২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

আহত হরিণ নিজেই গেল হাসপাতালে!

প্রকাশিত : ৭ নভেম্বর ২০১৫

নিউইয়র্কের রচেস্টারের স্ট্রং মেমোরিয়াল হসপিটাল। হাসপাতালের সব কিছু চলছে আর সব দিনের মতোই। এমন সময়ই ঘটলো ঘটনাটা। একটা আহত হরিণ খোঁড়াতে খোঁড়াতে দরজা দিয়ে সোজা গিয়ে ঢুকল হাসপাতালের ভেতরে। হরিণটা যখন ঢুকল ঠিক সে সময় এ্যাম্বুলেন্স ক্রুরা এ্যাম্বুলেন্স থেকে স্ট্রেচারে করে জিম ডেফিরো নামের হার্ট এ্যাটাকে আক্রান্ত একজন রোগীকে নামাচ্ছিলেন। মুহূর্তের মধ্যে পুরো হাসপাতালে সাড়া পড়ে গেল। হাসপাতালের নিরাপত্তাকর্মীরা ছুটে এসে কোনমতে হরিণটাকে পাকড়াও করতে সমর্থ হলো। এরপর হরিণটিকে একটি স্ট্রেচারের সঙ্গে শক্ত করে বেঁধে বাইরে নিয়ে যাওয়া হলো।

হার্ট এ্যাটাকের রোগী জিম ডেফিরোকে স্ট্রেচার থেকে নামিয়ে হুইল চেয়ারে বসিয়ে যখন চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল তখন তিনি পুরো দৃশ্যটাই দেখলেন। তার ভাষায়: ‘আমি চারপাশে তাকালাম আর তিন ফুট উঁচু একটা ছোট্ট হরিণ দেখতে পেলাম। হরিণটা আমাকে পাশ কাটিয়ে চলে গেল। ওটা আমার ঠিক ডান পাশ দিয়ে চলে যাবার সময় সবাই ওকে পথ ছেড়ে দিয়ে সরে দাঁড়াল।’

হাসপাতালের প্রশাসন শাখার কর্মকর্তা টেরিজা হিল জানালেন হরিণটা আসলে আহত হয়েছে তার মেয়ে কার্লির গাড়িতে আঘাত করতে গিয়ে। এ সময় গাড়িটা চালাচ্ছিল কার্লি। টেরিজা নিজেও এসময় গাড়িতে ছিলেন। হরিণের আক্রমণে গাড়ির হেডলাইটের ক্ষতি হওয়ার পাশাপাশি তার মেয়েও সামান্য আহত হয়েছে বলে জানালেন টেরিজা। কিন্তু চলন্ত গাড়িতে আঘাত হানতে গিয়ে হরিণটাও বড় রকমের চোট পায়।

যাহোক, হরিণটা আহত হয়ে ঠিক জায়গাতেই গিয়েছিল। ওর আঘাত এতোই গুরুতর ছিল যে ওর চিকিৎসার ব্যবস্থা করার আগে ওকে চেতনানাশক দিতে হয়েছে। হরিণেরও বুদ্ধি টনটনে! নইলে আহত হবার পর মানুষের মতো সেও কেন হাসপাতালে ছুটে যাবে!

সূত্র : বিবিসি

আহমেদ লিখন

গবর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি স্কুল এ্যান্ড কলেজ

১০ শ্রেণী

প্রকাশিত : ৭ নভেম্বর ২০১৫

০৭/১১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: