১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

এনজিওর তত্ত্বাবধানেই থাকতে চান দিল্লির সেই ধর্ষক


অনলাইন ডেস্ক ॥ মুক্তি মিললেও বাইরে জনবিক্ষোভের ভয়ে এনজিও’র তত্ত্বাবধানেই থাকতে চায় ভারতের নয়া দিল্লিতে নির্ভয়া ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত কিশোর।

ব্যাপক বিক্ষোভ-প্রতিবাদের মধ্যেই রোববার ওই কিশোর সংশোধনাগার থেকে মুক্তি পান। তাকে আটকে রাখার দাবিতে প্রতিবাদ চলছে এখনও।

এনডিটিভি জানিয়েছে, নিজের বাড়ি উত্তর প্রদেশের বাদাউ’তে গেলে ‘হামলার শিকার হতে পারে’ এমন ভয়ে মুক্তির পরও তত্ত্বাবধানকারী এনজিও’র কাছে থাকার সম্মতি দিয়েছে ওই কিশোর।

“সে ছাড়া পেয়ে গেছে, এটা পুরোপুরি ঠিক নয়। চার-পাঁচদিন আগেই তাকে সংশোধনাগার থেকে স্থানান্তর করে অজ্ঞাত একটি স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। একটি এনজিও তার দেখভাল করছে,” বলেন নাম না প্রকাশ করা পুলিশের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

তবে কবে ও কোথায় অভিযুক্ত কিশোরকে স্থানান্তর করা হয়েছে, তা জানাননি তিনি। সরকার এবং আদালত সূত্রগুলোও এ ব্যাপারে একেবারেই ‘চুপ’।

সোমবার সকালে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন বেঞ্চ ওই কিশোরের মুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করে।

তার আগে শনিবার দিল্লি কমিশন ফর উইমেন (ডিসিডাব্লিউ) এর প্রধান স্বাতী মালিওয়াল আসামির মুক্তি আটকাতে একটি আবেদন করেছিলেন। তার পরিপ্রেক্ষিতে দুই সদস্যের ওই বেঞ্চ কিশোরের মুক্তি পরবর্তী নিরাপত্তা ও সংশোধনের বিষয়ে পদক্ষেপ নিতেও নির্দেশ দিয়েছে।

কিশোরের সাজার মেয়াদ আরও বাড়াতে এর আগে ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নেতা সুব্রামানিয়াম স্বামী দিল্লি হাই কোর্টে একটি আবেদন করলেও শুক্রবার তা নাকচ হয়ে যায়।

বিচারক বলেন, “এই বিষয়টির গুরুত্ব নিয়ে আমাদের মনে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু আইন অনুযায়ী ওই কিশোরকে ২০ ডিসেম্বরের পর সংশোধনাগারে রাখা সম্ভব না।”

নিহত শিক্ষার্থীর বাবা-মাসহ অনেক মানুষ আদালতের এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানায়। তারা রোববার সকালে দিল্লিতে একটি প্রতিবাদ মিছিল করতে চেয়েছিল। কিন্তু পুলিশি বাধার মুখে তা পণ্ড হয়ে যায়।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: