১৭ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৮ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

বাংলাদেশ অলিম্পিক ফুটবল দলের ঢাকা ত্যাগ


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ‘দক্ষিণ এশিয়ার অলিম্পিক গেমস’ খ্যাত সাউথ এশিয়ান গেমস (এসএ গেমস) ক্রীড়া আসরে অংশ নিতে ২৬ সদস্যের দল নিয়ে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ভারতের গৌহাটির উদ্দেশে ঢাকা ছেড়েছে বাংলাদেশ অলিম্পিক (অনুর্ধ ২৩) ফুটবল দল। গতবারের মতো এবারও স্বর্ণ জয়ের ধারা অব্যাহত রাখতে চায় গঞ্জালো সানচেজের শিষ্যরা।

অলিম্পিক টিম হলেও জামাল ভূঁইয়া, হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাস এবং জুয়েলের মতো জাতীয় দলের ১০ খেলোয়াড় রয়েছেন দলে। ‘‘বি’ গ্রুপে বাংলাদেশ যুব দলের প্রতিপক্ষ নেপাল ও ভুটান।

আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি গৌহাটির পল্টন বাজারের এএআই স্টেডিয়াম ভুটানের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে মাঠে নামবে বাংলাদেশ দল। ২০১০ সালে ঢাকার মাঠে ৪-০ গোলে আফগানিস্তানকে হারিয়ে ১১ বছর পর এসএ গেমসের ফুটবলে স্বর্ণপদক জয় করেছিল বাংলাদেশ। এরপর কোন আন্তর্জাতিক ফুটবলের শিরোপা জয় করতে পারেনি তারা।

অলিম্পিক বা অনুর্ধ ২৩ দল যাই বলা হোক, দলের ২০ খেলোয়াড়ের ১৪ জনের মাঝেই রয়েছে মূল জাতীয় দলের হয়ে খেলার অভিজ্ঞতা। ফজলে রাব্বি, আতিকুর রহমান ফাহাদ, শাকিল আহমেদ, রুবেল মিয়া, আনিসুর রহমান ও মোঃ রাজিব এর আগে জাতীয় দলের জার্সি গায়ে চাপাননি। চার ডিফেন্ডার রায়হান হাসান, তপু বর্মণ, অধিনায়ক রেজাউল ও ইয়াসিন খান জাতীয় দলের ডিফেন্স লাইনে দাঁড়িয়েছেন অনেকবার। মাঝমাঠের সোহেল রানা, হেমন্ত, শাহেদুল আলম, মাশুক মিয়া জনি ও জামাল ভূঁইয়া গত কয়েকবছর দেশে-বিদেশে জাতীয় দলের অনেক ম্যাচই খেলেছেন। ফরোয়ার্ড নাবিব নেওয়াজ জীবন ও আমিনুর রহমান সজীবও নিয়েছেন জাতীয় দলের হয়ে গোল করার দায়িত্ব।

উল্লেখ্য, রেজা, জামাল ও জীবন এসএ গেমসে খেলছেন ২৩ বছরের বেশি তিন খেলোয়াড়ের কোটায়। এসএ গেমসে বাংলাদেশ ফুটবল দলের রয়েছে শিরোপা ধরে রাখার যোগ্যতা। তবে মাঠে তো তার প্রতিফলন দেখা যায় না! বেশ কিছু দিন ধরে বার বার ব্যর্থতার বৃত্তেই আটকে আছে বাংলাদেশের ফুটবল। এসএ গেমসে তার ব্যত্যয় হবে কি না, সময়ই দেবে তার উত্তর!

বাংলাদেশ অলিম্পিক ফুটবল দল ॥ গোলরক্ষক- রাসেল মাহমুদ লিটন, আনিসুর রহমান জিকো, মোহাম্মদ রাজিব; ডিফেন্ডার- রায়হান হাসান, তপু বর্মণ, রেজাউল করিম, ইয়াসিন খান, ফজলে রাব্বি; মিডফিল্ডার- জামাল ভূঁইয়া, রুবেল মিয়া, শাহেদুল আলম শাহেদ, হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাস, শাকিল আহমেদ, মাশুক মিয়া জনি, জুয়েল রানা, ইউসুফ সিফাত, সোহেল রানা; ফরোয়ার্ড- আমিনুন রহমান সজীব, নাবিব নেওয়াজ জীবন।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: