২৫ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

দর্শকের ভালবাসায় মুগ্ধ আমি ॥ মাশরাফি


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ‘দর্শকের ভালবাসায় আমি অভিভূত। তারা আমাকে ভোট দেয়ায় তাদের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। সারাজীবন দর্শকদের ভালবাসার প্রতিদান দেয়ার চেষ্টা করব’। কথাগুলো বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ওয়ানডে ও টি২০ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার।

শনিবার বাংলাদেশ ক্রীড়ালেখক সমিতির (বিএসপিএ) বর্ষসেরা পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এই মন্তব্য করেন মাশরাফি। ক্রীড়ালেখক সমিতি ২০১৩ ও ২০১৪ সালে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে সেরাদের পুরস্কৃত করেছে। দর্শকদের সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে মাশরাফি জিতেছেন ‘কুল বিএসপিএ রিয়েল স্পোর্টসম্যান এ্যাওয়ার্ড’ পুরস্কার। প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে ম্যাশ বলেন, আমি খুব খুশি। দর্শকরা যে আমাকে কতটা ভালবাসে সে প্রমাণ আরও একবার পেলাম। এছাড়া বাংলাদেশের ক্রিকেট ও অন্যান্য প্রসঙ্গেও কথা বলেন নড়াইল এক্সপ্রেস। বিপিএল ও আসন্ন টি২০ বিশ্বকাপ প্রসঙ্গে মাশরাফি বলেন, বিপিএল ও টি২০ বিশ্বকাপ দু’টি আলাদা আসর। ভারতের উইকেটের সঙ্গে আমাদের তেমন মিল নেই। তবে আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব সেরাটা দিয়ে বাংলাদেশের মাথা উঁচু করতে।

বাংলাদেশ শুধু ক্রিকেট দিয়েই বহির্বিশ্বে পরিচিত হবে না। অন্যান্য খেলাধুলাতেও সাফল্য আসবে বলে মনে করেন মাশরাফি। এ প্রসঙ্গে তার ভাষ্য, আমি আশা করব শুধু ক্রিকেটই নয়, অন্যান্য খেলাতেও বাংলাদেশ সাফল্য পাবে। আমি মনে করি সে সামর্থ্য খেলোয়াড়দের আছে। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের (এনএসসি) অডিটোরিয়ামে বর্ণাঢ্য ও জমকালো অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন মাশরাফি। বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম ২০১৩ সালের বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার জয় করেন। প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে মামুনুল বলেন, ভাল লাগছে এই পুরস্কার জিতে। এটি আমাকে আরও ভাল করতে অনুপ্রাণিত করবে। বর্ষসেরা সংগঠক শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের প্রেসিডেন্ট মনজুর কাদের বলেন, বিএসপিএ আমাকে সম্মানিত করায় আমি তাদের কাছে কৃতজ্ঞ। ফুটবলকে ভালবাসি তাই এর ভালর জন্য সবকিছু করব আমি। ২০১৩ সালের বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদের পুরস্কার ‘এসএ মহসীন ট্রফি’ পেয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম। ওই বছর টেস্ট ক্রিকেটে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে দেশের হয়ে প্রথম ও একমাত্র ডাবল সেঞ্চুরির কীর্তিগাথা রচনা করেন বগুড়ার এই কৃতী ক্রিকেটার। তারই স্বীকৃতি পেয়েছেন তিনি। তবে পারিবারিক কারণে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেননি মুশি। অবশ্য ভিডিও বার্তায় সবার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। ২০১৩ সালে অন্যান্য ক্যাটাগরিতে পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলেন- বর্ষসেরা ক্রিকেটার সোহাগ গাজী, বর্ষসেরা ফুটবলার মামুনুল ইসলাম, বর্ষসেরা দাবাড়– ফাহাদ রহমান, বর্ষসেরা সাঁতারু মাহফিজুর রহমান সাগর, বর্ষসেরা ভারোত্তোলক জোহুরা আক্তার রেশমা, বর্ষসেরা আর্চার ইমদাদুল হক মিলন, বর্ষসেরা কোচ (ফুটবল) মারুফুল হক, বর্ষসেরা সংগঠক প্রয়াত কাজী মাহতাব উদ্দিন আহমেদ, বর্ষসেরা পৃষ্ঠপোষক এক্সিম ব্যাংক লিমিটেড, বর্ষসেরা উদীয়মান (ক্রিকেট) মুমিুনল হক ও বিশেষ সম্মাননা গোলাম সারোয়ার টিপু।

২০১৪ সালের বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদের পুরস্কার জয় করেন শ্যূটার আব্দুল্লাহ হেল বাকি। এই বছরের বর্ষসেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার বাজিমাত করেন মুশফিকুর রহীম। অন্যান্য বিভাগে বিজয়ীরা হলেন- ফুটবলে নাসিরউদ্দিন চৌধুরী, হকিতে হাসান যুবায়ের নিলয়, বর্ষসেরা কোচ (ফুটবল) গোলাম রব্বানী ছোটন, সেরা সংগঠক মনজুর কাদের, পৃষ্ঠপোষকতায় সেরা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, বর্ষসেরা উদীয়মান (ফুটবল) হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাস ও বিশেষ সম্মাননা পেয়েছেন প্রমীলা এ্যাথলেট মিউরেল গোমেজ।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: