২৩ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

খুলনা প্রিন্টিং এ্যান্ড প্যাকেজিংয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার নির্দেশ


স্টাফ রিপোর্টার ॥ বন্ডেড সুবিধা নিয়ে জালিয়াতির মাধ্যমে ২৭২ কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দেয়ার ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রীমকোর্ট। একই সঙ্গে আত্মসাতকৃত টাকা ফেরত দেয়ার জন্য খুলনা প্রিন্টিং এ্যান্ড প্যাকেজিং ইন্ড্রাস্ট্রিজকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

রবিবার বিকেলে সুপ্রীমকোর্টের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ আদেশ দেন। চাঞ্চল্যকর এই জালিয়াতির ঘটনা দীর্ঘ তদন্তের পর শুল্ক গোয়েন্দার দেয়া তদন্ত প্রতিবেদন দেখে এই আদেশ প্রদান করেন সুপ্রীমকোর্ট।

এ বিষয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান জনকণ্ঠকে বলেন, মহামান্য আদালতের নির্দেশে এখন এত বড় জালিয়াতির ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। একই সঙ্গে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে আত্মসাতকৃত টাকা আদায় করারও ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি জানান, খুলনা প্রিন্টিং এ্যান্ড প্যাকেজিং কোম্পানি গত কয়েক বছরে বন্ডেড সুবিধা নিয়ে ২৭২ কোটি টাকার শুল্ক ফাঁকি দিয়ে তা আত্মসাত করে। এটি রাজস্ব বোর্ড ও শুল্ক গোয়েন্দার তদন্তে প্রাথমিকভাবে ধরা পড়ে। শেষ পর্যন্ত রবিবার সর্বোচ্চ আদালত এ আদেশ প্রদান করেন।

মোঃ নজিবুর রহমান বলেন, এটা কেঁচো খুড়তে গিয়ে সাপ বেরিয়ে আসার মতো ঘটনা। খুলনা প্রিন্টিং এ্যান্ড প্যাকেজিং ইন্ডাস্ট্রিজের লাইসেন্স নবায়ন ছিল না। এ জন্য মাল খালাসের জন্য ওই কোম্পানির চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন হাইকোর্টের নির্দেশে মাল খালাসের আদেশ লাভ করেন। এতে সরকার পক্ষ সুপ্রীমকোর্টে আপীল করার পর আদালত এই ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দেন। তারপর রাজস্ব বোর্ডের নির্দেশে শুল্ক গোয়েন্দা তদন্তে নামে। তদন্তে ব্যাপক অনিয়ম জালিয়াতির মাধ্যমে ২৭২ কোটি টাকা শুল্ক ফাঁকির ঘটনা প্রমাণিত হয়। এ তদন্ত প্রতিবেদণ দাখিলের পর রবিবার সুপ্রীমকোর্ট খুলনা প্রিন্টিং এ্যান্ড প্যাকেজিং ইন্ডাস্ট্রিজের কাছ থেকে ২৭২ কোটি টাকা আদায়ের জন্য রাজস্ব বোর্ডকে নির্দেশ দেন।