২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

আমি নিশ্চিত জাতীয় পার্টি বেঁচে থাকবে- এরশাদ


স্টাফ রিপোর্টার ॥ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, ‘একটি ঘোষণা এত উৎসাহ জাগাতে পারে, পার্টির মধ্যে জাগরণ সৃষ্টি করতে পারে তা আমার জানা ছিল না। এখন আমি নিশ্চিত, আমার সন্তান (জাতীয় পার্টি) বেঁচে থাকবে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর গুলশানের ইমান্যুয়াল কমিউনিটি সেন্টারে জাতীয় পার্টি ঢাকা মহানগর উত্তর আয়োজিত দলের নব নিযুক্ত কো চেয়ারম্যান ও মহাসচিবের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে এরশাদ এ কথা বলেন।

নিজের ভাই জিএম কাদেরকে দলের কো-চেয়ারম্যান নিয়োগ এবং রুহুল আমিন হাওলাদার কে মহাসচিব পদে পুনর্বহালের সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল বলে উল্লেখ করে আত্মতৃপ্তি প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এরশাদ। তিনি বলেন, গোটা রাজনীতির জীবনে আমি যদি কোনো ভালো কাজ করে থাকি তাহলে তা হচ্ছে এই ঘোষণা। এতদিন আমি একটা চাপা কষ্ট নিয়ে ঘুরতাম। মনে শান্তি ছিল না, হাসি ছিল না। প্রতিনিয়ত দুশ্চিন্তা হত। ভাবতাম আমি না থাকলে এই জাতীয় পার্টির ভবিষৎ কি হবে! আমার সন্তানের কি হবে?

কিন্তু এখন আমি নিশ্চিত, আমার সন্তান বেঁচে থাকবে। এই একটি ঘোষনার মধ্য দিয়ে আমি বেঁচে থাকলাম। আমরা সন্তান জাতীয় পার্টি এবং তোমরা বেঁচে থাকলে আমার সব পাওয়া হয়ে যাবে। এর চেয়ে আর বেশি কিছু আমি চাই না।

বক্তব্যের শুরুতে এরশাদ জানান, এই অনুষ্ঠানে আসার জন্য আগ্রহ ছিল তার স্ত্রী এবং সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদের। এরশাদ বলেন, একটা কথা বলি, একটু আগে মঞ্চে বসা থাকার সময় রওশন ফোন করেছিলেন। আমাকে বললেন তুমি কোথায়? আমি বললাম আমার ভাই এর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আছি। তিনি আমাকে জিজ্ঞেস করলেন আমাকে নিলে না কেন? আমাকে নিয়ে যেতে পারতে। আমি বললাম এখানে তো আমারো আসার কথা ছিল না, অনেকটা হঠাৎ করেই এসে পড়েছি।

দলে সাম্প্রতিক দুটি পরিবর্তনের ঘটনায় স্ত্রী রওশন এরশাদের সঙ্গে তাঁর কার্যত যে কোনো দূরত্ব নেই, সম্ভবত তা বোঝাতেই এরশাদ নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে এ কথা বলেন। এরশাদ যখন মিষ্টি হাসিতে রওশনের সঙ্গে কথোপকথনের কথা বলছিলেন, তখন নেতা-কর্মীদের হাততালি ও সেøাগান দিতে দেখা যায়।

এরপর দলের কর্মী সংগঠকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, এই অনুষ্ঠানে আমার আসার কথা ছিল না, তবু আমি এসেছি। আমি শুধু এসেছি তোমাদের জন্য। তোমাদের দেখে ভালো লাগল, দুঃখ বেদনা হতাশা দূর হয়ে গেল। বক্তব্যে জাতীয় পার্টির পুনঃর্বহাল মহাসচিব এবিএম রহুল আমিন হাওলাদার এর প্রশংসা এবং সাবেক মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর সমালোচনাও করেন তিনি।

তিনি বলেন, রুহুল আমিন ১৪ বছর দলের মহাসচিব ছিল। কিন্তু আমি তাকে সরিয়ে দেয়ার পর কোনোদিন আমার বিরুদ্ধে একটি কথা বলে নি। এই হচ্ছে আনুগত্য, এই হচ্ছে ভালোবাসা, এই হচ্ছে প্রেম। আর একজনকে মহাসচিব করেছিলাম আমার ভাইকে পদ দেয়ার কারনে তিনি আমাকে আমার পার্টি থেকে বহিষ্কার করে দিলেন। এটা কোনো কথা হতে পারে?

উপস্থিত কর্মী সমর্থকরা তখন সমস্বরে বলে ওঠেন, না..না..না বাবলু বেঈমান...বেঈমান।

নিজের ভাই জিএম কাদের সম্পর্কে তাদের উদ্দেশ্যে এরশাদ বলেন, এতদিন তোমরা আমার কথা শুনেছ, এখন থেকে আমার ভাই এর কথা শুনবে। তার কথা মেনে চলবে। আমার ভাই স্পষ্ট কথা বলে। সবার মধ্যে দেি তোষামোদের প্রবণতা। এটা আমি পছন্দ করি না। তোমরা যে বল আমি অমুক..তমুক আমার দুঃখ লাগে। আমি ভালো কি মন্দ তা জনগণ বিচার করবে। আমাকে শুধু বলবে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান, আর কিছু নয়।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির নব নিযুক্ত কো চেয়ারম্যান জি এম কাদের, মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হওলাদার, জাতীয় পার্টি ঢাকা মহানগর উত্তর এর সভাপতি এস এম ফয়সল চিশতি, মীর আব্দুস সবুর আসুদ ও অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: