১৮ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বিএনপি প্রার্থীর সঙ্গে কেউ নেই


নিজস্ব সংবাদদাতা, ঝালকাঠি, ২২ ডিসেম্বর ॥ যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে, তবে একলা চলরে’ কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কালজয়ী এই গানের পথ ধরেই হাঁটছেন ঝালকাঠির নলছিটি পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী মজিবুর রহমান। দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার কেন্দ্রীয় নির্দেশনাকে ভ্রƒক্ষেপ করছেন না স্থানীয় বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। দলীয় প্রার্থীর পক্ষে গণসংযোগ, প্রচার, লিফলেট বিতরণ এবং ভোটারদের কাছে ভোটপ্রার্থনা কোন কাজেই অংশ নিচ্ছেন না উপজেলা বিএনপির সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) খন্দকার অহিদুল ইসলাম বাদল ও সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম শাহীন। বিএনপির এই দুই নেতার মাঠে অনুপস্থিতির প্রভাব পড়ছে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মাঝেও। প্রার্থীর পক্ষে প্রচারে নামতে সাহস পাচ্ছে না কর্মী-সমর্থকরা। ১৪ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দের পরপরই দুপুরে কয়েকটি লিফলেট নিয়ে জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ অল্প সময়ের জন্য মেয়র প্রার্থী মজিবুর রহমানকে নিয়ে প্রচারণায় নামে। বাসস্ট্যান্ড থেকে শহরের চৌ-মাথা পর্যন্ত গিয়ে শেষ করে প্রচার। মিডিয়ার সামনে ছবি তুলতে সেসময় নলছিটি বিএনপির কয়েক নেতা সঙ্গে ছিলেন। এর পর থেকে দলীয় মেয়র প্রার্থীকে একা অথবা পরিবারের লোকজনকে নিয়ে ভোট প্রার্থনায় দেখা যায়। এ সুযোগে মাঠের পুরোটাই দখলে নিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী তছলিম উদ্দিন চৌধুরী।

তবে বিএনপির নেতাকর্মীরা বলছেন, দলীয় প্রার্থীর পক্ষে নামতে কোন অসুবিধা নেই। যেহেতু প্রতীক ধানের শীষ, তাই বিএনপি অধ্যুষিত এখানকার ভোটারের মন জয় করতে প্রতীকই যথেষ্ট বলে দাবি করেছে তারা। প্রচারে অংশ না নেয়ার বিষয়টি এড়িয়ে স্থানীয় নেতারা জানিয়েছেন, মজিবুর রহমান পৌরসভার সাবেক মেয়র ছিলেন। দলীয় নেতাকর্মীরা প্রকাশ্যে কাজ না করলেও গোপনে মাঠে রয়েছে। যে যার অবস্থানে থেকে ভোটারের কাছে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট চাইছেন। প্রকাশে বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে প্রচারে নেমে, আওয়ামী লীগ প্রার্থীর চোখে পড়তে চাইছে না তারা। ভবিষ্যতে মামলা হামলার হাত থেকে রক্ষা পেতেও কৌশল অবলম্বন করছে বিএনপি নেতারা।

জানা যায়, নির্বাচনের আর অল্প কয়েকদিন বাকি থাকলেও নলছিটি উপজেলা বিএনপির সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) খন্দকার অহিদুল ইসলাম ঢাকায় অবস্থান করছেন। সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম শাহীন স্থানীয় সুবিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান থাকায় পরিষদের কাজ নিয়েই তিনি ব্যস্ত থাকেন। বিএনপির এই দুই কুশীলব এখনও দলীয় প্রার্থীর পক্ষে প্রচারে অংশ নেননি। মাঝে মধ্যে লিফলেট বিতরণে স্বল্প সময়ের জন্য দেখা গেছে পৌর বিএনপির সভাপতি সেলিম গাজীকে। সাধারণ সম্পাদক নিজেই ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী হওয়ায় নিজের প্রচার নিয়েই ব্যস্ত তিনি। যুবদল, ছাত্রদল ও শ্রমিক দলের কোন নেতাকেও দেখা যাচ্ছে না বিএনপি মনোনীত প্রার্থীর সঙ্গে। ১৪ ডিসেম্বরের পর বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মজিবুর রহমান হেঁটে কখনও একা কখনও পরিবারের দু’একজন সদস্যকে নিয়ে শহরতলির ভোটারদের বাড়িতে বাড়িতে যাচ্ছেন।

নলছিটি উপজেলা বিএনপির সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) খন্দকার অহিদুল ইসলাম বাদল বলেন, আমি ব্যক্তিগত কাজে ঢাকায় থাকলেও কিছুদিনের মধ্যে এলাকায় আসব। এছাড়াও আমি দলের নেতাকর্মীদের মজিবুর রহমানের পক্ষে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট চাওয়ার জন্য বলেছি।