২২ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

রাষ্ট্রপক্ষের অগোচরে পলাতক জামায়াত নেতার জামিন


অনলাইন রিপোর্টার ॥ তিন বছর ধরে পলাতক জামায়াত নেতা জাকির হোসেনকে রাজধানীর উত্তরা থানার নাশকতার দুই মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর অগোচরে জামিন দেওয়ার ঘটনায় প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে আদালতপাড়ায়।

জাকির হোসেন গত ৮ ডিসেম্বর আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলে তা মঞ্জুর করেন মহানগর হাকিম ওয়ায়েজ কুরুনি খান চৌধুরী।

আইনজীবীরা জানান, সেদিন ৩ নম্বর দ্রুত বিচার আদালতের বিচারক ছুটিতে থাকায় ভারপ্রাপ্ত বিচারক মহানগর হাকিম (মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট) ওয়ায়েজ কুরুনি টোকেন পাঠিয়ে মামলার নথি সংগ্রহ করে রাষ্ট্রপক্ষের কোনো আইনজীবীর বক্তব্য না শুনেই পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় জাকিরকে জামিন দেন।

এ ঘটনায় আদালতপাড়ার সাংবাদিকদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মামলা দুটির বিচারাধীন আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আজাদ রহমান। তিনি বলেন, মামলা দুটিতে জামিনের ব্যাপারে চরম অনিয়ম করা হয়েছে। আমাকে মামলার জামিনের দরখাস্ত দেখানো হয়নি। নিয়ম অনুযায়ী যে কোনো আবেদন রাষ্ট্র ও আসামি দুই পক্ষেরই শুনানি নিয়ে মঞ্জুর অথবা নামঞ্জুর করতে হয়।

আজাদ রহমান জানান, জামিনের তথ্য ও জামিন প্রক্রিয়া নিয়ে সবিশেষ অনুসন্ধানে নিশ্চিত সময় লাগায় বিষয়টি প্রকাশ্যে আনতে দেরি হয়েছে। তার জামিন বাতিলে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে আবেদন জানানো হবে।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ২০১২ সালের ২৪ নভেম্বর সরকারবিরোধী অবরোধ চলাকালে বিকাল ৪টা ৪০ মিনিটে উত্তরার ৪নং সেক্টরে সী-শেল চাইনিজ রেস্টুরেন্টের সামনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে মিছিল বের করা হয়। এসময় মিছিল থেকে গাড়ি ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে ত্রাস সৃষ্টি করা হয়।

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বানচাল এবং বহির্বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি ঘটানোর লক্ষ্যে জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির ড. শরীফুর রহমানের নেতৃত্বে ওই মিছিল বের করা হয়।

এ ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে সেখান থেকে ১৫ জন গ্রেপ্তার হয়। এরপর ৪৫ জনের নাম উল্লেখ করে ১৫০/২০০ জন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে আসামি করে উত্তরা পূর্ব ও উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা করে পুলিশ।

জাকির হোসেন দুই মামলায় এজাহাভুক্তি আসামি। তিনি তিন ধরে বছর পলাতক ছিলেন।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: