২৪ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

শুভ জন্মদিন ম্যারাডোনা.........


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিদ্রোহী হিসেবেই তাঁর খ্যাতি সমগ্র বিশ্বে। সারাজীবন অন্যায় আর অনিয়মের বিরুদ্ধে সোচ্চার। বিপ্লবী আচরণ দিয়ে তিনি কামিয়েছেন এই খেতাব। তবে সবকিছু ছাপিয়ে তার অসামান্য ফুটবল সত্ত্বাকেই বড় করে দেখা হয়। নাম তার দিয়াগো আরমান্ডো ম্যারাডোনা। স্বনামেই বিশ্ববাসীর কাছে পরিচিত। ফুটবলারদের মধ্যে সর্বকালের সেরা দু’জনের একজন। ফুটবলের ঈশ্বর ম্যারাডোনার জীবনটা রূপকথার মতো। উত্থান-পতনে পরিপূর্ণ। বুয়েন্স আইরেসের লানুসের ভিয়া ফিয়োরিতোর এক বস্তিতে তাঁর জন্ম ৩০ অক্টোবর, ১৯৬০ সালে। দেখতে দেখতে জীবনের ৫৪ বছর অতিক্রান্ত করেছেন। শুক্রবার ৩০ অক্টোবর পা রেখেছেন ৫৫ বছরে। তাইতো, শুভ জন্মদিন কিংবদন্তী ফুটবল ঈশ্বর দিয়াগো ম্যারাডোনা।

কারও কাছে তিনি সাক্ষাত নরকের দূত, কারও কাছে ঈশ্বর। যেভাবেই দেখা হোক না কেনো, ম্যারাডোনা ছাড়া অপূর্ণই থেকে যাবে ফুটবল। নতুন জন্মদিনে ফুটবলে কোটি কোটি ভক্ত, সমর্থক, শুভাকাঙ্খীরা শুভকামনা জানিয়েছেন ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপজয়ী তারকাকে। বর্ণাঢ্য ফুটবল ক্যারিয়ারে অনেক অনাহুত ঘটনার জন্ম দিয়ে বিতর্কিত হয়েছেন সর্বকালের অন্যতম সেরা এই ফুটবলার। ১৯৯৭ সালে ৩৭ তম জন্মদিনে আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় জানানোর পর এক যুগ অনেকটাই নিভৃতে ছিলেন। কিন্তু ২০১০ সালে আর্জেন্টিনার কোচ হয়ে আবারও নিজেকে পাদপ্রপীদের আলোয় তুলে আনেন। এরপর বিশ্বকাপে ব্যর্থতা এবং বিশ্বকাপ পরবর্তী সময়ে কোচ পদে থাকা নিয়ে টানাপোড়েনে আর্জেন্টাইন বোর্ডের সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে পড়েন। যে কারণে মেসি, হিগুয়াইনদের অভিভাবক হিসেবে পাশে থাকা হয়নি।

নিষিদ্ধ ড্রাগ সেবনের কারণে বেশ কয়েকবার ম্যারাডোনার জীবন সঙ্কটাপন্ন হয়েছিল। এ কারণে ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা তারকাকে নিষিদ্ধও হতে হয়। নিষিদ্ধ ড্রাগ সেবনের কারণে সবচেয়ে বেশি সমস্যা হয়েছিল ম্যারাডোনার জীবন নিয়ে। দু’বার তো মৃত্যুর দোয়ার থেকে ফিরে আসেন। ২০০০ ও ২০০৪ সালে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে পৌঁছে গিয়েছিলেন সর্বকালের অন্যতম সেরা এই ফুটবল তারকা। কিন্তু সে যাত্রায় দুই মেয়ে দালমা ও জিয়ান্নিনার শ্রুশ্রুষায় নবজীবন পান। তারপর থেকে আর নিষিদ্ধ জগতে পা রাখেন নি। একপ্রকার ভালই চলছিল জীবনের গতিপথ। তবে হঠাৎ করে ২০১২ সালে কিডনিতে অস্ত্রোপচার করার কারণে আরেকবার ধাক্কা খেতে হয় আর্জেন্টাইন ফুটবল ঈশ্বরকে।

এখন অনেকটা নিভৃতেই চলছে তাঁর জীবন। এরপরও আলোচনার কমতি নেই। জন্মদিনে ভক্তদের প্রত্যাশা Ñআরও দীর্ঘায়ু হোক তাদের প্রাণের তারকা দিয়াগো ম্যারাডোনা।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: