মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৬ আশ্বিন ১৪২৪, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

সরকারী চাকুরেদের পে-স্কেলের গেজেট চলতি সপ্তাহেই ॥ অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত : ১৫ ডিসেম্বর ২০১৫

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ চলতি সপ্তাহের মধ্যে সরকারী চাকুরেদের অষ্টম পে-স্কেলের গেজেট প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি আরও বলেন, বিশ্ব ব্যাংকের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক এখন যেমন আছে আমরা সেই রকমই চাই। বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধিকে বলা হয়েছে যে, আমরা বিশ্বব্যাংককে পার্টনার বলেই মনে করি। আর বিশ্বব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ কৌশিক বসু বলেছেন, বাংলাদেশ এতদিন স্বল্পোন্নত দেশ ছিল। এখন বাংলাদেশ নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে। নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশ কিন্তু ভারতও। সুতরাং বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক এখন নতুন একটি মানদ-ে (স্ট্যান্ডার্ড) উন্নীত হবে, যা অনেকটা পার্টনারশিপের মতো।

সোমবার বিশ্বব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ কৌশিক বসুর সঙ্গে হেয়ার রোডের সরকারী বাসভবনে বৈঠক করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। ওই বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তাঁরা এসব কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন নিয়ে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে যে ঝগড়া হয়েছিল সেটা এখন অতীত। সেটা আমাদের দ্বি-পাক্ষিক সম্পর্কে কোন প্রভাব ফেলেনি। পরবর্তীতে বিশ্বব্যাংক এ নিয়ে আর কোন কথা বলেনি। বরং এ বিষয়টি আমিই তার কাছে আবার তুলেছিলাম এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাত করতে গেলে তিনিও তাকে এ কথাটা বলেছেন।

বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রশংসা করে কৌশিক বসু বলেন, গত ৫-৬ বছরে বাংলাদেশ এক্সক্লুসিভ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে। পৃথিবীতে খুব কম দেশেই এটা হয়েছে। এটা অনেক বড় বিষয়। তবে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হতে হলে বিনিয়োগের হার ৩৩ থেকে ৩৪ শতাংশে উন্নীত করতে হবে।

বাংলাদেশের দুর্বলতার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, দুর্বলতা সব দেশেরই আছে। বাংলাদেশের যেমন আছে, আমেরিকারও আছে। একটি দেশের উন্নয়নের জন্য অবকাঠামো একটি বড় বিষয়। অবকাঠামো খাতে বাংলাদেশ অনেক উন্নতি করেছে, তবে এক্ষেত্রে আরও কাজ করতে হবে। এছাড়া ট্যাক্স-জিডিপি অনুপাত বাড়াতে হবে। এটা বাড়াতে পারলে বাড়তি রাজস্ব অবকাঠামো খাতে ব্যয় করা সম্ভব হবে।

বিনিয়োগ প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিনিয়োগ নিয়ে আমাদের দুর্বলতা আছে। এদিকে জোর দিতে হবে। দেশে বেসরকারী খাতে অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগের হার এখন ২১ থেকে ২২ শতাংশ। আমার লক্ষ্য হচ্ছে, এটাকে ৩২ শতাংশে উন্নীত করা। বৈদেশিক বিনিয়োগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি ইতোপূর্বে বলেছিলাম যে, দেশে বৈদেশিক বিনিয়োগ তেমন হচ্ছে না। কিন্তু সম্প্রতি আমি পিপিপি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে বৈঠক করেছি। তারা জানিয়েছেন, তাদের কাছে কোরিয়াসহ ৩৯টি বৈদেশিক বিনিয়োগের প্রস্তাব আছে। এক প্রশ্নের জবাবে মুহিত বলেন, বিশ্বব্যাংক থেকে হার্ডলোন নিতে হতে পারে। তবে সেটা এখনই নয়। বাজেট সহায়তা প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, বাজেট সহায়তা নিয়ে কোন কথা হয়নি। তবে এটা নিয়ে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে আলোচনা চলছে।

প্রকাশিত : ১৫ ডিসেম্বর ২০১৫

১৫/১২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: