২৪ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ২ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আদায় করা বাড়তি অর্থ সাত দিনের মধ্যে ফেরত দিতে হবে


 শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আদায় করা বাড়তি অর্থ সাত দিনের মধ্যে ফেরত দিতে হবে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বেতন ও ফি হিসেবে এবং এসএসসির ফরম পূরণের সময় আদায় করা বাড়তি টাকা ফেরত দিতে সাতদিন সময় বেঁধে দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি বলেছেন, ওই টাকা শিক্ষার্থীদের ফেরত দিয়ে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডকে তা অবহিত করতে হবে। সাত কার্যদিবসের মধ্যে টাকা ফেরত না দিলে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নতুন বেতন কাঠামোতে সরকারী চাকুরেদের বেতন বাড়ার যুক্তি দেখিয়ে ঢাকা ও চট্টগ্রামের অধিকাংশ বেসরকারী স্কুল-কলেজে শিক্ষার্থীদের বেতন নতুন বছরের শুরুতে ব্যাপক হারে বাড়ানো হয়, যার প্রতিবাদে রাস্তায় নামেন অভিভাবকরা। এই প্রেক্ষাপটে গত ১৭ জানুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয় বর্ধিত বেতন ও ফি আদায় না করার নির্দেশ দেয়। এর আগে গত বছর ১ ডিসেম্বর হাইকোর্টের এক আদেশে এসএসসির ফরম পূরণে বোর্ড নির্ধারিত ফির চেয়ে বেশি অর্থ আদায়কারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়।

বুধবার সচিবালয়ে শিক্ষামন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, এসএসসির ফরম পূরণের সময় বোর্ড নির্ধারিত অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ পাওয়া যায়। হাইকোর্ট অর্থ আদায়কারী প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্যদকে অকার্যকর করে একটি রুল জারি করেছে। এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকেও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এসএসসির ফরম পূরণের সময় অতিরিক্ত অর্থ আদায় করেছে শিক্ষা বোর্ড তাদের তালিকা করেছে। এসব প্রতিষ্ঠানকে সুযোগ দিচ্ছি, সাত কার্যদিবসের মধ্যে এই টাকা ফেরত দিয়ে বোর্ডকে অবহিত করলে তালিকা থেকে নাম বাদ দেয়া হবে। আর যেসব প্রতিষ্ঠান সরকারের অনুমোদন ছাড়াই ভর্তি ফি, সেশন ফি, টিউশন ফি আদায় করেছে, সাতদিনের মধ্যে সেসব প্রতিষ্ঠানের তালিকা করতে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

তিনি বলেন, বর্ধিত হারে আদায় করা অর্থ আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে ফেরত দিয়ে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ডকে জানালে তালিকায় তাদের নাম রাখা হবে না। যারা এই সময়ের মধ্যে বাড়তি টাকা ফেরত দেবে না, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কারও বিরুদ্ধে আর ‘নমনীয়তা দেখানো সম্ভব নয়’ মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, অনেক অভিভাবক এ নিয়ে উদ্বিগ্ন। এ ধরনের বিষয় চলতে দেয়া যাবে না। প্রতিবারই কেউ না কেউ কিছু কিছু টাকা বেশি নেয়। যারা বেশি টাকা নিয়েছে তাদের একটা সুযোগ দিচ্ছি। নিজেরা নিজেদের স্বার্থ বিবেচনা করে, মর্যাদা রক্ষা করে এই অর্থ ফেরত দিয়ে বোর্ড ও মন্ত্রণালয়কে জানাবেন। তাহলে অন্তত জনসম্মুখে হেয় হবেন না। প্রতিষ্ঠানের সম্মান, ইজ্জত, মর্যাদা রক্ষায় সাতদিনের মধ্যে টাকা ফেরত দিলে অসম্মান হবেন না, স্কুলেরও মর্যাদাহানি হবে না। বেসরকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বাড়তি অর্থ আদায় বন্ধে অভিভাবকদের সহযোগিতাও চান মন্ত্রী।