল্প বেছে নিতে হবে। ব্যাংকগুলোতে আছে নারীদের ভবিষ্যত নিরাপত্তার জন্য বিশেষ সঞ্চয় ব্যবস্থা। আপনি চাইলে মাসিক ভিত্তিতে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ জমা করতে পারেন (সেটা হতে পারে ৫০০, ১০০০, ২০০০ ইত্যাদি)। মেয়াদ হতে পারে ৩, ৫ বা ১০ বছর। আর মেয়াদ পূর্ণ হলে আপনি নির্ধারিত শর্তে সুদসহ সঞ্চিত টাকা উত্তোলন করতে পারবেন।

যদি আপনার হাতে বড় অঙ্কের অর্থ থাকে, তাও আপনি সম্পূর্ণ নিরাপদে ব্যাংকে রাখতে পারেন। তা হোক যে কোন পরিমাণের অর্থ। এফডিআর করে অথবা সঞ্চয়পত্র কিনে রাখতে পারেন। এফডিআর করে রাখতে পারেন ৩ মাস, ৬ মাস, ১ বছর বা তারও বেশি সময়ের জন্য। মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পর মুনাফা পাবেন। এক্ষেত্রে অটোরিনিউ নির্দেশনা প্রদান করলে মুনাফাসহ সর্বসাকল্য টাকা নির্দেশিত পরবর্তী মেয়াদের জন্য রিনিউ হতে থাকবে। সঞ্চয়পত্র কিনে রাখলেও ১ মাস বা ৩ মাস পর পর মুনাফা পেতে পারেন। পোস্ট অফিস এবং ব্যাংকগুলোতে সঞ্চয়পত্র পাওয়া যায়। এটিও একটি ভাল অর্থসংস্থান হতে পারে।

অন্যদিকে যাদের হাতে প্রয়োজনীয় অর্থ নেই। এমনকি ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও টাকার অভাবে কোন ধরনের ব্যবসা করতে পারছেন না তাদের জন্য আছে বিভিন ধরনের ঋণ প্রদান ব্যবস্থা। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য আছে ক্ষুদ্র ঋণ। নারীরা স্বল্পসুদে এই ঋণ গ্রহণ করতে পারেন এবং নিজ নিজ অর্থনৈতিক কর্মকা-কে জোরদার করতে পারেন।

নকশিকাঁথা, আচার, জ্যাম, জেলি, পাপড় ইত্যাদি প্রস্তুত ও বিপণন, হস্তশিল্প, মৃৎশিল্প, ফটোগ্রাফি, ক্ষুদ্র বস্ত্রশিল্প, পাট বা পাটজাত দ্রব্যাদি তৈরি প্রভৃতি উৎপাদনশীল শিল্প প্রতিষ্ঠানের প্রসারে ঋণ প্রদান করা হয়।

প্রকাশিত : ৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

০৫/০২/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: