১৭ জানুয়ারী ২০১৮,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

লাই ডিকেটশন সফটওয়্যার বানিয়েছে ইউনিভার্সিটি অফ মিশিগান


অনলাইন ডেস্ক ॥ কম্পিউটারের মাধ্যমে মানুষের বয়স থেকে শুরু করে ক্যালোরির পরিমাণ অনুমানেও ‘মেশিন লার্নিং’ প্রযুক্তির প্রচলন আছে, এখন আবার ইউনিভার্সিটি অফ মিশিগান-এর গবেষকরা উঠে-পড়ে লেগেছেন সফটওয়্যার দিয়ে ‘মিথ্যুকদের’ ধরবেন বলে।

নতুন এক লাই ডিটেকশন’ সফটওয়্যার বানিয়ে বসেছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির গবেষকরা। আর সফটওয়্যারটি মানুষের মিথ্যা বলা চিহ্নিত করতে শিখছে আদালতে দেওয়া জবানবন্দী শুনে!

গবেষকরা আদালতের আসল মামলার স্বীকারোক্তির মাধ্যমে সফটওয়্যারটিকে মিথ্যা চিহ্নিত করতে শেখাচ্ছেন বলে নিশ্চিত করেছে প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট এনগ্যাজেট।

আদালতে সাক্ষ্য দেওয়ার সময় বিভিন্ন ব্যক্তির শব্দ চয়ন ও কথা বলার ভঙ্গি বিশ্লেষণ করে সফটওয়্যারটি মিথ্যা চিহ্নিত করা শিখছে। গবেষকদের দাবি, আদালতে আসামী, সাক্ষীসহ বিভিন্ন ব্যক্তির মিথ্যাচার ৭৫ শতাংশ ক্ষেত্রে নির্ভুলভাবে ধরতে পারছে সফটওয়্যারটি। এর বিপরীতে একজন সাধারণ মানুষ আদালতের জবানবন্দীতে মিথ্যাচার চিহ্নিত করতে পারেন সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ক্ষেত্রে।

মিথ্যা চিহ্নিত করার জন্য সফটওয়্যারটি বেশ কিছু ব্যাপার বিবেচনা করে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। যেমন, উত্তরাদাত্তা প্রশ্নকর্তার দিকে সরাসরি তাকিয়ে উত্তর দিচ্ছেন কি না, কোনো কথা বলার সময় তার গলার স্বর এবং কথা বলার ভঙ্গি কেমন ইত্যাদি।

গবেষকরা এখন এই প্রযুক্তির সঙ্গে কীভাবে হৃদস্পন্দন, রক্তচাপ এবং দৈহিক তাপমাত্রা মাপার প্রযুক্তির সংযোগ ঘটানো যায় সেদিকটা নিয়ে ভাবছেন। এর সবকিছুই পরিমাপ করা হবে থার্মাল ইমেজিং প্রযুক্তি দিয়ে। সোজা কথায় বলতে গেলে, অদূর ভবিষ্যতে হয়তো আদালতে মিথ্যাচার করার আগে দ্বিতীয় বা তৃতীয়বার ভেবেও রেহাই মিলবে না অনেকের।