২৩ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ভবনের কার পার্কিংয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও দোকানের তালিকা চেয়েছে হাইকোর্ট


স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজধানী ঢাকাজুড়ে সড়কের পাশে নির্মিত যেসব ভবনের কার পার্কিংয়ের জায়াগায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও দোকান নির্মাণ করা হয়েছে তার তালিকা চেয়েছে হাইকোর্ট। একই সঙ্গে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আগামী দুই মাসের মধ্যে তালিকা তৈরি করে আদালতে দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। এছাড়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অপসারণে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না, রুলে তাও জানতে চেয়েছেন আদালত।

জনস্বার্থে করা এক রিট আবেদনের শুনানি শেষে মঙ্গলবার হাইকোর্টের বিচারপতি জিনাত আরা ও বিচারপতি সাহিদুল হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন এ্যাডভোকেট মনিজল মোরশেদ এবং রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি এ্যাটর্নি জেনারেল তাইতাস হিল্লোল।

এর আগে হিউম্যান রাইটস এ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ এ সংক্রান্ত একটি রিট আবেদন দায়ের করেন আসাদুজ্জামান সিদ্দিক। রিটে বলা হয়, রাজধানীতে যানজটের অন্যতম কারণ রাস্তার পাশে নির্মিত ভবনে কার পার্কিংয়ের স্থানে দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তৈরি করা। কেননা, জায়গা না থাকায় রাস্তায় কার পার্কিং করা হয়। এতে যানজটের সৃষ্টি হয়। ঢাকার যানজট চরম আকার ধারণ করেছে। গুলশান, বনানী ও বারিধারায় ২০৮টি অবৈধ স্থাপনার তালিকা তৈরি করলেও রাজউক কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি বলেও রিটে বলা হয়।

প্রাইভেট গাড়ির অগ্রিম আয়কর কেন বেআইনী নয় : হাইকোর্ট ॥ প্রাইভেট গাড়ি, জিপ ও মাইক্রোবাসের ওপর বার্ষিক অগ্রিম আয়কর আরোপের প্রজ্ঞাপন দুটি কেন বেআইনী ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট। মঙ্গলবার এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি জে এন দেব চৌধুরীর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রুল জারি করেন। আদেশে, আইন সচিব, অর্থসচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যানকে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

অগ্রিম আয়কর দেয়ার বিধান করে অর্থ মন্ত্রাণালয়ের জারি করা ২০০৯ ও ২০১২ সালের দুটি প্রজ্ঞাপনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রীমকোর্টের আইনজীবী মোঃ আবুল কাশেম ওই রিট আবেদন করেন। আদালতে রিট আবেদনকারীর পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মাসুদ আহমেদ সাঈদ ও সাকিনা বেগম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি এ্যাটর্নি জেনারেল রাশেদ জাহাঙ্গীর শুভ্র।