১৯ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

নেত্রকোনায় আদিবাসী নেতা হত্যা মামলায় ৪ জনের যাবজ্জীবন


নিজস্ব সংবাদদাতা, নেত্রকোনা ॥ আদিবাসী অধিকার আন্দোলনের নেতা সত্যবান হাজং(৩০) হত্যা মামলায় চার আসামীকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদ- ও প্রত্যককে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও দুই বছর করে সশ্রম কারাদ- দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার নেত্রকোনার অতিরিক্ত দায়রা জজ মোঃ আব্দুল হামিদ আসামীদের উপস্থিতিতে এ রায় দেন। যাবজ্জীবন দ-প্রাপ্ত আসামীরা হলোÑ বারমারি গ্রামের মৃত আছমত আলীর ছেলে রহিম উদ্দিন(৪৫), মৃত গিয়াস উদ্দিনের ছেলে সুরুজ মিয়া(৪০), আমজাদ আলীর ছেলে কাজিম উদ্দিন(৩৫) ও মৃত পরেশ রংদীর ছেলে ধীরেশ সাংমা (৪৮)। দীর্ঘ নয় (৯) বছর পর আলোচিত এ মামলাটির রায় ঘোষণা করা হয়।

রায়ের বিবরণে বলা হয়, দুর্গাপুর উপজেলার বারমারি-লক্ষ্মীপুর গ্রামের সত্যবান হাজংয়ের সাথে একই গ্রামের উল্লেখিত আসামীদের রাজনৈতিক ও চাকুরি সংক্রান্ত বিরোধ চলছিল। ২০০৬ সালের ২৩ এপ্রিল বিকেলে তিনি একই গ্রামে তাঁর মাসি মেমনী হাজংয়ের বাড়িতে বেড়াতে গেলে আসামীরা তাকে কিল, ঘুষি, লাথি, কাঠর পিঁড়া দিয়ে পিটায় এবং গলা চেপে ধরে। এতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। ঘটনার পর দিন তার বাবা তুশিল হাজং বাদী হয়ে দুর্গাপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে পুলিশ ২০০৯ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে।

প্রসঙ্গত, সত্যবান হাজং বাংলাদেশ হাজং উন্নয়ন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের পদে থেকে হাজংসহ আদিবাসী জনগোষ্ঠীর অধিকার আদায়ে সোচ্চার ছিলেন। পাশাপাশি তিনি যুব ইউনিয়নেরও সক্রিয় কর্মী ছিলেন। এছাড়া দুস্থ স্বাস্থ্য কেন্দ্র নামে একটি উন্নয়ন সংস্থায় চাকরি করতেন তিনি। তাকে হত্যার পর আদিবাসীরা বহু প্রতিবাদ সভা, সমাবেশ ও মানববন্ধন করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে হত্যা মামলাটি পরিচালনা করেন অতিরিক্ত পিপি এ্যাডভোকেট কমলেশ কুমার চৌধুরী। আসামি পক্ষে ছিলেন এ্যাডভোকেট পিযুষ কুমার সাহা।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: