মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
১৮ আগস্ট ২০১৭, ৩ ভাদ্র ১৪২৪, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

অটোরিক্সায় নির্ধারিত ভাড়া কার্যকর করতে টাস্কফোর্স

প্রকাশিত : ২৮ অক্টোবর ২০১৫
  • পহেলা নবেম্বর থেকে ভাড়া বাড়ানো হয়েছে

রাজন ভট্টাচার্য ॥ পহেলা নবেম্বর থেকে রাজধানীতে সরকার নির্ধারিত অটোরিক্সার ভাড়া কার্যকর করতে শক্তিশালী টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ১১ সদস্যবিশিষ্ট এই কমিটি প্রথম দিন থেকেই কাজ শুরু করবে। চালকরা যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া নিলে কিংবা মালিকরা অতিরিক্ত জমা আদায় করলেই টাস্কফোর্সের তথ্য অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। শাস্তি হিসেবে থাকছে, আর্থিক জরিমানা, জেল ও ড্রাইভিং লাইসেন্স জব্দ করা। তবে নতুন ভাড়া কতটুকু কার্যকর হবে এ নিয়ে সন্দেহ খোদ অটোরিক্সা চালক, মালিক থেকে শুরু করে সাধারণ যাত্রীদেরও। এদিকে নতুন ভাড়া কার্যকরের অংশ হিসেবে অধিকাংশ মিটারে সিকিউরিটি লক ছাড়াই সফটওয়্যার ডাউনলোড করা হচ্ছে। পরিবহন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এতে মিটার টেম্পারিং করে বাড়তি ভাড়া আদায়ের রয়েছে শুভঙ্করের ফাঁকি।

বিদ্যুত ও গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রেক্ষিতে গত ১০ সেপ্টেম্বর ঢাকা ও চট্টগ্রামে বাস-মিনিবাসসহ অটোরিক্সার বাড়তি ভাড়া নির্ধারণ করে সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়। পহেলা অক্টোবর থেকে নতুন বাস ভাড়া কার্যকর হয় ঢাকায়। নানা কারণে চট্টগ্রামে পাঁচ অক্টোবর থেকে কার্যকর শুরু হয়েছে।

রবিবার থেকে বাড়ছে অটোরিক্সা ভাড়া ॥ নতুন ভাড়া অনুযায়ী অটোরিক্সায় প্রথম দুই কিলোমিটারে দিতে হবে ৪০ টাকা। মালিকদের জমা বাড়িয়ে ৬০০ টাকার স্থলে করা হয়েছে ৯০০ টাকা। সর্বশেষ ২০১১ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর ঢাকা ও চট্টগ্রামে গণপরিবহনের ভাড়া বাড়ানো হয়েছিল। সিএনজি চালিত অটোরিক্সার ক্ষেত্রে দুই সিটি কর্পোরেশনে প্রথম দুই কিলোমিটারের ভাড়া ২৫ টাকার স্থলে ৪০ টাকা করা হয়েছে। সর্বনিম্ন ভাড়াও তাই। পরবর্তী প্রতি কিলোমিটারের ভাড়া সাত টাকা ৬৪ পয়সার স্থলে ১২ টাকা করা হয়েছে। যানজট বা অন্য কোন কারণে রাস্তায় বিরতিকালে প্রতি মিনিটের ভাড়া এক টাকা ৪০ পয়সার স্থলে ২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

১১ সদস্যের টাস্কফোর্স ॥ মধ্যবিত্তের পরিবহন অটোরিক্সা। প্রায় দুই কোটি মানুষের এই শহরে অনুমোদিত অটোরিক্সার সংখ্যা মাত্র ১৩ হাজার। বিভিন্ন সংস্থার পরিসংখ্যান বলছে, রাজধানীতে সর্বোচ্চ চলাচল করে সাত হাজার অটোরিক্সা। চাহিদা বেশি হওয়ায় শুরু থেকেই এই পরিবহনের চালকরা একেবারেই বেপরোয়া। বছরের পর বছর অটোরিক্সায় মিটারের অতিরিক্ত তিন থেকে চারগুণ ভাড়া আদায় করলেও প্রতিকার মেলেনি। নতুন ভাড়া কার্যকর করার ক্ষেত্রেও এ প্রশ্ন আবারো সামনে এসেছে। এই প্রেক্ষাপটে গঠন করা হয়েছে টাস্কফোর্স। বিআরটিএ পরিচালক (প্রশাসন) মশিয়ার রহমানকে প্রধান করে এই কমিটির সদস্য সচিব করা হয়েছে বিআরটিএ উপ-পরিচালক মাসুদ আলমকে। অটোরিক্সা মালিক সমিতির প্রতিনিধি হিসেবে আছেন বরকতউল্ল্যাহ বুলু, শ্রমিকদের পক্ষে আছেন হানিফ খোকন, মহানগর পুলিশের একজন প্রতিনিধি, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কমিটির পক্ষে একজন, দুই সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে দুই জন, ডিপিডিসির একজনসহ সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একজন প্রতিনিধি রাখা হয়েছে।

টাস্কফোর্সের কার্যক্রম চূড়ান্ত করতে বৃহস্পতিবার বিআরটিএ এলেনবাড়ি কার্যালয়ে সর্বশেষ বৈঠক ডাকা হয়েছে। টাস্কফোর্সের অন্যতম সদস্য হানিফ খোকন জনকণ্ঠকে বলেন, অটোরিক্সা মালিক ও চালকদের অনিয়ম রোধে পহেলা নবেম্বর থেকেই তারা কাজ শুরু করবেন। এজন্য শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে ৬টি মনিটরিং টিম গঠন করা হয়েছে। টিমের সদস্য সংখ্যা ৩০ জন। তারা নগরীর বিভিন্ন গেরেজে ও রাস্তায় তথ্য সংগ্রহ করে জানালে টাস্কফোর্সের কাছে শাস্তির সুপারিশ করা হবে। পাশাপাশি বিআরটিএর পক্ষ থেকে রাস্তায় ও গেরেজে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার কথাও জানান তিনি।

জমা ও ভাড়া বেড়েছে ॥ সরকারী সিদ্ধান্ত কার্যকর হওয়ার আগেই অটোরিক্সার জমা ও ভাড়া বৃদ্ধির অভিযোগ পাওয়া গেছে। যাত্রীরা বলছেন, ১৫০ টাকার নিচে কোন ভাড়া নেই এই পরিবহনে। স্বল্প দূরত্বে না যাওয়ার অভিযোগ পুরনো। চালকরা বলছেন, অটোরিক্সার মালিকরা এখন আরও বেপরোয়া। মালিবাগ, মধুবাগ, মগবাজার, বাসাবো, সবুজবাগ, নন্দিপাড়া, খিলগাঁও এলাকার বেশ কিছু গেরেজে গাড়ির জমা বৃদ্ধির কথা জানান তারা।

নতুন সফটওয়্যার ডাউনলোড করতে শুভঙ্করের ফাঁকি ॥ বিআরটিএ’র নতুন নির্দেশ অনুযায়ী ভাড়া কার্যকর করার ক্ষেত্রে সকল অটোরিক্সার মিটারে নতুন সফটওয়্যার ডাউনলোড করতে হবে। পাশাপাশি সকল মিটারে বৈদ্যুতিক মিটারের মতো সিকিউরিটি লক বাধ্যতামূলক। লক নিশ্চিত করা গেলে মিটার টেম্পারিং করে যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায় প্রতিরোধ সম্ভব। মিটারে সফটওয়্যার ডাউনলোড করার দায়িত্বে নিয়োজিত এমন একাধিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাড়তি ভাড়া কার্যকর করার প্রস্তুতি হিসেবে ইতোমধ্যে মিটারে নতুন সফটওয়্যার ডাউনলোডের কাজ শুরু হয়েছে।

ছয় প্রতিষ্ঠানে চলছে মিটার সংযোজন ॥ অটোরিক্সার মিটারের ত্রুটি দূর করা, নতুন সফটওয়্যার ডাউনলোডসহ যাবতীয় কাজের জন্য সরকারীভাবে অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ছয়টি। ঢাকা ও চট্টগ্রামে এসব প্রতিষ্ঠান কাজ করে থাকে। অটোরিক্সায় বাড়তি ভাড়া কার্যকর করতে ইতোমধ্যে রাজধানীর প্রতিষ্ঠানগুলোতে নতুন সফটওয়্যার ডাউনলোডের চাপ বেড়েছে।

প্রকাশিত : ২৮ অক্টোবর ২০১৫

২৮/১০/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



শীর্ষ সংবাদ: