২৫ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ২ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

পটুয়াখালী হাসপাতালে চিকিৎসক ও শয্যা সঙ্কট


নিজস্ব সংবাদদাতা, পটুয়াখালী ১ নবেম্বর ॥ পটুয়াখালী ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে চিকিৎসক সঙ্কট ও ধারণক্ষমতার দু’তিন গুণ বেশি রোগী থাকায় ব্যাহত হচ্ছে এখানকার চিকিৎসা সেবা। এ অবস্থায় অনেক রোগীকে হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা না নিয়েই ফিরতে হচ্ছে। আর বাড়তি রোগীর চাপ সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

জেলার প্রায় ১৬ লাখ জনগোষ্ঠীর আধুনিক ও উন্নত চিকিৎসা সেবার একমাত্র ভরসাস্থল ২৫০ শয্যার এই হাসপাতাল। বর্তমানে হাসপাতালে গড়ে চার শ’ থেকে সাড়ে চার শ’ রোগী নিয়মিত ভর্তি থাকছে। এ অবস্থায় হাসপাতালে আসা রোগীরা মানসম্পন্ন চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। হাসপাতালে সবচেয়ে বেহাল অবস্থা শিশু বিভাগের। সরকারীভাবে এই বিভাগে ২৫টি বেড থাকলেও বাড়তি রোগীর চাপ সামলাতে ৬০টি বেডের ব্যবস্থা করেছে কর্তৃপক্ষ। এর পরেও প্রতিদিন গড়ে দেড় শতাধিক শিশু ভর্তি থাকে এখানে। বাড়তি রোগীর চাপ সামাল দিতে অনেককেই হাসপাতালের মেঝে কিংবা বারান্দায় জায়গা দিতে হয়। একই অবস্থা হাসপাতালের অন্য বিভাগগুলোতেও। অনেক বিভাগেই নেই পর্যাপ্ত বেডসহ রোগীদের প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা। আর হাসপাতালের টয়লেটসহ পয়নিষ্কাশন ব্যবস্থা আরও বেহাল। বছর বছর নামেমাত্র পটুয়াখালী গণপূর্ত বিভাগ হাসপাতালের টয়লেটসহ প্রয়োজনীয় সংস্কার কাজ করলেও তা স্থায়িত্ব খুবই কম।

এদিকে হাসপাতালের জরুরী বিভাগ, বহির্বিভাগসহ সব বিভাগেই রয়েছে চিকিৎসক সঙ্কট। হাসপাতালে বিভিন্ন বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্টের ১০টি পদ থাকলেও বর্তমানে কর্মরত আছেন পাঁচজন, জুনিয়র কনসালটেন্টের ১১টি পদের বিপরিতে কর্মরত আছেন সাতজন এবং মেডিক্যাল অফিসার সমমানের ৩৫টি পদ থাকলেও কর্মরত আছেন মাত্র পাঁচজন ডাক্তার। এ অবস্থায় ব্যাহত হচ্ছে হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছেন, সঙ্কট সমাধানে পটুয়াখালীর ২৫০ শয্যার হাসপাতালকে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রূপান্তরের বিকল্প নেই। পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন, ‘পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা হাসপাতালকে পটুয়াখালী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রূপান্তর করা হলে এটি তখন পাঁচ শ’ শয্যা হাসপাতালে পরিণত হবে। এতে করে শয্যার পরিমাণ বাড়ার পাশা পাশি প্রয়োজনীয় জনবলও পাওয়া যাবে।’