২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

লক্ষ্য শিরোপা ॥ নাফিস


লক্ষ্য শিরোপা ॥ নাফিস

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ শুরু থেকেই দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখিয়েছে বরিশাল বুলস। প্রাথমিক পর্বে ৭ ম্যাচেই জয় তুলে নিয়েছে দলটি। তবে নেট রানরেটে পিছিয়ে থাকার কারণে তৃতীয় হয়েই শেষ চারে ওঠে তারা। সে কারণে কিছুটা বড় পরীক্ষায় অবতীর্ণ হয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করতে হয়েছে। দুটি ‘ডু অর ডাই’ ম্যাচ খেলেছে তারা এলিমিনেটর ও কোয়ালিফায়ার-২। এবার আরেকটি ‘ডু অর ডাই’ ম্যাচ, আর এটি জিতলেই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ (বিপিএল) টি২০ ক্রিকেটের তৃতীয় আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়ে যাবে বুলস। টুর্নামেন্টে এখন পর্যন্ত দেখানো নৈপুণ্যের ধারাবাহিকতা রাখার প্রত্যয় দলটির। এ বিষয়ে দলের অভিজ্ঞ টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান শাহরিয়ার নাফীস জানান, ফাইনাল দুই দলের জন্যই অনেক কঠিন হবে, কিন্তু স্বাভাবিক খেলে ভাল কিছু করার প্রত্যয় জানালেন তিনি সংবাদ সম্মেলনে। সবাই মিলে ভাল পারফর্ম করলে ফাইনালেও জেতার দাবি জানালেন শাহরিয়ার।

বিপিএলের শুরু থেকেই শীর্ষ চারেই ছিল বুলস। পরে দলের সঙ্গে যোগ দেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইল। যদিও ফাইনালের আগেই তার সঙ্গে চুক্তি শেষ হওয়াতে ফাইনালে গেইলকে ছাড়াই নামতে হচ্ছে বুলসকে। তাকে ছাড়াই দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে দারুণ এক জয় তুলে নিয়ে ফাইনালে উঠেছে বুলস। এ বিষয়ে নাফীস বলেন, ‘গেইল দলে নেই, তাতে সমস্যা হবে না।

ওকে ছাড়াও আমরা জিতেছি। সবাই মিলে যদি পারফর্ম করি, তবে কালকেও (আজ) আমরা জিততে পারব।’ পুরো টুর্নামেন্টেই দারুণ খেলার পর এখন মূল চ্যালেঞ্জ ফাইনালে। আরেকটি দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখানো দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে খেলতে হবে শিরোপা লড়াইয়ে। প্রতিপক্ষ নিয়ে শাহরিয়ার বলেন, ‘কুমিল্লা টুর্নামেন্ট জুড়ে ভাল খেলেছে। সুতরাং ভাল প্রতিপক্ষের বিপক্ষেই খেলতে হবে। ওদের আমরা যথেষ্ট সমীহ করছি। কালকের ম্যাচটি দুই দলের জন্যই কঠিন হবে।’ প্রাথমিক পর্বের ম্যাচ আর ফাইনালের মধ্যে বিস্তর ফারাক আছে। ফাইনালে থাকে বাড়তি একটা চাপ। কারণ টুর্নামেন্টের সেরা দুই দলের মধ্যে লড়াই। এ বিষয়ে শাহরিয়ার বলেন, ‘আমরা লীগ পর্ব এবং কোয়ালিফায়ারে ভাল খেলে ফাইনালে এসেছি। সেই খেলাটাই আমরা ধরে রাখতে চাই। আমরা ফাইনাল ভেবে নয়, আমরা নিজেদের স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে চাই। তাহলেই আশা করি ভাল কিছু হবে।’

গত দুই আসরেই বিপিএলের ফাইনালে ছিলেন বাংলাদেশের অধিনায়ক। প্রথম বিপিএলে ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্সের মাশরাফি বিন মর্তুজা ও বরিশাল বার্নার্সের ব্র্যাড হজ। আর দ্বিতীয় আসরে গ্ল্যাডিয়েটর্সের মাশরাফি ও চিটাগাং কিংসের মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। দু’বারই চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন মাশরাফি। এবার দ্বিতীয়বারের মতো আবার ফাইনালে শিরোপা লড়াইয়ে মুখোমুখি মাশরাফি-মাহমুদুল্লাহ। এ বিষয়ে শাহরিয়ার বলেন, ‘মাশরাফি ও রিয়াদ, দুজনেই ভাল অধিনায়ক। লীগ পর্বে তারা তা প্রমাণ করেছে। তবে কালকের (আজকের) ম্যাচ শুধু অধিনায়কদের মধ্যে নয়। কালকে (আজ) হবে দলগত খেলা। সবাইকে ভাল খেলতে হবে।’ অবশ্য বরিশাল বুলসের অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহকে নিয়ে একটি অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। আর সেই অনিশ্চয়তা তৈরি হওয়ার কারণ ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিক রিজওয়ান বিন ফারুক। তিনি দাবি করেছেন মাহমুদুল্লাহ কিছুটা ইনজুরিতে আছেন।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ কিছুটা ইনজুরিতে। তার ডাক্তারী পরীক্ষা চলছে। খুব গুরুতর কিছু নয়। আশা করছি সে আগামীকালের (আজকের) ম্যাচে খেলতে পারবে।’ বরিশালের ছেলে শাহরিয়ার পুরো আসরে তেমন ভাল খেলতে পারেননি। অবশ্য মাত্র ৪ ম্যাচই খেলার সুযোগ পেয়েছেন। তবে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে ৪৪ রানের একটি কার্যকরী ইনিংস উপহার দিয়েছেন। এবার ফাইনালেও তার কাছ থেকে ভাল কিছু পাওয়ার আশায় থাকবে বুলস। এ বিষয়ে শাহরিয়ার বলেন, ‘বরিশালের ছেলে হয়ে বরিশাল দলে খেলাটা আমাকে অনুপ্রাণিত করে এবং একই সঙ্গে এখানে আমার আবেগও আছে। আমি চেষ্টা করব ফাইনালে আরও ভাল খেলতে।’

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: