মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১০ আশ্বিন ১৪২৪, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

টেস্ট নিয়ে উচ্ছ্বসিত ওয়াকার

প্রকাশিত : ২৯ অক্টোবর ২০১৫

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ক্রমাগত সাফল্যে পাকিস্তানের টেস্ট ক্রিকেটের ভবিষ্যত নিয়ে উচ্ছ্বসিত দেশটির প্রধান কোচ ওয়াকার ইউনুস। চরম নাটকীয়তার পর দুবাই টেস্টে ১৭৮ রানের জয় পায় মিসবাহ উল হকের দল। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিন টেস্টের সিরিজে এগিয়ে যায় পাকিস্তান। এর আগে শ্রীলঙ্কা সঙ্গে সিরিজ জেতে দলটি। বর্তমানে আইসিসি টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ের চতুর্থ স্থানে পাকিস্তান। এশিয়ার মধ্যে ভারত-শ্রীলঙ্কাকে টপকে শীর্ষে তারাই। তৃতীয় স্থানে থাকা ইংল্যান্ডের সঙ্গে পয়েন্টের ব্যবধান মোটে ১। শারজায় রবিবার থেকে শুরু হতে যাওয়া সিরিজ নির্ধারণী টেস্ট জিতলে নিশ্চিত করে ইংল্যান্ডকে টপকে যাবে পাকিস্তান। সব মিলিয়ে দারুণ খুশি ইউনুস। দুবাইয়ে জয়ের নায়ক অলরাউন্ডার ওয়াহাব রিয়াজ আবার সাফল্যের কৃতিত্ব দিচ্ছেন বস ওয়াকারকেই।

‘দুবাইয়ের ম্যাচটা টেস্টের বড় বিজ্ঞাপন হয়ে থাকবে। বিনোদনদায়ী ক্রিকেটের জন্য জায়গাটা খুবই উপযোগী। শেষ দিনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত ছিল টান টান উত্তেজনা। হয় তো ইংল্যান্ডও জিততে পারত। এমন ম্যাচ টেস্টের ভবিষ্যতের জন্য ইতিবাচক বার্তা দেয়। গত কয়েক বছরে আমরা এমন একাধিক ম্যাচের সাক্ষী হয়েছি।’ বলেন পাকিস্তান কোচ। সাবেক স্পিডস্টার ওয়াকার আরও যোগ করেন, ‘যারা বলেন টেস্টের ভবিষ্যত অন্ধকার, আমি তাদের সঙ্গে একমত নই। আমি মনে করি টেস্টই প্রকৃত ক্রিকেট, অন্য কোন ভার্সন এটির জন্য হুমকি নয়।’ আরব আমিরাতের চলতি সিরিজে হয়ে যাওয়া দুটি ম্যাচই ছিল দারুণ নাটকীয়তাপূর্ণ। প্রথমে আবুধাবিতে ড্র টেস্টে অল্পের জন্য আলোর স্বল্পতায় জয় পায়নি ইংল্যান্ড। দুবাইয়ে মীমাংসা হয়েছে পঞ্চম দিনের ৬ ওভার বাকি থাকতে!

আভিজাত ক্রিকেটের জন্য এ সত্যি এক রোমাঞ্চকর বিষয়। ম্যাচ বণ্টনের ক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসিকে আরও উদার হতে হবে বলেও মন্তব্য করেন ওয়াকার। তিনি বলেন, ‘ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া, ভারতের মতো দলগুলো যেখানে এক ক্যালেন্ডার ইয়ারে ১৫-১৮ টেস্ট খেলে থাকে, সেখানে আমরা পাই ৬-৮টি বা সর্বোচ্চ ১০। এটা চরম বৈষম্য। ওই সব দলের মতো এত ম্যাচ পেলে পাকিস্তান র‌্যাঙ্কিংয়ে আরও ওপরে যেতে পারত। বিষয়টা সিরিয়াসলি ভাবার সময় এসেছে।’ ২০০৯ সালের মার্চে লাহোরে সফরকারী শ্রীলঙ্কান দলের ওপর হামলার পর থেকে পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বন্ধ। দলটি ফিরতি ম্যাচগুলো আমিরাতেই খেলে আসছে। তবু পাকিস্তানের উন্নতি চোখে পড়ার মতো। বিশেষ করে আভিজাত্যের টেস্ট আঙ্গিনায়। ২০১০Ñএ লর্ডস টেস্টের সেই কাক্সিক্ষত স্পট ফিক্সিংসহ নানান সমস্যা কাটিয়ে দলটি এখন অনেকটাই গুছিয়ে উঠেছে।

তিন ভার্সনে তিন অধিনায়ক। টেস্টে চল্লিশোর্ধ বয়সের মিসবাহ, ওয়ানডেতে প্রতিভাবান আজহার আলি আর টি২০তে নেতৃত্ব দিচ্ছেন মহাতারকা শহীদ আফ্রিদি। শ্রীলঙ্কায় তিন ভার্সনেই সফল তারা। আগেরবার বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত এশিয়া কাপের শিরোপা জয়। শত প্রতিকূলতা পেরিয়ে আলো ছড়াচ্ছে পাকিস্তানের ক্রিকেট। ওয়াকাকেরর তাই উচ্ছ্বসিত হওয়া স্বাভাবিক। দারুণ এ সাফল্যের জন্য বস ওয়াকারকেই কৃতিত্ব দিয়েছেন ওয়াহাব রিয়াজ। দুবাই টেস্টে জয়ের নায়ক বলেন, ‘আমি সবসময় নিজের সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করি। প্রথম ইনিংসে কোচের পরিকল্পনা মতো বল করেছিলাম। সফল হয়েছি। এজন্য পুরো অবদান ওয়াকার ভাইকে দিতে হবে।’

ওয়াহাব আরও যোগ করেন, ‘আমি গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেটগুলো তুলে নিয়েছিলাম। এর মধ্যে জো রুটের উইকেটটি ছিল মহামূল্যবান। যেটি আসলে খেলার মোড়ই ঘুরিয়ে দিয়েছিল। আমাদের লক্ষ্য একটাইÑ শেষ টেস্ট জিতে সিরিজ নিশ্চিত করা।’

পেপসি-ডিআরইউ ক্রিকেট

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি আয়োজিত পেপসি-ডিআরইউ মিডিয়া ক্রিকেট টুর্নামেন্টের বুধবার চতুর্থ দিনে জয় পেয়েছে সকালের খবর, আরটিভি, বাংলাভিশন, মানবকণ্ঠ, সমকাল ও আজকের পত্রিকা। মওলানা ভাসানী জাতীয় হকি স্টেডিয়ামে দিনের প্রথম ম্যাচে সকালের খবর ২ উইকেটে এনটিভিকে পরাজিত করে। ম্যাচসেরা হন সকালের খবরের রেজা করিম। দ্বিতীয় ম্যাচে আরটিভি ৫ উইকেটে জনকণ্ঠকে হারায়। আরটিভির রাজিব খান ম্যান অব দ্য ম্যাচ হন। দিনের তৃতীয় ম্যাচে বাংলাভিশনের কাছে ৬১ রানে হেরেছে ডেইলি স্টার। ম্যাচসেরা হন বাংলাভিশনের মাহফুজুর রহমান। চতুর্থ ম্যাচে নয়াদিগন্তকে ৩ উইকেটে হারিয়েছে মানবকণ্ঠ। ম্যান অব দ্য ম্যাচ হন মানবকণ্ঠের মাহফুজুল ইসলাম। পঞ্চম ম্যাচে সমকাল ৬৫ রানে কালবেলাকে পরাজিত করে। ম্যাচসেরা হন সমকালের শরিফুল ইসলাম। দিনের শেষ ম্যাচে যায়যায়দিনকে ৩ উইকেটে হারিয়েছে আজকের পত্রিকা। ম্যান অব দ্য ম্যাচ হন আজকের পত্রিকার কবিরুল ইসলাম।

প্রকাশিত : ২৯ অক্টোবর ২০১৫

২৯/১০/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



শীর্ষ সংবাদ: