১৫ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

কুমিল্লায় তেল চুরির আগুনে ট্যাঙ্কার দোকান পুড়ে ছাই


নিজস্ব সংবাদদাতা, কুমিল্লা, ২৮ অক্টোবর ॥ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে কমপক্ষে ২০ পয়েন্টে দোকান-টংঘর তুলে প্রকাশ্যে চোরাই জ্বালানি তেলের রমরমা বাণিজ্য চলছে। কুমিল্লায় গাড়ি থেকে জ্বালানি তেল চুরি করে নামানোর সময় ভয়াবহ অগ্নিকা-ে একটি তেলবাহী গাড়ি, একটি মিনি ট্রাক, দুটি দোকানঘর, বিপুল পরিমাণ তেল ও তেলভর্তি ড্রাম পুড়ে যায়। জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার হাড়িসর্দার এলাকায় মঙ্গলবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, গাড়িযোগে ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন তেলের পাম্পে জ্বালানি তেল পরিবহনের সময় চালকের যোগসাজশে তেল চোর সিন্ডিকেট মালিকের অগোচরে তেল চুরি করে ড্রাম ভর্তি করে রাস্তার পাশের দোকান-টংঘরে রেখে দীর্ঘদিন ধরে প্রকাশ্যে বিক্রি করে আসছে। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার জগন্নাথ দীঘিরপাড়, চিওড়া রাস্তার মাথা, বাতিশা, আমানগ-া, হাড়িসর্দার, বাঁকা বটগাছ, ধনুসাড়া রাস্তার মাথাসহ মহাসড়কের ঢাকা-চট্টগ্রাম পথের কমপক্ষে ২০ পয়েন্টে মালিকের অগোচরে তেলবাহী গাড়ি থেকে তেল নামিয়ে অবাধে বিক্রি করা হচ্ছে। মঙ্গলবার রাত পৌনে ১০টার দিকে অকটেন ও পেট্রোলবাহী একটি গাড়ি চট্টগ্রাম থেকে চৌদ্দগ্রামের হাড়িসর্দার বাজারের চোরাই তেলের ব্যবসায়ী আবদুল কাদেরের দোকানের সামনে আসে। রাতে চালকের যোগসাজশে কাদের তার সঙ্গী আবু বকর ও ইউসুফকে নিয়ে ওই গাড়ি থেকে পেট্রোল ও অকটেন নামিয়ে ড্রামভর্তি করার সময় জ্বলন্ত সিগারেট থেকে আগুন ধরে যায়। মুহূর্তের মধ্যে আগুনের লেলিহান শিখা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এতে ওই তেলবাহী গাড়ি, চুরির তেল সরবরাহের জন্য ওই দোকানের সামনে রাখা পিকআপ, ২টি দোকান, বিপুল পরিমাণ তেল ও তেলভর্তি ড্রাম পুড়ে যায়। খবর পেয়ে চৌদ্দগ্রাম থেকে ফায়ার সার্ভিসের ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় তেল চোর সিন্ডিকেট সদস্যরা, তেলবাহী গাড়ির চালক ও তার সহযোগী পালিয়ে যায়। চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি মোহাম্মদ ফরহাদ জানান, তেলবাহী গাড়ি থেকে তেল চুরি করে বিক্রি ও মজুদদারদের ধরতে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী পালিত

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঝিনাইদহ, ২৮ অক্টোবর ॥ বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী হামিদুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে বুধবার সকালে তার নিজ গ্রাম মহেশপুর উপজেলার খর্দ্দখালিশপুরে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এসব আয়োজনের মধ্যে ছিল শহীদের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ, বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান সরকারী কলেজে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও কাঙালীভোজ। কলেজের আলোচনা সভায় মহেশপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশাফুর রহমান, স্থানীয় চেয়ারম্যান সাজ্জাদ হোসেন, হামিদুর রহমানের ভাই বজলুর রহমানসহ অন্যরা বক্তব্য রাখেন।

২৬ বছর বয়সে হামিদুর রহমান ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। ২৮ অক্টোবর মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলে দক্ষিণ-পূর্ব কমলগঞ্জ উপজেলার ধলই সীমান্তে পাক হানাদার বাহিনীর সঙ্গে সম্মুখযুদ্ধে তিনি শাহাদাত বরণ করেন। সে সময় সঙ্গীরা তার লাশ নিয়ে ৩০ কিলোমিটার দূরে দক্ষিণ ভারতের আমবাসা গ্রামের মসজিদের পাশে দাফন করে। ৩৬ বছর পর ২০০৭ সালের ১১ ডিসেম্বর দেহাবশেষ উত্তোলন করে ঢাকার মিরপুরের শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।