২৩ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

জেল হত্যা দিবস সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানে আজ আওয়ামী লীগের জনসভা


বিশেষ প্রতিনিধি ॥ ঐতিহাসিক সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানে আজ সোমবার দুপুর আড়াইটায় আওয়ামী লীগের জনসভা। আগামীকাল ৩ নবেম্বর শোকাবহ জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে এ জনসভার আয়োজন করা হয়েছে। জনসভায় সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। এতে জাতীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখবেন। জনসভা সফল করতে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। জনসভাকে জনসমুদ্রে রূপ দিয়ে বিএনপি-জামায়াত জোটের চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র রুখে দেয়ার ঘোষণাও দিয়েছে দলটি।

জনসভাকে কেন্দ্র করে পুরো সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যান ও আশপাশের এলাকায় রবিবার থেকেই কঠোর নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে। সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানে স্থাপিত বিশাল মঞ্চসহ পুরোএলাকা ডগ স্কোয়াডসহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদি দিয়ে তল্লাশিও চালিয়েছে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। গড়ে তোলা হয়েছে নিñিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এছাড়া জনসভা সফল করতে সপ্তাহজুড়ে দলীয় সর্বস্তরের নেতাকর্মী, ১৪ দলসহ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার সংগঠনের সঙ্গে যৌথসভা করেছে আওয়ামী লীগ।

জনসভা সফল করতে গত সপ্তাহজুড়ে দলের সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনসহ দলীয় এমপি, মেয়র ও কাউন্সিলরদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠকে নেতৃত্বদানকারী আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম এবং যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ দু’জনই দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেছেন, সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানের জনসভায় মানুষের ঢলে বিশাল জনসভায় রূপ নেবে। মহানগর আওয়ামী লীগের নেতারা জানিয়েছেন, ঢাকা মহানগরী থেকে নির্বাচিত সকল সংসদ সদস্য, শতাধিক থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন থেকে হাজার হাজার মিছিল আজকের জনসভায় যোগ দেবে।

জনসভাস্থল সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, এবার জনসভাস্থলের মঞ্চ করা হয়েছে সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশের আইইবিÑ কোল ঘেঁষে। মঞ্চটি করা হয়েছে দক্ষিণমুখী। মঞ্চের ওপর বসার স্থানটি ধাপে ধাপে সিঁড়ির মতো করে তৈরি করা হয়েছে। যাতে মঞ্চের প্রথম সারিতে বসা নেতাদের থেকে পিছনের সারিতে থাকা নেতারা কিছুটা উপরে থাকেÑ এমন করে। এছাড়া আবহাওয়া মাথায় রেখে এবার মঞ্চের সামনে আলাদা ত্রিপল টানানো হয়নি। মঞ্চের সন্মুখস্থল খোলা রাখা হয়েছে। তবে জনসভাস্থলে আসা অতিথিদের জন্য প্রতিবারের মতো এবারও বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুরো সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানসহ আশপাশের সকল সড়ক পথেও শতাধিক মাইক লাগানো হয়েছে। মঞ্চ সাজ-সজ্জার দায়িত্বরতরা জানান, মঞ্চটি করা হয়েছে ৫৪ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৩০ ফিট প্রস্থের সমন্বয়ে। সামনে আলাদা করে প্যান্ডেল থাকবে না। সন্মুখভাগের পুরো অংশই খোলা থাকবে, যাতে জনসভায় উপস্থিত নেতাকর্মীদের দেখতে কোন অসুবিধা না হয়।

আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, আজকের জনসভাটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ। বিএনপি-জামায়াত জোটের নানা ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত, দুই বিদেশী হত্যার পর চারজন ব্লগারের ওপর হামলা এবং একজন ব্লগারকে নির্মমভাবে হত্যার পরিপ্রেক্ষিতে আজকের জনসভাকে দলটি চ্যালেঞ্জ হিসেবেই নিয়েছে। জনসভা থেকে প্রধানমন্ত্রী দেশ ও জাতির উদ্দেশে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য দিতে পারেন। মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত অপশক্তির চক্রান্তের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে স্বাধীনতার স্বপক্ষের সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি গুপ্তঘাতক ও তাদের গডফাদারদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার ব্যাপারে তাঁর সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ অবস্থানের কথা দেশবাসীর সামনে আবারও ঘোষণা করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী।

জনসভার ব্যাপারে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, আওয়ামী লীগের জনসভায় কেউ যদি কোন ধরনের সন্ত্রাসী-নাশকতা করার চেষ্টা করে তার পরিণতি হবে ভয়াবহ। যদিও আওয়ামী লীগের জনসভায় এ ধরনের কোন শঙ্কা নেই। আমরা এটা নিয়ে কোন শঙ্কা প্রকাশ করছি না। আজকের জনসভাকে জনসমুদ্রে রূপ দিয়ে আমরা সকল অপশক্তির ষড়যন্ত্র-চক্রান্তের দাঁতভাঙ্গা জবাব দেব।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: