২২ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বেশি ফাস্ট বোলার তৈরি করতে হবে ॥ নান্নু


স্পোর্টস রিপোর্টার॥ গত আগস্ট থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের মধ্যে নেই বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ শেষ করার পর থেকেই ঘরোয়া ক্রিকেট এবং বাংলাদেশ ‘এ’ দলের হয়ে খেলছেন অনেকে। চলতি মাসে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল আসেনি নিরাপত্তা শঙ্কাকে কারণ হিসেবে দেখিয়ে। পরিবর্তে ২ নবেম্বর জিম্বাবুইয়ে জাতীয় দল আসছে বাংলাদেশ সফরে তিন ওয়ানডে ও দুই টি২০ ম্যাচের সিরিজ খেলতে। এ সিরিজটিকে বাংলাদেশের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন জাতীয় দলের নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। ইনজুরি সমস্যায় অন্যতম নির্ভরযোগ্য পেসার রুবেল হোসেনকে ঘোষিত ১৮ জনের প্রাথমিক দলে রাখা যায়নি। সেজন্য তরুণ কামরুল ইসলাম রাব্বি ও বিশ্বকাপের দল থেকে ছিটকে পড়া আল আমিন হোসেনকে রাখা হয়েছে। এসব কারণে ভালমানের ফাস্ট বোলারের ব্যাকআপ তৈরির বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছেন নান্নু।

জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে সিরিজ খেলার জন্য প্রাথমিক ১৮ জনের দলে ইনজুরির কারণে রাখা হয়নি রুবেলকে। ইনজুরি কাটিয়ে তাসকিন স্স্থু হলেও পুরোপুরি ফিটনেস ফিরে পাননি। অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা কিছুদিন আগেই ডেঙ্গু জ্বর কাটিয়ে উঠেছেন। সবমিলিয়ে বাংলাদেশের পেস বোলিং নিয়ে নান্নু বলেন, ‘পেস বোলারের বিষয়টি গত চার-পাঁচ মাস ধরে যথেষ্ট চিন্তায় ফেলে দিয়েছে। ১০ থেকে ১২ জন এইচপির জন্য আমরা রেডি করে রেখেছিলাম। এখান থেকে কিন্তু অনেক খেলোয়াড় ৬০ শতাংশ কিংবা ৮০ শতাংশ ফিট। মাত্র দু’টা বোলার ১০০ ভাগের কাছাকাছি ছিল। ফাস্ট বোলারদের নিয়ে যদি আগাম কোন কাজ করতে না পারি তাহলে একটা বিরাট শূন্যতার সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা আছে। এটার জন্য অচিরেই আমাদের কাজ করতে হবে। স্পেশালি জাতীয় দলের ফাস্ট বোলিং কোচ হিথ স্ট্রিককে কাজে লাগাতে হবে।’

শূন্যতা পূরণের জন্য তরুণ পেসার কামরুল ইসলাম রাব্বিকে প্রাথমিক দলে ডেকেছেন নির্বাচকরা। সে বিষয়ে নান্নু বলেন, ‘ওকে একটা পরিকল্পনার মধ্যে রেখেছি বলেই ‘এ’ দলে খেলাচ্ছি। ও যথেষ্ট ভাল খেলছে। আমি এখন বিশ্বাস করি ওর সামর্থ্য আছে ১৪ জনে থাকার। শুভ সংবাদও পেতেই পারে।’ বৃহস্পতিবার জাতীয় দলের অনুশীলন শুরু হয়েছে। ১/২ তারিখে একটা বিরতিও আছে। সে সময় চূড়ান্ত দল ঘোষণা করা হতে পারে বলে আভাস দিয়েছেন নান্নু। জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে আসন্ন সিরিজ নিয়ে তিনি বলেন, ‘সার্বিকভাবে এই সিরিজটাকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিরিজ বলব আমি। আমরা আন্তর্জাতিক ম্যাচ থেকে অনেক দূরে আছি। অবশ্যই আমি আশাবাদী এই সিরিজটা ভাল করবে ক্রিকেটাররা। কারণ জিম্বাবুয়ের এখন যে অবস্থা এই অবস্থায় আমি মনে করি যে আফগানিস্তানের সঙ্গে সিরিজ হারায় মন-মানসিকতায় ভেঙ্গে পড়েছে। তবে টেস্ট খেলুড়ে দেশ হিসেবে আবার ঘুরে দাঁড়ানোর সম্ভাবনা আছে তাদের।’

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: