১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

মাঠের লড়াইয়ের আগেই জিতলো বাংলাদেশের


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ শঙ্কার কালো মেঘ কেটে গেছে। নির্ধারিত সূচী অনুযায়ীই ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের বাছাইপর্বের ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশে আসছে অস্ট্রেলিয়া ফুটবল দল। নিরাপত্তার অজুহাত দেখিয়ে ফুটবল ফেডারেশন অস্ট্রেলিয়া (এফএফএ) ফিফা ও এএফসি’র কাছে ভেন্যু পরিবর্তনের আবেদন করেছিল। কিন্তু বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা সকারুদের সেই আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে। যে কারণে নবেম্বর মাসে বাংলাদেশে আসছে অস্ট্রেলিয়া ফুটবল দল।

অসিদের এই সিদ্ধান্তের পর প্রচলিত একটি প্রবাদ সামনে এসে যায় ‘সেই তো নাচ দেখাইলি, তবে কেন লোক হাসাইলি।’ চলতি মাসে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের স্বাগতিক বাংলাদেশের সঙ্গে দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলার কথা ছিল। কিন্তু বাংলাদেশে অপ্রত্যাশিতভাবে দুই বিদেশী হত্যার ঘটনা ঘটলে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া সফর স্থগিত করে। অথচ বাংলাদেশ সরকার তাদের পূর্ণ নিরাপত্তার আশ্বাস দিয়েছিল। ক্রিকেট দলের সফর স্থগিত করার পর স্বাভাবিকভাবেই অস্ট্রেলিয়া ফুটবল দলের আসা নিয়েও সংশয় সৃষ্টি হয়।

অনুমিতভাবেই ফুটবল ফেডারেশন অস্ট্রেলিয়া সেই কাজটি করে বসে। তারাও ফিফা ও এএফসির কাছে নিরাপত্তা ইস্যু সামনে রেখে নিরপেক্ষ ভেন্যুতে খেলার আবেদন করে। কিন্তু সংস্থা দুটি বাংলাদেশের সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থায় কোন ত্রুটি খুঁজে পায়নি। বরং এদেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে সন্তোষ জানিয়েছে। এরপরই ফিফা ও এএফসি’র তরফ থেকে ছাপ জানিয়ে দেয়া হয়েছে, বাংলাদেশে গিয়েই বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচ খেলতে হবে। ‘ঠেলার নাম বাবাজি’র মতো তাই লাল-সবুজের এই দেশে আসতে বাধ্য হচ্ছে সকারুরা।

অস্ট্রেলিয়ার এই সিদ্ধান্তের পর আরেকবার স্পষ্ট হয়েছে ফিফা ও আইসিসির মধ্যে প্রশাসনিক শক্তির পার্থক্য। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া নিজেদের সিদ্ধান্তে বাংলাদেশ সফর স্থগিত করে। কিন্তু এফএফএ’র এমন করার ক্ষমতা নেই। তারা চাইলেও ক্রিকেট বোর্ডের মতো একক সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা রাখে না। যে কারণে এফএফএ ফিফা ও এএফসির দারস্থ হয়।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: