মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১১ আশ্বিন ১৪২৪, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

সরকারের অগ্রযাত্রায় চট্টগ্রামও এগিয়ে যাচ্ছে, চেহারা পাল্টে যাবে

প্রকাশিত : ১ নভেম্বর ২০১৫
সরকারের অগ্রযাত্রায় চট্টগ্রামও এগিয়ে যাচ্ছে, চেহারা  পাল্টে যাবে
  • চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের উদ্যোগে আলোচনা অনুষ্ঠান

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ বর্তমান সরকার চট্টগ্রামের আনোয়ারায় ৬শ’ একর, মিরসরাইয়ের চর এলাকার ১৫ হাজার একর এবং ফেনীতে ৭ হাজার একর জমিতে ইকোনোমিক জোন তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছে বলে জানিয়েছেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।

শনিবার দুপুরে নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে ‘সমস্যা ও সম্ভাবনায় চট্টগ্রাম’ শিরোনামে আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এ কথা জানান। চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন সমস্যা ও সম্ভাবনা তুলে ধরতে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, বর্তমান সরকারের অগ্রযাত্রায় চট্টগ্রামও এগিয়ে যাচ্ছে। এই সরকারের আমলে মাতারবাড়িতে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র, মুরাদপুর থেকে বন্দর পর্যন্ত ফ্লাইওভারসহ অসংখ্য প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। এসব প্রকল্প সম্পন্ন হলে চট্টগ্রামের চেহারা পাল্টে যাবে। চট্টগ্রামের আনোয়ারায় ও মীরসরাইয়ে ইকোনোমিক জোন তৈরির প্রাথমিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, কর্ণফুলী নদীতে যদি জোয়ার-ভাটা না হতো তবে কর্ণফুলীর অবস্থাও বুড়িগঙ্গা ও শীতলক্ষ্যার মতো হতো। নদীর পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় আপনাদের নাকে হাত দিয়ে চলতে হতো।

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি কলিম সরওয়ারের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরীর সঞ্চালনায় আলোচনা অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি, ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আব্দুচ ছালাম, সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপির ভাইস প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ আল নোমান, চট্টগ্রাম চেম্বার প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আব্দুল জলিল ম-ল, চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক একেএম ফয়জুল্লাহ, বিটিসিএল-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামাল নন্দী, কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি দৌরজ্যোতি প্রসাদ দেব, বিজিএমই এর সাবেক সভাপতি নাছির উদ্দিন, মইনুদ্দিন আহমেদ মিন্টু ও রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহসানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল।

নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেন, চট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনেক কিছু করেছেন। কর্ণফুলীর তলদেশে টানেল হবে এটা কম কথা নয়। এসব অনেকের চোখে পড়ে, আবার অনেকের চোখে পড়ে না।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামের অন্যতম সমস্যা শিক্ষা। বিগত ৩৪ বছরে এখানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে সরকারী করা হয়নি। মন্ত্রী বলেন, ফিঙ্গার প্রিন্ট থেকে শুরু করে বিদেশে যেতে চট্টগ্রামের লোকজনকে ঢাকায় যেতে হয়। এগুলো আমি চট্টগ্রামে নিয়ে আসার চেষ্টা করছি।

ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ বলেন, চট্টগ্রামে ব্যবসার জন্য এক্সপ্রেস হাইওয়ের প্রয়োজন ছিল সেটি হয়ে যাচ্ছে। সমুদ্রের পাড়ে সী রোড হয়ে গেলে যানজট অনেক কমে আসবে। বর্তমান সরকার চট্টগ্রাম অঞ্চলে বেশ কয়েকটি বিদ্যুতকেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। এগুলো হয়ে গেলে ব্যবসায়ীদের সমস্যা কেটে যাবে। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের অদূরদর্শী সিদ্ধান্তের কারণে আজ এটি বড় চালেঞ্জে রূপ নিয়েছে।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেন, সমস্যা-সম্ভাবনাকে নিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। সমস্যা চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে দেখা যায় আমরা ঐকমত্য পোষণ করি। কিন্তু সমাধানের ক্ষেত্রে সেটা করতে পারি না। ভিন্ন ভিন্ন পরিকল্পনার কারণে সমস্যা সমাধান কঠিন হয়ে পড়ে।

তিনি বলেন, আমরা মুখে সমন্বিত উদ্যোগের কথা বলি কিন্তু মনে ধারণ করি না। আগে যারা বিভিন্ন পর্ষদে দায়িত্ব পালন করেছেন তাদের মধ্যে সমন্বয় ছিল না। উন্নয়নের জন্যে জাতি, দল-মত, ধর্ম-বর্ণের উর্ধে উঠে সবাইকে কাজ করতে হবে।

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আব্দুচ ছালাম বলেন, চট্টগ্রামে কোন প্রাদেশিক সরকার নেই। এই অঞ্চলের উন্নয়নের জন্যে আলাদা বরাদ্দও নেই। চট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্যে সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে ঢাকায় গিয়ে অর্থ ছাড় করে নিয়ে আসতে হবে।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের অধীনে অপ্রতিরোধ্য গতিতে উন্নয়ন কার্যক্রম চলছে। দেশের উন্নয়ন জোয়ারের সঙ্গে চট্টগ্রামকে সম্পৃক্ত করতে হবে। এর জন্যে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, চট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্যে আলাদ খাত থাকতে হবে। যতদিন আলাদা খাত সৃষ্টি না হবে ততদিন পর্যন্ত উন্নয়ন সেইভাবে হবে না। উন্নয়নের জন্যে সমন্বিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন। সিডিএ, সিটি কর্পোরেশন, ওয়াসা, গ্যাস সিটি গবর্মেন্টের মাধ্যমে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে। অন্যথায় বিছিন্ন পরিকল্পনায় উন্নয়নের নামে অনুন্নয়ন হবে।

তিনি আরও বলেন, ছোট ছোট আইল থেকে বড় বড় সড়কের সৃষ্টি। একজনে আইল করবে অন্যজন সেটিকে প্রশস্ত করে সড়কে রূপান্তরিত করবে। উন্নয়নে সমন্বয় থাকতে হবে। উন্নয়ন ও জাতীয় স্বার্থে বিএনপি-আওয়ামী লীগ এক থাকতে হবে।

চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, বিগত ২০ বছরে নতুন করে কোন শিল্পকারখানা গড়ে উঠেনি। যেগুলো ছিল সেগুলোও গ্যাস-বিদ্যুতের অভাবে জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। বর্তমানে চট্টগ্রাম বন্দরে ৩০ বিলিয়ন ডলারের আমদানি হয়। আগামী ৫ বছর পর ৫০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাবে। যেভাবে আমদানির হার বাড়ছে সেভাবে বন্দরের সক্ষমতা বাড়ছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে হবে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আব্দুল জলিল ম-ল বলেন, আমি সমস্যার কথা শুনতে পছন্দ করি না। এটি জনমনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। নেতিবাচক কথা না বলে কিভাবে সমস্যা উত্তোরণ করা, কিভাবে আরও এগিয়ে যাওয়া যাবে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

এর আগে বেলা সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রামের সমস্যা ও সম্ভাবনা তুলে ধরে একটি প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়। প্রদর্শিত ওই চিত্রে চট্টগ্রাম বন্দর, ওয়াসা, কর্ণফুলী গ্যাসসহ বিভিন্ন সরকারী সংস্থার সমস্যাগুলো তুলে ধরা হয়।

প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শনের পর আলোচনা সভার শুরুতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাব সভাপতি কলিম সরওয়ার। তিনি বলেন, চট্টগ্রামের সমস্যা ও সমাধানের উপায় চিহ্নিত করার লক্ষ্যে একটি কমন প্লাটফর্ম গড়ে তোলার লক্ষ্যে এ আলোচনা সভার উদ্যোগ নিয়েছি। চট্টগ্রামের সব রাজনীতিক, সেবাদানকারী সংস্থা ও সংশ্লিষ্ট সব দফতরের প্রধানদের আহ্বান জানিয়েছি। আশাকরি, আলোচনার প্রেক্ষিতে আমরা একটি উন্নয়ন পরিকল্পনা সাজাতে পারব।

প্রকাশিত : ১ নভেম্বর ২০১৫

০১/১১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

অন্য খবর



শীর্ষ সংবাদ:
রোহিঙ্গা সমস্যার সৃষ্টি মিয়ানমারের ॥ সমাধান ওদের হাতে || বাবার ফেরার অপেক্ষায় পিতৃহারা অবোধ রোহিঙ্গা শিশুরা || বছরে রফতানি আয় বাড়ছে ৩ থেকে ৪ বিলিয়ন ডলার || চালের বাজারে স্বস্তি প্রতিদিন দাম কমছে || বিদ্যুতের পাইকারি দর ১১.৭৮ ভাগ বৃদ্ধির সুপারিশ || মিয়ানমারে গণহত্যা বন্ধ নির্ভর করছে নিরাপত্তা পরিষদের ওপর || রোহিঙ্গা শরণার্থীদের স্বাস্থ্য সেবায় ২৫ কোটি ডলার চেয়েছে বাংলাদেশ || আরও মোবাইল ব্যাংকিং কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক || অপকৌশলে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা, বিপুল অর্থ আদায় || জেলে মাদক ও মোবাইল ফোন ব্যবহার ॥ সারাদেশে দুই শতাধিক কারারক্ষী গোয়েন্দা নজরদারিতে ||