মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১১ আশ্বিন ১৪২৪, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

নৃত্যশিল্পী তুষার চক্রবর্তীর এগিয়ে চলা

প্রকাশিত : ২১ ডিসেম্বর ২০১৫
নৃত্যশিল্পী তুষার চক্রবর্তীর এগিয়ে চলা

সাজু আহমেদ ॥ দেশের প্রতিভাবান তরুণ নৃত্যশিল্পী ও নৃত্য পরিচালক তুষার চক্রবর্তী। দীর্ঘ দিন ধরেই বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নিয়মিত নৃত্য পরিবেশনা ও পরিচালনার পাশাপাশি নৃত্য প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছেন। নৃত্য চর্চার পাশাপাশি তিনি দেশের হারিয়ে যাওয়া লোক নৃত্যের অনুসন্ধানে কাজ করছেন। নিজের সংগঠন নবচেতনা সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের মাধ্যমে বিভিন্ন স্টেজ শো এবং বিটিভিসহ বিভিন্ন স্যাটেলাইট চ্যানেলে নিয়মিত নৃত্যালেখ্য, নৃত্যনাট্য, উচ্চাঙ্গ নৃত্য পরিবেশন করে থাকেন। তুষার চক্রবর্তী ধ্রুব পরিষদের সিনিয়র পরীক্ষক হিসেবে ২০০২ সাল থেকে দেশের বিভিন্ন জেলা ভ্রমণ করেন। তিনি ২০১০ সাল থেকে ঢাকা কেন্দ্রীয় উদীচীর নৃত্য বিভাগের মাধ্যমে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দেশের হারিয়ে যাওয়া লোকনৃত্য উপস্থাপন এবং দেশের মৌলিক লোকনৃত্য জনপ্রিয় করতে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরছেন।

যশোর নৃত্য বিতান এবং উদীচীতে দীর্ঘদিন নৃত্য প্রশিক্ষক হিসেবে কাজ করেন তুষার চক্রবর্তী। তার পরিচালনায় মঞ্চে পরিবেশিত হয় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক বেশ কয়েকটি নৃত্যনাট্য এবং নৃত্যালেখ্য। এর মধ্যে রয়েছে ‘ও আমার বাংলা মা’, ‘স্বাধীনতার অম্লান পতাকা’ এবং লোকনৃত্যের মধ্যে ‘মহুয়া’, ‘রহিম রূপবান’, ‘ফুলকোচা’ উল্লেখযোগ্য। এ ছাড়া তিনি কয়েকটি মঞ্চ নাটকেও কোরিওগ্রাফি করেছেন। ২০১৩ সালে বাংলাদেশ গেমসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের কোরিওগ্রাফার হিসেবে কাজ করে প্রশংসিত হোন। তিনি স্বপ্ন দেখেন দেশের এসব মৌলিক লোকনৃত্য তিনি সারা বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরবেন এবং নতুন প্রজন্মকে এগুলো রক্ষায় উৎসাহিত করবেন। তার বিশেষ মৌলিক লোকনৃত্যের মধ্যে আছে রায়বেশে, অষ্টক, ঢালী, কালীকাচ, হলুই, ধামাইল, গাজন, কাঠি ইত্যাদি। সফল নৃত্যশিল্পী হিসেবে সারাজীবন কাজ করতে চান তুষার চক্রবর্তী। দেশের এসব লোকনৃত্য নিয়ে গবেষণার পাশাপাশি দেশে জনপ্রিয় করতে কাজ করছেন। লোকনৃত্য নিয়ে কাজ করতে তিনি সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা চান।

তুষার চক্রবর্তী জানান দেশের কিছু সঙ্গীত, নৃত্য এবং নাট্যশিল্পী যারা তাকে মানসিকভাবে সব সময় শক্তি যোগাচ্ছেন। আমেরিকায় অবাক সংগঠনের প্রতিষ্ঠতা রাশেদ হোসেন সব সময় তাকে এ কাজে উৎসাহ দান করছেন। এ ছাড়া নৃত্যশিল্পী মীনু হক, মাহফুজুর রহমান, ওয়ার্দা রিহাব, প্রেমা, এম আর ওয়াসেকসহ অনেকেই তাকে উৎসাহ দিয়ে থাকেন। তুষার চক্রবর্তীর জন্ম যশোর জেলায় ১৯৮১ সালে।

পিতা-মাতা এবং তার গুরু সঞ্জীব চক্রবর্তীর উৎপ্রেরণায় ৭ বছর বয়স থেকে নৃত্য চর্চা শুরু করেন। ১৫ বছর বয়সে মঞ্চে কাজ শুরু করেন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি উদয়শংকর কনটেমপররি এবং ভরতনাট্যম বিষয় শিক্ষা গ্রহণ করছেন ড. অর্কদেব ভট্টাচার্যের কাছে কিন্তু তুষার চক্রবর্তী নিজেকে লোক নৃত্যের পূজারী হিসেবে পরিচয় দিতে ভালবাসেন। তিনি বলেন নিজের শেকড়কে ভুলে গেলে নিজের অস্তিত্ব থাকবেনা। তাই আমাদের এগুলো রক্ষায় এগিয়ে আসা উচিত ।

প্রকাশিত : ২১ ডিসেম্বর ২০১৫

২১/১২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: