১৯ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

প্রতিশ্রুতি বলতে শুধু ভাল খেলা


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ‘দক্ষিণ এশিয়ার অলিম্পিক গেমস’ খ্যাত সাউথ এশিয়ান গেমস (এসএ গেমস) ক্রীড়া আসরে অংশ নিতে বুধবার সকালে ভারতের শিলংয়ের উদ্দেশে রওনা হয় বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা ফুটবল দল। আর পুরুষ ফুটবল দল (বাংলাদেশ অলিম্পিক দল) গৌহাটির উদ্দেশে রওনা হবে বৃহস্পতিবার। উভয় দলেরই লক্ষ্য ভাল ফল করা।

বুধবার বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) ভবনে এ উপলক্ষে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন ন্যাশনাল টিমস কমিটির চেয়ারম্যান এবং বাফুফের সহ-সভাপতি কাজী নাবিল আহমেদ এমপি, পুরুষ ফুটবল দলের ম্যানেজার সত্যজিৎ দাস রূপু, দলনেতা হাসানুজ্জামান খান বাবলু, বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ, পুরুষ দলের কোচ গঞ্জালো সানচেজ মরেনো, সহকারী কোচ সৈয়দ গোলাম জিলানী এবং অধিনায়ক রেজাউল করিম। নাবিল তার বক্তব্যে বলেন, ‘সম্প্রতি অতীতের ব্যর্থতা ভুলে এবার ভাল কিছু উপহার দেবে বাংলাদেশ অলিম্পিক দল। গ্রুপিংটাও বেশ ভাল হয়েছে। প্রথম ম্যাচ জিতলেই সেমিফাইনালে এক পা বাংলাদেশের। দলের স্প্যানিশ কোচ গঞ্জালোর ওপরও আস্থা আছে আমাদের। তার কাছে আমাদের মূল বক্তব্য হচ্ছেÑ ফলটা অবশ্যই ভাল করার জন্য। বেশকিছু সমস্যা ছিল। তার সঙ্গে কথা বলে জানতে পেরেছি সেগুলো কাটিয়ে উঠা সম্ভব হয়েছে। দল নিয়ে তিনি সন্তুষ্ট।’

বাংলাদেশ জাতীয় দল এবং অলিম্পিক দলের সম্প্রতি পারফর্মেন্সে এই দলকে নিয়ে শিরোপা প্রত্যাশা করা কতটা যৌক্তিক? কেননা এই দল খেলেছে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে। জাতীয় দলের ৬ ফুটবলার আছেন এই দলে। নাবিলের জবাব, ‘বৃক্ষ তোমার নাম কি? ফলে পরিচয়। প্রস্তুতি যেমনই হোক না কেন, ফলটা কি হলো, সেটাই হচ্ছে আসল মূল বিষয়। আমাদের অনেক আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা হয়েছে। প্রস্তুতির কোন অভাব আছে বলে মনে হয় না। এই খেলোয়াড়রাই ঘুরে ফিরে বিভিন্ন কোচের অধীনে খেলেছে। প্রধান বিষয় হলো মাঠে ৯০ মিনিট খেলাটা। শেষ মিনিটে গোল খেলে চলবে না। শেষ বাঁশিটা বাজা পর্যন্ত পারফর্মেন্স করাটাই মুখ্য বিষয়।’

কোচ গঞ্জালো তার বক্তব্যের শুরুতে বাংলায় ‘ধন্যবাদ, শুভ সকাল!’ বলে সবাইকে চমকে দিলেন। পরে মূল প্রসঙ্গে গিয়ে বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য ম্যাচ বাই ম্যাচ জেতা। প্রধান লক্ষ্য ভুটানকে হারানো। এর পরের ম্যাচটা দেখা যাক কি হয়।’

এসএ গেমসের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ। শিরোপা ধরে রাখা কতটা সম্ভব? ‘যেহেতু নেপাল, ভুটান আছে আমাদের গ্রুপে, তাই সেমিফাইনালে যাওয়াটা খুব সহজ হবে না। তবে সম্ভাবনা আছে। আমরা যদি ম্যাচে মনযোগ দিয়ে আমাদের করণীয় কাজগুলো ঠিকঠাক করতে পারি এবং নিজেদের খেলাটা খেলতে পারি, তাহলে অবশ্যই লক্ষ্যপূরণ সম্ভব।’ অপর এক প্রশ্নের জবাবে গঞ্জালো বলেন, ‘মালদ্বীপ অনেক কঠিন দল। ভুটান এবং নেপালও ফেলনো নয়। তবে বাংলাদেশ অনেক উন্নতি করেছে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় আমাদের দলের ডিফেন্স অনেক শক্ত। খুব ভাল মিডফিল্ড এবং ভাল স্ট্রাইকার। আমি মনে করি টিম পরিবর্তন হয়েছে। মালদ্বীপ থেকে অবশ্যই বাংলাদেশ বেশি ভাল দল।’

দলীয় অধিনায়ক রেজাউল করিম বলেন, ‘ বিগত সময়ে আমরা সাফ সুজকি কাপ এবং বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ খেলেছি। সেখানে আমরা আশাব্যঞ্জক ফল আনতে পারিনি। তবে আশাবাদী এবারের এসএ গেমসে আমরা ভাল করব। গত আসরের শিরোপা ধরে রাখার দৃঢ় মানসিকতা রয়েছে আমাদের সবার মধ্যে এবং সোনা জিতেই দেশে ফিরব ইনশাল্লাহ।’ উল্লেখ্য, এসএ গেমসের এবারের আসরে ফুটবলে ‘বি’ গ্রুপে থাকা বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ হিসেবে আছে নেপাল ও ভুটান। গতবারের এসএ গেমসে আফগানিস্তানকে হারিয়ে স্বর্ণ জিতেছিল বাংলাদেশ। পারিবারিক সমস্যার জন্য এসএ গেমসে খেলতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন ফরোয়ার্ড সাখাওয়াত হোসেন রনি। তার পরিবর্তে দলে এসেছেন নাবিব নেওয়াজ জীবন।

৯ ফেব্রুয়ারি ভুটানের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে এবারের এসএ গেমসের মিশন শুরু করবে গঞ্জালোর শিষ্যরা। ১১ ফেব্রুয়ারি নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে নেপালের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

ভারত যাওয়ার আগে বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা ফুটবল দলের নতুন অধিনায়ক-ফরোয়ার্ড সাবিনা খাতুন বলেন, ‘আমরা তিন মাস ধরে এসএ গেমসের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি। সময়টা যদিও বেশি না, তবে দলের পারফর্মেন্সে অনেক উন্নতি এসেছে। খেলোয়াড়রা অনেক উজ্জীবিত ও চ্যালেঞ্জ গ্রহণে তৈরি।’ মহিলা ফুটবল দলের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন বলেন, ‘আগের আসরে আমাদের দল ছিল অনভিজ্ঞ। এবার আমরা যাচ্ছি কিছু অভিজ্ঞ ফুটবলার নিয়ে। তাই আমার মনে হয় আগে যেভাবে প্রতিপক্ষকে ভয় পেয়ে বা বাড়তি সম্মান দিয়ে খেলতে নামতাম সেই অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। এই দলকে নিয়ে ফাইনালে খেলার আশা করতেই পারি।’

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: