২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সিলোনার আয়েশি জয়


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বেচারা লিওনেল মেসির পা নিশ্চয়ই উসকুস করছে! নিয়মিত গোল করে চলেছেন তার ক্লাব সতীর্থ নেইমার ও লুইস সুয়ারেজ। প্রতিপক্ষের জাল নিয়ে ছেলেখেলা করছেন প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোও। অথচ ঘাতক ইনজুরির কারণে মাঠের বাইরে আছেন বার্সিলোনার আর্জেন্টাইন তারকা।

শনিবার রাতেও সতীর্থ ও শত্রুর উৎসব দেখতে হয়েছে মেসিকে। স্প্যানিশ লা লিগায় এ্যাওয়ে ম্যাচে বার্সিলোনা ২-০ গোলে হারিয়েছে স্বাগতিক গেটাফেকে। কাতালানদের হয়ে গোল করেন উরুগুইয়ান ফরোয়ার্ড লুইস সুয়ারেজ ও ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার। আরেক ম্যাচে নিজেদের মাঠ সান্টিয়াগো বার্নাব্যুতে রিয়াল মাদ্রিদ ৩-১ গোলে পরাজিত করে লাস পালমাসকে। গ্যালাক্টিকোদের হয়ে লক্ষ্যভেদ করেন যথারীতি রোনাল্ডো। বাকি গোল দুটি করেন ইস্কো ও জেসে।

পরশুর অন্য ম্যাচে ভিয়ারিয়াল ২-১ গোলে সেভিয়াকে ও সেল্টা ডি ভিগো ৩-২ গোলে হারায় রিয়াল সোসিয়েদাদকে। রিয়াল ও বার্সা নিজ নিজ ম্যাচ জয় পাওয়ায় পয়েন্ট তালিকায়ও কোন হেরফের ঘটেনি। ১০ ম্যাচ শেষে দু’দলের ভা-ারে জমা সমান ২৪ পয়েন্ট করে। তবে গোলগড়ে এগিয়ে থেকে এক নম্বরে রিয়াল ও দুইয়ে বার্সা। ২১ পয়েন্ট নিয়ে সেল্টার অবস্থান তিনে। ২০ পয়েন্ট নিয়ে এ্যাটলেটিকো চার ও সমান পয়েন্ট নিয়ে গোলগড়ে পাঁচ নম্বরে ভিয়ারিয়াল।

এ্যাওয়ে ম্যাচ হলেও শুরু থেকেই স্বাগতিক গেটাফের উপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকে অতিথি বার্সিলোনা। ফলস্বরূপ প্রথম মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারত আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। কিন্তু নেইমারের ক্রস থেকে বাই সাইকেল কিক করতে পারেননি তরুণ তারকা মুনির এল হাদ্দাদি। মাঝেমধ্যে পাল্টা আক্রমণে আসে স্বাগতিকরাও। ১২ মিনিটে বাঁ দিক থেকে ক্রস পেলেও গোল করতে পারেননি ফাঁকায় দাঁড়ানো থাকা গেটাফের স্টেফান স্কেপোভিচ। চোটের কারণে মেসি মাঠের বাইরে থাকলেও নেইমার-সুয়ারেজ জুটিতে একের পর এক আক্রমণ চালাতে সমস্যা হয়নি বার্সিলোনার।

তবে কাক্সিক্ষত গোল পেতে লম্বা সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় তাদের। ৩৭ মিনিটে সুয়ারেজের গোলে এগিয়ে যায় বার্সা। বাঁপ্রান্ত থেকে বল নিয়ে এগিয়ে নেইমার পাস দেন সার্জিও রবার্টাক। তার কাছ থেকে বল পেয়ে নিখুঁত ফিনিশিংয়ে গোলরক্ষককে ফাঁকি দেন উরুগুইয়ান তারকা। লা লিগায় চলমান মৌসুমে এটা সুয়ারেজের অষ্টম গোল। বিরতির পর ৫৮ মিনিটে পাল্টা আক্রমণ থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করে অতিথিরা। রবার্টার লম্বা পাস থেকে দারুণ ভলিতে জালে জড়ান নেইমার। চলতি মৌসুমে লা লিগায় নিজের নবম গোল করে গোলদাতাদের তালিকায় শীর্ষে আছেন ব্রাজিলের এই ফরোয়ার্ড।

লা লিগায় দশটি ম্যাচ খেলে ইতোমধ্যে ৬ পয়েন্ট নষ্ট করেছে রিয়ার মাদ্রিদ। তবে একটি জায়গায় তারা বেশ সফল। এখনও হারের স্বাদ পেতে হয়নি, অর্থাৎ অপরাজিতই আছে গ্যালাক্টিকোরা। লাস পালমাসের বিপক্ষে সবশেষ ম্যাচেও জয় পেয়েছে তারা। যথারীতি আলো ছড়িয়েছেন রোনাল্ডো। সান্টিয়াগো বার্নাব্যুতে ম্যাচ শুরুর চার মিনিটেই মিডফিল্ডার ক্যাসেমিরোর পাসে রিয়ালকে এগিয়ে নেন ইস্কো। ১৪ মিনিটে মার্সেলোর ক্রসে ঝাঁপিয়ে পড়ে বুলেট গতির হেডে বল জালে পাঠান সি আর সেভেন। ম্যাচের ৩৮ মিনিটে মিডফিল্ডার সান্টানার গোলে ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দেয় পালমাস। তবে ৪৩ মিনিটে জেসের গোলে রিয়াল মাদ্রিদের জয় নিশ্চিত হয়ে যায়।

প্রথমার্ধেই ম্যাচের সব গোল হয়। বিরতির পর দু’দলের কেউই আর গোলের দেখা পায়নি। যদিও ব্যবধান বাড়ানোর কয়েকটি সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন রিয়াল তারকারা। ইনজুরির কারণে ম্যাচটি যথারীতি খেলেননি রিয়ালের করিম বেনজেমা, গ্যারেথ বেল ও জেমস রড্রিগুয়েজরা। এক সাক্ষাতকারে রোনাল্ডো অকপটে বলেছেন নিজের নিজস্ব স্বকীয়তার কথা। তার কথাতে আরেকবার স্পষ্টবাদীতার প্রমাণ মিলেছে।

রোনাল্ডো বলেন, মানুষ আমাকে ঘৃণা করলেও তাতে কিছু মনে করি না। বরং এটা আমাকে ভাল কিছু করতে উদ্বুদ্ধ করে। ঘৃণাকারীদের মধ্যে থেকেও ইতিবাচক কিছু খুঁজে নেয়া যায়। আর আমি তা-ই করি।