২৫ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বুদ্ধিস্ট হেরিটেজ বিকাশে মহাপরিকল্পনা নিতে হবে


স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিদেশী পর্যটক আকৃষ্ট করতে দেশের বুদ্বিস্ট হেরিটেজকে সংরক্ষণ ও বিকাশে মহাপরিকল্পনা নিতে হবে। পাশাপাশি অবকাঠামোগত সুবিধা নিশ্চিত করা গেলে বাংলাদেশ হতে পারে বিশ্বের অন্যতম আকর্ষণীয় ট্যুরিস্ট জোন।

বুধবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন (বিআইসিসি) কেন্দ্রে দুই দিনের আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য সম্মেলনের সমাপনী সংবাদ সম্মেলনে এমনই মতামত তুলে ধরেন অতিথিরা।

ডেভেলপিং সাসটেনেবল এ্যান্ড ইনক্লুসিভ বুদ্বিস্ট হেরিটেজ এ্যান্ড পিলগ্রিমেজ সার্কিট ইন সাউথ এশিয়াস বুদ্ধিস্ট হার্টল্যান্ড’ শীর্ষক দুই দিনের আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড (বিটিবি) ও জাতিসংঘের বিশ^ পর্যটন সংস্থা (ইউএনডব্লিউটিও)। জাতিসংঘের পর্যটন সংস্থার মহাসচিব তালিব রিফাই থেকে শুরু করে বিশে^র ১০টি দেশের পর্যটনমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এই সম্মেলনে অংশ নেন।

সংবাদ সম্মেলনে রাশেদ খান মেনন বলেন, দু’ফোঁটা বৃষ্টি মানেই লঙ্কাকা- নয়। এতে পর্যটন শিল্পে কোন প্রভাব পড়বে না। কারণ ২০১৬ সালকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের জন্য পর্যটন বছর ঘোষণা করেছেন। এই কনফারেন্সের মাধ্যমে আমাদের যাত্রা শুরু। ধীরে ধীরে পর্যটন শিল্পে বাংলাদেশ এগিয়ে যাব। দেশীয় পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে পর্যটক বেড়েছে। এটার আরও প্রসার ঘটলে অবকাঠামোগত উন্নয়ন হবে। এরই অংশ হিসেবে দুই দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক কনফারেন্সের আয়োজন করা হয়েছে। এতে বাংলাদেশসহ বিশে^র ১০টি দেশের ৪০০ প্রতিনিধি অংশ নিয়েছে। এই সম্মেলনের মাধ্যমে বাংলাদেশ একটি নতুন যুগে পদার্পণ করল, আর এর ফলে আমরা আশা করছি বিদেশী পর্যটকের আগমন আগামীতে আরও বাড়বে।

পর্যটনের উন্নয়নে প্রথমে অভ্যন্তরীণ পর্যটনকে উৎসাহিত করার পরামর্শ দিয়েছেন জাতিসংঘ বিশ^ পর্যটন সংস্থার (ইউএনডব্লিউটিও) মহাসচিব তালেব রিফাই। তিনি বলেন, যখন দেশীয় পর্যটকের সংখ্যা বাড়বে তখন এমনিতেই সে সমস্ত স্থানে অবকাঠামো গড়ে উঠবে। এ অবকাঠামোগুলো পরবর্তীতে বিদেশী পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। বাংলাদেশের পর্যটনের বিকাশে পূর্ণ সহযোগিতা প্রদানের আশ^াস দেন ইউএনডব্লিউটিও মহাসচিব। পর্যটনের জন্য অবকাঠামো তৈরি এবং মানবসম্পদ প্রশিক্ষণ ছাড়াও এর পর্যটনের রাজনৈতিক বিষয়গুলোতেও আমরা বাংলাদেশের পাশে আছি।

বৌদ্ধ সংস্কৃতি ও এতিহ্য পর্যটনে বাংলাদেশ যেন একটি কেন্দ্র হয়ে ওঠে এ জন্যও সহযোগিতা প্রদানের আশ^াস দেন তিনি। উন্নয়ন সহযোগীতার পাশাপাশি পর্যটনক্ষেত্রে বিদেশী বিনিয়োগ আনার ক্ষেত্রেও সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলে জানান তালেব রিফাই।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব খোরশেদ আলম চৌধুরী, বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের নির্বাহী আক্তারুজ্জাামান খান কবির, ইউএনডব্লিউটিওর ট্যুরিজম এ্যাডভাইজার লুডউইগ জি রেইডার। মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এই দিনের আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ ঐতিহ্য ও পর্যটন সম্মেলন উ™ে^াধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।