২৫ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৬ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

প্রস্তুতি ম্যাচ চান জিমিরা


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ এসএ গেমসের আগেই দলের সিনিয়র খেলোয়াড়রা ফিট হয়ে উঠবেন বলে আশা করছেন বাংলাদেশ জাতীয় হকি দলের কোচ মাহবুব হারুন। একই সঙ্গে দক্ষিণ এশীয় ক্রীড়ার শ্রেষ্ঠত্বের এই আসরে তার দল ভাল করবে বলেও মনে করেন তিনি।

এদিকে এসএ গেমসের আগে শক্তিশালী কোন দলের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে পারলে তা দলের জন্য ইতিবাচক হবে বলে মনে করছেন খেলোয়াড়রা। দীর্ঘ নয় মাস পর জাতীয় দলের অনুশীলনে জিমি-চয়নরা। এই দৃশ্যটিই দেখার জন্যই অনেক দিনের অপেক্ষা ছিল দেশের হকিপ্রেমীদের। কিন্তু এত কাঠ-খড় পুড়িয়ে যাদের টার্ফে নামানো হলো, স্টিক হাতে তাদের পারফর্মেন্স যে বড্ড সাদামাটা! অনুজদের সঙ্গে অনুশীলন ম্যাচ খেলতে গিয়ে রীতিমতো খাবি খাওয়ার অবস্থা অগ্রজদের!

দীর্ঘদিন খেলার মধ্যে না থাকায় ফিটনেস কমে গেছে অনেক। সেই সঙ্গে অনেকটাই অকোজো হয়ে গেছে প্রতিপক্ষকে আতঙ্কে রাখার কৌশলগুলো। তবে খেলোয়াড়দের দাবি- এসএ গেমসের আগে হাতে পাওয়া প্রায় চার মাসের মাঝে নিজেদের ফিট করে তুলবেন তারা। কিন্তু ভাল ফলের জন্য ফেডারেশনের কাছে চাইলেন শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার সুযোগ। এদিকে হকি খেলোয়াড়দের শারীরিক কন্ডিশনের বিষয়টি বিবেচনায় এনে তাদের অনুশীলন আপাতত ফিটনেস ট্রেনিংয়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রেখেছেন কোচ। একই সঙ্গে ভিন্ন ভিন্ন খেলোয়াড়দের জন্য দিয়েছেন বিশেষ কিছু অনুশীলন।

এসএ গেমসে অংশ নিতে আগামী ফেব্রুয়ারিতে ভারতে যাবে বাংলাদেশ। এর আগে চলতি মাসের ১১ তারিখে যুব এশিয়ান হকির জন্য মালয়েশিয়া যাবে অনুর্ধ-২১ দলের খেলোয়াড়রা। কদিন আগে বিদ্যমান সঙ্কটের ‘আপাতত’ সমাধান হয় দেশের হকি অঙ্গনে। সমঝোতার মাধ্যমে বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদকের পদ ছাড়েন খাজা রহমতউল্লাহ। তার জায়গায় দায়িত্ব পান আব্দুস সাদেক। পাশাপাশি হকির চলতি মৌসুমের দলবদলের তারিখও নির্ধারণ হয় ১৩-১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

তবে সাধারণ সম্পাদকের পদ ছাড়লেও সহ-সভাপতির পদ শূন্য থাকায় সেখানে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে খাজা রহমউল্লাহকে। তবে নতুন করে রদবদল হয়নি অন্য কোন পদে। এদিকে দায়িত্ব নিয়েই হকির লিগ মাঠে গড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন নতুন সাধারণ সম্পাদক।

এদিকে হকির কমিটিতে পরিবর্তন আসায় বিদ্রোহী ক্লাবগুলো চলতি মৌসুমের প্রিমিয়ার লীগে অংশ নেবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্টরা। সেক্ষেত্রে প্রায় দুই বছর পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে হকির দলবদল। ফেডারেশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য দলবদলকে ধরা হবে ২০১৩-১৪ মৌসুমের দলবদল হিসেবে। এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ জাতীয় দলের অনেক খেলোয়াড়। তারা জানান, শেষ লীগ খেলেছি ২০১২ সালে। তার মানে দলবদল হলেও এ বছর লীগ খেলা হচ্ছে না আমাদের। দলবদলের ১৫ দিন পর ক্লাব কাপ। এর মধ্যে আবার সাফের খেলা। সবমিলিয়ে হয়ত আগামী বছরের মার্চ-এপ্রিলে প্রিমিয়ার লীগ অনুষ্ঠিত হবে। অর্থাৎ আবারও সেই আগের সমস্যাই। লীগ শেষ হওয়ার ৫ দিন পরই নিশ্চয়ই ক্লাবগুলো দলবদল করবে না। তার মানে আগামী বছরও দলবদল হবে না। তখন দেখা যাবে ২০১৭ সালে জিমিদের আবারও আন্দোলনে নামতে হচ্ছে!

মোহামেডান, মেরিনার্স ও এ্যাজাক্সসহ সব বিদ্রোহী ক্লাবও ফেডারেশনের এই সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছে বলে জানা গেছে। তাই দলবদলে অংশগ্রহণ করতেও তাদের কোন আপত্তি নেই। এখন দেখার বিষয়, গদির অদল-বদল হলেও আসন্ন দলবদল নিয়ে কোন নতুন সমস্যার উদ্ভব হয় কিনা।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: