১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

শ্রীপুরে ৭ বছরের শিশুকে জবাই করে হত্যা


শ্রীপুরে ৭ বছরের শিশুকে জবাই করে হত্যা

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাজীপুর, ৩০ অক্টোবর ॥ শ্রীপুরে প্রথম শ্রেণীর এক শিশু ছাত্রীকে জবাই করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। নিহতের নাম নাজনীন আক্তার (৭)। সে শ্রীপুর উপজেলার চকপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীর ছাত্রী এবং কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈবরের মাইচচর এলাকার আক্কাছ আলীর মেয়ে। নিহতের মামা রিপন মিয়া জানান, জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে প্রতিপক্ষরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

শ্রীপুর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মোঃ আমিনুর রহমান জানান, শ্রীপুর উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের চকপাড়া এলাকায় নাজনীনকে নিয়ে তার নানা হাসমত আলী হাসু, নানি মিনুজা বেগম ও মামা রিপন মিয়া বসবাস করতেন। প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার রাতে নানি মিনুজা বেগমের সঙ্গে বসতঘরে ঘুমিয়ে ছিল নাজনীন। বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে পুলিশের লোক পরিচয়ে দিয়ে কয়েকজন লোক দরজা খুলে দিতে ধাক্কা দেয়। একপর্যায়ে নানি দরজা খুলে দিলে তিনজন লোক ঘরে ঢুকে পড়ে এবং নাজনীনকে ঘুম থেকে তুলে টেনে ঘরের বাইরে নিয়ে যায়। এ সময় দুর্বৃত্তরা নাজনীনের নানিকে ঘরে আটকে রেখে বাইরে থেকে দরজায় ছিটকানি আটকে দেয়। পরে মিনুজা বেগমের চিৎকার শুনে শুক্রবার ভোর চারটার দিকে প্রতিবেশী এক মহিলা এসে ঘরের দরজা খুলে দেয়। এ ঘটনার পর মিনুজা বেগম তার নাতনিকে খোঁজাখুঁজি করে ঘরের অদূরে বারান্দায় নাজনীনের জবাই করা লাশ দেখতে পায়। খবর পেয়ে পুলিশ শুক্রবার সকালে ঘটনাস্থল থেকে নাজনীনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। ঘটনার রাতে নাজনীনের নানা ও মামা বাড়িতে ছিলেন না।

নাজনীনের বাবা আক্কাছ আলী তার প্রথম স্ত্রী আসমা বেগমকে রেখে প্রায় সাড়ে তিনবছর আগে দ্বিতীয় বিয়ে করে এবং গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কোনাবাড়ি এলাকায় বসবাস করতে থাকে। পরবর্তীতে নাজনীনের মা আসমা বেগমও দ্বিতীয় বিয়ে করে মেয়ে নাজনীনকে তার নানার কাছে রেখে স্থানীয় সলিং মোড় এলাকায় দ্বিতীয় স্বামীর সঙ্গে বসবাস করছেন।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: