১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

নগরীতে কৃত্রিম সবুজ


ঢাকা নগরী উপমহাদেশের প্রাচীন শহরগুলোর মধ্যে অন্যতম। ঢাকাকে বাসযোগ্য গড়তে একের পর এক পরিকল্পনা করা হলেও সেটা বাস্তবায়নের উদ্যোগ খুব একটা নেই। ঢাকায় বাসযোগ্যের জন্য কেবল পরিকল্পনা করলে হবে না সে বাস্তবায়নও জরুরী। এমনিতেই ঢাকা শহর রিকশা নগরীতে পরিণত হয়েছে। ফুটপাথে হাঁটার কোন উপায় নেই। ফুটপাথের পাশ দিয়ে গাছ থাকলেও তা সংস্কার হচ্ছে না দখল হয়ে আছে ছোট ছোট দোকানদারদের কাছে। ফলে পথচারীদের চলাচলে বিঘœ ঘটে। প্রতিদিন ঘটছে দুর্ঘটনা। ঢাকা নগরীকে সবুজ বনায়নের জন্য বিভিন্ন পরিকল্পনা থাকলেও তা আর বাস্তবায়ন হয় না। ফলে বিশ্বের অন্যতম বসবাসের অনুপযোগী শহরে পরিণত হয়েছে আমাদের প্রাণের শহর ঢাকা। নগরীর পরিবেশ-প্রতিবেশ সুস্থ জীবন-জীবিকার জন্য সুন্দর পরিবেশ ও গাছপালাই একমাত্র ভরসা। ঢাকা নগরীতে আগে যে পরিমাণ গাছপালা ছিল তা ক্রমেই সঙ্কুচিত হচ্ছে। কারণ নগরীতে প্রতিদিন ৬০ শতাংশ মিউনিসিপাল থেকে বর্জ্য জমা হয় এবং আবাসিক থেকে ৪০ শতাংশ বর্জ্য জমা হয়। এগুলো সঠিকভাবে সংগ্রহ করা হয় না ফলে গাছপালা নষ্ট ও পরিবেশ দূষণ হচ্ছে। এই বর্জ্য থেকে ক্যাডমিয়াম, লেও মার্কারী ও ক্রোমিয়ামের পরিমাণ সহনীয় পরিমাণের চেয়েও অনেক গুণ বেশি। ফলে নগরীর গাছগুলো ক্রমেই ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। হয় না কোন পরিচর্যা। সম্প্রতি নগরীর অভিজাত এলাকায় চোখে পড়ে শোভা বর্ধনের জন্য প্রাস্টিক সামগ্রী অর্থাৎ প্লাস্টিকের ফুল ও ফুলের টপ। এই কৃত্রিম সবুজ গাছ যা পরিবেশের জন্য অনেক ক্ষতিকর। বিভিন্ন শপিং মলেও শোভা পাচ্ছে এই কৃত্রিম গাছপালা হঠাৎ দৃষ্টিতে ভাল লাগলেও এর ক্ষতির পরিমাণটা অনেক বেশি। বিভিন্ন অফিস আদালতেও দেখা মিলে এই সব কৃত্রিম সবুজ গাছ। এ সবের কারণে ঘর বাড়ি ও অফিসের পরিবেশ দূষণের মাধ্যমে মারাত্মক ক্ষতি করছে। নগরীর প্লাস্টিক ফুল বিক্রেতা বলেন কোন গাছ লাগালে সেটা দেখ ভাল করার জন্য অনেক খরচ করতে হয় তাই মানুষ আজকাল প্লাস্টিক ফুলের দিকে ঝোক বেশি। বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও শোভা পায় এই প্লাস্টিক ফুলের সামগ্রী আর মানুষের দৃষ্টিগোচর হচ্ছে নগরীর সবুজ বনায়ন তাই নগরীর দুই মেয়র ঢাকার দুটি সিটি কর্পোরেশন ও অন্য স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো এবং বেসরকারী কিছু প্রতিষ্ঠান মিলে স্পেশাল ড্রাইভ বা ক্রাশ প্রোগ্রাম হাতে নেয়া হয়েছে। নগরীর পরিবেশ দূষণ রোধ করা এবং এনজিওর দ্বারা নাগরিকদের গাছ লাগানোর সচেতনতা বৃদ্ধি করা এবং স্যুয়ারেজ ব্যবস্থাপনা সংস্কার ও উন্নতি করা। দূষণমূলক প্লাস্টিক বর্জন করা বাসা বাড়ির আঙ্গিনায় গাছ লাগানো ইত্যাদি।